×
South Asian Languages:
আফগানিস্থান, এপ্রিল 2011
জার্মানিতে ইস্টার উত্সব উপলক্ষ্যে পরাম্পরাগত শান্তি মিছিল হয়েছে. তার অংশগ্রহণকারীরা সারা পৃথিবীতে পারমাণবিক ভান্ডার ও পারমাণবিক বিদ্যুত্ কেন্দ্রের উচ্ছেদের, ন্যাটো জোট ভেঙ্গে দেওয়ার, পারমাণবিক অস্ত্রমুক্ত জগতের, আফগানিস্তান থেকে জার্মান সৈনিকদের অপসারণ এবং লিবিয়ায় বল প্রয়োগ বন্ধ করার পক্ষে মত প্রকাশ করেছে. বার্লিনে পারমাণবিক বিদ্যুত্শক্তির বিরোধী চার হাজারেরও বেশি লোক রাস্তায় বের হয়েছিল.
রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ সমস্ত দেশকে একত্রে পারমানবিক সন্ত্রাসের মোকাবিলা করার আহ্বান জানানোর সিদ্ধান্ত বহাল করেছে. এই দলিল তৈরী করার কাজে সাতটি দেশ অংশ নিয়েছে, তার মধ্যে রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও রয়েছে. এই দলিলে বিশেষ কমিটিকে আরও দশ বছর কাজ করার মেয়াদ বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে, যা কালো বাজার কে লক্ষ্যে রাখে ও সেখানে গণহত্যার অস্ত্র আসাকে নিরোধ করে.
ইউরোপের পুলিশের হাতে এমন তথ্য নেই যে, ইউরোসঙ্ঘের দেশগুলিতে নিষিদ্ধ বস্তু সরবরাহের জন্য রাশিয়াকে ট্রানজিট দেশ হিসেবে ব্যবহার করা হয়. এ সম্বন্ধে জানিয়েছেন রাশিয়ার নার্কোটিক আবর্তন নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত ফেডারেল বিভাগের ডিরেক্টর ভিক্তর ইভানোভ. তাঁর কথায়, পরিস্থিতি একেবারে উল্টো চরিত্রের – দেশে সাইকোট্রপিক বস্তুর যথেষ্ট অংশ আসে ইউরোপ থেকে.
আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের সীমান্ত অঞ্চল – বিশ্ব সন্ত্রাসবাদের কেন্দ্র বিন্দু. ইস্লামাবাদে এ মত প্রকাশ করেছেন উচ্চপদস্থ মার্কিনী সামরিক অধিনায়ক অ্যাডমিরাল মাইকেল ম্যাল্লেন. তিনি বলেন যে, উত্তর ওয়াজিরিস্তানে ঘাঁটি গেড়েছে বহু সংখ্যক সন্ত্রাসবাদী দল. তা ওয়াশিংটনে ক্রমবর্ধমান উদ্বেগ জাগাচ্ছে, উল্লেখ করেন ম্যাল্লেন. তাঁর কথায়, পাকিস্তানের ঐক্যবদ্ধ গোয়েন্দা বিভাগ “আই.এস.
আফগানিস্তানে সামরিক অভিযান সুনিশ্চিত করার জন্য রাশিয়ার সাথে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো জোটের সহযোগিতা “অতি গুরুত্বপূর্ণ”. এ সম্বন্ধে বলেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র সচিবের ইউরোপ ও ইউরেশিয়া ব্যাপার সংক্রান্ত সহকারী ফিলিপ গর্ডন.
পশ্চিমের জোটের লিবিয়ায় সামরিক অপারেশনের দ্বিতীয় সারিতে গৌণ ভূমিকায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বেচ্ছা অবসর ও লিবিয়ার সমস্যা সমাধানে সমস্ত পক্ষের সঙ্গেই যোগাযোগের সক্রিয়তা বৃদ্ধি দিয়ে হোয়াইট হাউসের দেশকে আবার করে একটি ঝুঁকি সমেত খুবই অস্পষ্ট ভবিষ্যতের অপারেশনে নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে অনিচ্ছা স্পষ্টই দেখতে পাওয়া যাচ্ছে.
রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তানকে ২১টি “মি-১৭” মার্কা সামরিক হেলিকপ্টার সরবরাহের চুক্তির শর্ত সর্বসম্মত করেছে, তত্সংক্রান্ত দলিল মস্কো ও ওয়াশিংটন নিকট ভবিষ্যতে স্বাক্ষর করবে. রাশিয়ার “কমেরসান্ত” পত্রিকা জানাচ্ছে যে, এর ফলে মস্কো পাবে ৩৬ কোটি ৭৫ লক্ষ ডলার.
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কোরান পোড়ানো আফগানিস্তানকে বিস্ফোরিত করেছে. "আমেরিকা মুর্দাবাদ!", "ওবামা মুর্দাবাদ!" স্লোগান দিয়ে আমেরিকা বিরোধী মিছিল হয়েছে আফগানিস্তানের দশটি রাজ্যে. শুক্রবারে মাজারি শারীফে মিছিল শুরু হয়েছিল. সেখানে আমেরিকার কোন রাজদূতাবাস বা প্রতিনিধি দপ্তর নেই, তাই রাষ্ট্রসংঘের দপ্তরের উপরেই মিছিল আক্রমণ করেছিল. সাতজন কর্মী খুন হয়েছেন. আহতদের মধ্যে দপ্তরের প্রধান রাশিয়ার পাভেল এরশভ আছেন.
আফগানিস্তানের রাষ্ট্রপতি হামিদ কার্জাই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসকে আহ্বান জানিয়েছেন কোরান পোড়ানো প্যাস্টরের নিন্দে করতে. এ প্ররোচনার ইতিমধ্যে নিন্দে করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা, তবে কার্জাই মনে করেন এটা যথেষ্ট নয়. মুসলমানদের পবিত্র গ্রন্থ পোড়ানোর প্ররোচনা আফগানিস্তানে আলোড়ন জাগিয়েছে. পয়লা এপ্রিল মাজারি-শরিফে ক্ষুব্ধ জনতা রাষ্ট্রসঙ্ঘের মিশনের ভবনে ঢুকে পড়ে এবং মার-ধোর করে ২০ জনকে, যাদের মধ্যে সাতজন ছিল কূটনীতিজ্ঞ.
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30
এপ্রিল 2011
ঘটনার সূচী
এপ্রিল 2011
1
2
3
5
8
9
10
11
12
13
14
15
16
17
18
19
22
23
24
26
27
28
29
30