×
South Asian Languages:
দূর্ঘটনা, জানুয়ারী 2011
পেশোয়ার শহরের একজন উচ্চ পদস্থ পুলিশ কর্মী সহ আরও চারজন এক বিস্ফোরণে মৃত, সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী এক আত্মঘাতী সন্ত্রাসবাদী নিজেকে বিস্ফোরিত করে এই বাকী দের হত্যা করেছে, পুলিশের গাড়ীর সামনে. এখনও জানা যায় নি যে, শহরের পুলিশ প্রধানের সহকারী রশিদ খান কে হত্যা করা হয়েছে আগে থেকে পরিকল্পনা করে, নাকি হত্যাকারী পুলিশের ক্ষতিই শুধু করতে চেয়েছিল.
নতুন এক ঝড় আসছে ইজিপ্টে. সম্ভাবনা রয়েছে ২৫শে জানুয়ারী থেকে দেশে শুরু হওয়া গণ বিদ্রোহ আরও বিশাল আকার ধারণ করার.     ইজিপ্টের বিরোধী পক্ষ, যারা এই গণ অভ্যুত্থানের আগুণ জ্বালিয়েছে, দেশের সমস্ত লোককে আজ হরতাল করতে বলেছে. আগামীকাল ঘোষণা হয়েছে এক বহু লক্ষ মানুষের প্রতিবাদ মিছিল করার.
রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ এই নতুন পদ তৈরী করেছেন. তাছাড়া রাষ্ট্রপতি একই সঙ্গে এই পদে পুলিশের জেনেরাল লেফটেন্যান্ট ভিক্তর কিরিয়ানভ কে নিযুক্ত করেছেন. দিমিত্রি মেদভেদেভ স্বরাষ্ট্র দপ্তরের প্রধান রশিদ নুরগালিয়েভকে ডেকে এই খবর দিয়েছেন. দেশের রাষ্ট্রপ্রধান উল্লেখ করেছেন যে, এই দপ্তরের দায়িত্ব দেশের সমস্ত রকমের পরিবহন ব্যবস্থায় থাকবে, তার মধ্যে বিমান ও রেল পরিবহনও পড়ে.  
ভারত সরকার গোলমাল চলা কায়রোতে রবিবারে বিমান পাঠানো শুরু করেছে – খবর দিয়েছে দেশের পররাষ্ট্র দপ্তর. এই বিশেষ বিমানে করে প্রায় তিনশ জনকে, যাদের মধ্যে অধিকাংশই মহিলা ও শিশু, ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে. ভারতের কায়রো শহরের দূতাবাস এই কাজের নিয়ন্ত্রণ করছে.
গত সোমবারে নিহতদের আজ শহরের চারটি কবরখানাতে চিরশয্যায় শায়িত করা হচ্ছে. শহরের প্রশাসন যাবতীয় খরচ বহন করার দায় বিজেদের উপরে নিয়েছে. নিহতদের পরিবার বর্গকে আগে বিশ লক্ষ রুবল (৬৫ হাজার ডলার) করে শহরের তহবিল থেকে দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছিল, যারা গুরুতর ভাবে আহত তাঁদের ১৫ লক্ষ রুবল ও অল্প আহতদের ১০ লক্ষ রুবল করে দেওয়া হচ্ছে.
আজ ভারতের পূর্বে ঝাড়খন্ড রাজ্যে এই ঘটনা ঘটেছে. পুলিশ জানিয়েছে যে, সন্ত্রাস বিরোধী অপারেশনে একদল সন্ত্রাসবাদীকে লাতেহার শহরের কাছে ঘিরে ফেলা গিয়েছিল, তারা গুলি চালনা করায়, সকলকে ধ্বংস করতে বাধ্য হতে হয়েছে. সেনা বাহিনীর কোন ক্ষতির খবর পাওয়া যায় নি. দেশের সরকার আভ্যন্তরীণ ক্ষেত্রে এদের সবচেয়ে বেশী বিপজ্জনক বলে মনে করেছে.
