×
South Asian Languages:
নৌবাহিনী, এপ্রিল 2013
বিশ্বজোড়া তাপমাত্রা বৃদ্ধি, যা নিয়ে বিগত বছর ধরে এত কথা চালাচালি হচ্ছে, তা এবারে বিশ্বজোড়া ঠাণ্ডায় বদলে যেতে পারে. সেন্ট পিটার্সবার্গের পুলকভ পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের বিজ্ঞানীরা বলেছেন যে, সৌর সক্রিয়তা এবারে কমার দিকে যাচ্ছে ও আমাদের গ্রহে তাপমাত্রা কমার দিকে যাচ্ছে. সারা বিশ্ব জোড়া ঠাণ্ডা হওয়া নিয়ে পূর্বাভাস মোটেও ভিত্তিহীন নয়.
ইরানের পারমানবিক শক্তি সংস্থার প্রধান ফেরেইদুন আব্বাসী দেওয়ানী আরও একবার ঘোষণা করেছেন যে যদি সেই রকমের দরকার পড়ে, যেমন কিছু জাহাজ বা ডুবো জাহাজের জন্য, তবে ইরান ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করতে পারে শতকরা ৫০-৬০ ভাগ পর্যন্ত. তাঁর কথামতো, ইরানের গবেষকদের পারমানবিক ডুবোজাহাজের প্রয়োজন পড়তে পারে আরও বড় ধরনের জলের নীচে কাজ করার জন্যে.
দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রী কিম গ্ভান চ্ঝিন ঘোষণা করেছেন যে, জন গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র কোরিয়া তৈরী হয়ে রয়েছে ব্যালিস্টিক মিসাইল উড়ান করার জন্য. কিন্তু উত্তর কোরিয়ার সম্পূর্ণ অর্থে যুদ্ধ প্রস্তুতির লক্ষণ দেখতে পাওয়া যাচ্ছে না. বিশেষজ্ঞরা বিশ্বাস করেন যে, কোরিয়া উপদ্বীপ এলাকায় যুদ্ধের কাজ অবধি ব্যাপারটা গড়াবে না. ১৫ই এপ্রিল উত্তর কোরিয়াতে সূর্য উত্সব পালন করা হচ্ছে.
রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্তকে খোলাখুলি ও চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ভঙ্গ করা মেনে নেওয়া হবে না. এই নিয়ে ঘোষণা করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রধান সের্গেই লাভরভ. তিনি এই ভাবেই উত্তর কোরিয়ার পক্ষ থেকে নতুন করে পারমানবিক অস্ত্র পরীক্ষা ও তাদের ব্যালিস্টিক মিসাইল পরীক্ষা করার ইচ্ছা প্রসঙ্গে মত দিয়েছেন. মস্কো পর্যায়ক্রম মেনেই কোরিয়া উপদ্বীপ এলাকায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে চাইছে বলে আশ্বাস দিয়েছেন মন্ত্রী.
ভারতের প্রধানমন্ত্রী ডঃ মনমোহন সিং ইতালির প্রধানমন্ত্রী মারিও মোন্তির সাথে টেলিফোনে আলাপকালে এই আশ্বাস দিয়েছেন, যে ভারতীয় ধীবরদের হত্যা করার অভিযোগে বিচারাধীন দুই ইতালীয় নাবিককে মৃত্যুদন্ড দেওয়া হবে না. ইতালির সরকারের সূত্র ধরে ফ্রান্স প্রেস সংবাদসংস্থা এই খবর দিচ্ছে.
গণ প্রজাতন্ত্রী চিনের নৌবাহিনীতে বিমানবাহী যুদ্ধ জাহাজ “লিয়াওনিন” উদয় হওয়া যদি অতিরঞ্জিত গণ আবেগের সঞ্চার করে থাকে, তবে কিছু পশ্চিমের গবেষকদের জন্য তাতে উল্টো প্রতিক্রিয়াই দেখতে পাওয়া গিয়েছে. পশ্চিমে চেষ্টা করা হচ্ছে “লিয়াওনিন” ও চিনের সমগ্র বিমানবাহী যুদ্ধ পরিকল্পনাকেই খুব মর্যাদাপূর্ণ প্রকল্প বলেই ধরার, কিন্তু তার কোনও বাস্তব সামরিক অর্থ নেই বলা হচ্ছে.
উত্তর কোরিয়ার প্রশাসন আবারও বিদেশীদের খুবই জোর দিয়ে অনুরোধ করেছে পিয়ংইয়ং ছেড়ে চলে যাওয়ার জন্য. সানকেই সিমবুন নামের সংবাদপত্রের তথ্য অনুযায়ী, রাষ্ট্রদূতদের ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে যে, ১০ই এপ্রিলের পরে জন গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র কোরিয়া ঠিক করেছে রকেট উড়ান করার, যা সম্ভবতঃ জাপান হয়ে উড়ে যাবে.