দোমোদিয়েদোভা বিমান বন্দরে হানার পরিপ্রেক্ষিতে আজই দেশে এই নিয়ে আইন নেওয়ার ব্যবস্থা হচ্ছে. তিনটি স্তরে এই ব্যবস্থার কথা ভাবা হয়েছে. নীল – সবচেয়ে অল্প বিপদ, হলুদ – বিপদের ভাল সম্ভাবনা ও লাল – মারাত্মক সঙ্কট জনক অবস্থা. এদের প্রত্যেকটি ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রের নিরাপত্তার সঙ্গে জড়িত. বহু দেশের এই ধরনের ব্যবস্থা রয়েছে.
রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ দেশের সরকারকে সামগ্রিক ভাবে পরিবহন ব্যবস্থার সবচেয়ে ভঙ্গুর জায়গায় জনগন ও তাদের সঙ্গের মালপত্র পরীক্ষা করার বিষয়ে প্রস্তাব পেশ করতে নির্দেশ দিয়েছেন. ক্রেমলিনের তথ্য ও জনসংযোগ দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে যে, এটি পরিবহন ব্যবস্থায় নিরাপত্তা বজায় রাখার জন্য একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশ.
গত সোমবারে নিহতদের আজ শহরের চারটি কবরখানাতে চিরশয্যায় শায়িত করা হচ্ছে. শহরের প্রশাসন যাবতীয় খরচ বহন করার দায় বিজেদের উপরে নিয়েছে. নিহতদের পরিবার বর্গকে আগে বিশ লক্ষ রুবল (৬৫ হাজার ডলার) করে শহরের তহবিল থেকে দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছিল, যারা গুরুতর ভাবে আহত তাঁদের ১৫ লক্ষ রুবল ও অল্প আহতদের ১০ লক্ষ রুবল করে দেওয়া হচ্ছে.
রাশিয়ার বিমান বন্দর গুলিতে দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের খবরে জানানো হয়েছে যে, সবাইকে পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে প্রবেশ পথে. বাড়তি পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে. বিমান বন্দরের ৫০ মিটারের মধ্যে গাড়ী পার্ক করা বা আসা বন্ধ. মস্কো ও বহু অন্যান্য শহরে রেল ও বাস পরিবহনের স্টেশন গুলিতেও পাহারা বাড়ানো হয়েছে.
রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ দাভোস শহরের বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামে যোগদান পেছিয়ে দিয়েছেন, তাঁর সেখানে মূল বক্তৃতা দেওয়ার কথা, আর তিনি নিজে দোমোদিয়েদোভা বিমান বন্দরের সন্ত্রাসবাদী হানার তদন্তের কাজের নেতৃত্ব করছেন.     দেশের প্রধান অভিশংসক ইউরি চাইকা কে রাষ্ট্রপতি দায়িত্ব দিয়েছেন বিমান বন্দরে নিরাপত্তা সংক্রান্ত আইন গুলি পালিত হয়েছিল কি না তা পরীক্ষা করে দেখতে.
মস্কো ও মস্কোর উপকণ্ঠে প্রায় একশ জনেরও বেশী বর্তমানে নানা হাসপাতালে এই মূহুর্তে ভর্তি রয়েছেন. তাঁদের মধ্যে চল্লিশ জনের অবস্থা আশঙ্কা জনক. তাঁদের জীবনের জন্য চিকিত্সকেরা লড়াই করছেন, কিন্তু সব সময়ে চিকিত্সকদের আহত দের পরবর্তী অবস্থা সম্বন্ধে ভবিষ্যদ্বাণী আশা ব্যঞ্জক হয় না. কিছু লোক হাসপাতালে যাওয়ার পথেই মারা পড়েছেন. মঙ্গলবার সকালের আগে এই বোমা বিস্ফোরণে প্রাণ দিলেন ৩৫ জন লোক.
গত ২০ বছরের মধ্যে এই প্রথম প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে গত এক বছরে বিশ্বে দুই লক্ষ ৯৭ হাজার মানুষের প্রাণ বিয়োগ হয়েছে, যা সব চেয়ে বেশী. রাষ্ট্রসংঘের রিপোর্টে এই কথা বলা হয়েছে সোমবার. হাইতি দ্বীপে বিধ্বংসী ভূমিকম্পে প্রায় আড়াই লক্ষ লোক মারা গিয়েছেন. দ্বিতীয় স্থানে রাশিয়ার প্রবল গরম – যার ফলে রাষ্ট্রসংঘের হিসাব মতো প্রায় ছাপান্ন হাজার লোক মারা গিয়েছেন.
রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ কে টুইটার সাইটের মাধ্যমে দাভোসের অধিবেশন থেকে দোমোদিয়েদোভা বিমান বন্দরে বিস্ফোরণের সমবেদনা জানানো হয়েছে. "আমরা রাশিয়ার রাষ্ট্রপতিকে মস্কোর দোমোদিয়েদোভা বিমান বন্দর সন্ত্রাসবাদী আক্রমণের ঘটনায় আমাদের সমবেদনা জানাচ্ছি" – টুইটার সাইটে বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের পাতায় এই কথা লেখা হয়েছে.
বান কী মুন খুব কড়া ভাবে এই বিস্ফোরণের পিছনে যারা আছে, তাদের ভর্ত্সনা করেছেন ও নিহতদের পরিবার বর্গকে সমবেদনা জানিয়েছেন. এই বিষয়ে নিউইর্য়কে মহাসচিবের সরকারি প্রতিনিধির সহকারী ফারহান হক রাষ্ট্রসংঘের সদর দপ্তরে এক সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছেন.
সোমবারে সন্ত্রাসবাদের আক্রমণে যেখানে ৩০ জনেরও বেশী নিহত ও ১০০ জনেরও বেশী আহত হয়েছেন, সেই ট্র্যাজেডির জায়গায় প্রথম টাটকা ফুল নিয়ে মানুষ আসতে শুরু করেছে. আন্তর্জাতিক আগমন ভবনে, যেখানে বিস্ফোরণ হয়েছিল, সেই জায়গা ঘিরে রাখা হয়েছে, বহু মানুষ তার কাছে ফুল নামিয়ে রাখছেন.
দোমোদিয়েদোভা বিমান বন্দরে বিস্ফোরণের প্রস্তুতির সন্দেহে এই তিনজনকে খোঁজ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে ইন্টারফ্যাক্স সংবাদ সংস্থাকে আইন সংরক্ষণ দপ্তরের উত্স জানিয়েছে. সন্দেহভাজন লোকেরা গোয়েন্দা দপ্তরের খবর অনুযায়ী উত্তর ককেশাস থেকে আসা লোক ও তাদের সঙ্গে বেআইনি সশস্ত্র যোদ্ধাদের যোগ আছে.
মস্কোর দোমোদিয়েদোভা বিমান বন্দরে বিস্ফোরণের ফলে ৩০ এরও বেশী লোক নিহত ও ১৩০ জনেরও বেশী আহত. বিস্ফোরণ হয়েছে যাত্রীদের মাল পাওয়ার জায়গায়. রাশিয়ার আইন সংরক্ষণ দপ্তরের উত্স এই বোমা যে ব্যাগের মধ্যেও থাকতে পারত, সেই বিষয়ে কোন সন্দেহ কে বাদ দেন নি.
মস্কোর দোমোদিয়েদোভা বিমান বন্দরে আন্তর্জাতিক আগমন ভবনে বিস্ফোরণ হয়েছে. পুলিশ দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে যে, এই বিস্ফোরণের ফলে হতাহত লোক রয়েছে. ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন যে, আন্তর্জাতিক আগমন ভবনে এই বিস্ফোরণ ঘটেছে, যেখানে আগত যাত্রীদের সাক্ষাত করা যায়. তার কথামতো এই বিস্ফোরণের ফলে নিহত ও আহত হয়েছেন কিছু মানুষ.
আমেরিকার কংগ্রেস সদস্য এডোয়ার্ড মার্কি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে অবিলম্বে ব্রিটিশ পেট্রোলিয়াম ও রাশিয়ার রসনেফত্ কোম্পানীর মধ্যে শেয়ার বিনিময় নিয়ে তদন্ত শুরু করতে বলেছেন.     তাঁর দাবীতে বলা হয়েছে যে, এই চুক্তি, যার ফলে ব্রিটেনের কর্পোরেশন রসনেফত্ কোম্পানীর শেয়ারের ৯, ৫ শতাংশ পেয়েছে নিজেদের পাঁচ শতাংশ শেয়ারের বিনিময়ে. তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য বিপজ্জনক.
আগের
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
জানুয়ারী 2011
ঘটনার সূচী
জানুয়ারী 2011
7
8
9
14
15
16
17
19
22
23
26
27
29
30