দশ বছর আগে পশ্চিমের সংবাদ মাধ্যমের শীর্ষ ছত্র হর্ষ ধ্বনিতে উপচে পড়েছিল: “বাগদাদ দখলীকৃত!” খুবই অপ্রিয় ভাবে শুরু হওয়া আমেরিকা- ব্রিটেনের ইরাক আক্রমণ, মনে হয়েছিল, সফল হয়েছে. যদিও ইরাকের সামরিক বাহিনী ও স্থানীয় জঙ্গীদের দল শুরুতে জোটের সেনাদের গতি খুবই লক্ষ্যণীয় ভাবে কমিয়ে দিয়েছিল, তবুও বাগদাদ দখল করা সম্ভব হয়েছিল আক্রমণ শুরু হওয়ার তিন সপ্তাহ পরেই.
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর দপ্তর প্রধানদের সংযুক্ত কমিটির সভাপতি মার্টিন ডেম্পসি ২০১৩ সালের এপ্রিল মাসে চিনে সফরে যাবেন, বলে জানিয়েছেন পেন্টাগনের সরকারি প্রতিনিধি জর্জ লিটল. পর্যবেক্ষকরা উল্লেখ করেছেন যে, মার্টিন ডেম্পসির সফরের প্রধান কারণ হয়েছে কোরিয়া উপদ্বীপ এলাকায় বর্তমানে গুরুতর তীক্ষ্ণ পরিস্থিতি. কোরিয়ার দিকে আমেরিকার কূটনৈতিক শক্তি প্রয়োগের সঙ্গে সামরিক শক্তিকেও যোগ করা – এই পরিস্থিতি গুরুতর হওয়ার প্রমাণ.
মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক নৌ-সামরিক মহড়া ‘ব্ল্যাকসিফোর’ শুরু হতে যাচ্ছে কৃষ্ণসাগরে. প্যারাট্রুপারদের বড় জাহাজ ‘নোভোচেরকাস্ক’, যেটি মহড়ায় রাশিয়ার প্রতিনিধিত্ব করবে, তা বুলগেরিয়ার ভার্না বন্দরের অভিমুখে রওনা দিয়েছে. ওখানেই সামরিক মহড়ায় অংশগ্রহণকারী দেশগুলির নৌসেনারা সমবেত হচ্ছে. ‘ব্ল্যাকসিফোর’ গঠন করা হয়েছিল ২০০১ সালে. ঐ দলে ঐক্যবদ্ধ কৃষ্ণসাগরের উপকূলবর্তী দেশগুলি – রাশিয়া, উক্রাইনা, তুরস্ক, বুলগেরিয়া, রোমানিয়া ও জর্জিয়া.
কোরিয়া উপদ্বীপ এলাকায় পরিস্থিতি আরও ঘোরালো হতে শুরু করেছে. আমেরিকা ও দক্ষিণ কোরিয়ার গুপ্তচর বিভাগের তথ্য অনুযায়ী উত্তর কোরিয়া নিজেদের পূর্ব উপকূলে “মুসুদান” নামের ব্যালিস্টিক মিসাইল ব্যবস্থা এনে জড়ো করেছে. আজ ৪ঠা এপ্রিল কোরিয়ার জাতীয় ফৌজের তরফ থেকে এক ঘোষণা করা হয়েছে.
উত্তর কোরিয়া ঘোষণা করেছে যে, তারা ফিওনান-পুক্তো প্রদেশের ইওনবেন পারমানবিক গবেষণা কেন্দ্র আবার করে চালু করছে. উত্তর কোরিয়ার প্রধান পারমানবিক শক্তি দপ্তরের প্রতিনিধি যেমন ঘোষণায় বলেছেন যে, সেখানে সবকটি রিয়্যাক্টর চালু করা হয়েছে ও সমস্ত জায়গাতেই কাজ শুরু করা হয়েছে. তার মধ্যে – ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করার কারখানা ও পাঁচ মেগাওয়াট শক্তি সম্পন্ন গ্র্যাফাইট রিয়্যাক্টর রয়েছে.
ভারত “স্করপিওন” ধরণের প্রথম অ-পারমাণবিক সাবমেরিন পাবে ২০১৪ সালে, আর বাকি পাঁচটি পাবে পরবর্তী পাঁচ বছরে – বছরে একটি করে. ফরাসী “ডি.সি.এন.এস” জাহাজ নির্মাণ কোম্পানির প্রতিনিধির উদ্ধৃতি দিয়ে এ সম্বন্ধে সোমবার জানিয়েছে “ইতার-তাস” সংবাদ এজেন্সি.
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30
এপ্রিল 2013
ঘটনার সূচী
এপ্রিল 2013
3
6
7
11
12
13
14
16
17
19
20
21
22
24
25
26
27
28
29
30