×
South Asian Languages:
মঙ্গল গ্রহ, 2012
বিশ্বের বিশেষজ্ঞরা উপস্থিত করেছেন বছরের দশটি প্রধান বৈজ্ঞানিক উন্নতির উদাহরণ. বাস্তবে তার প্রায় প্রত্যেকটিতেই সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েছে রুশী মানুষরা. তা মঙ্গল গ্রহে মহাকাশযান কিউরিওসিটি সফল ভাবে নামানই হোক আর অথবা পরীক্ষা মূলক ভাবে সেই বহু দিন আগে সোভিয়েত পদার্থবিদ্যায় বিজ্ঞানীদের পূর্বাভাস অনুযায়ী ছায়া পথের গতির হিসাবই হোক.
“ভেস্তা” অ্যাস্টেরয়েডে পাওয়া গেছে জলের সম্ভাব্য চিহ্ণ, যা জীবনের একটি মুখ্য পূর্বশর্ত. এ সম্বন্ধে জানিয়েছে “নাসা”. তার আন্তর্গ্রহ জোন্ড “ডন” অ্যাস্টেরয়েডের উপরীভাগে প্রাকৃতিক খাল অথবা উপত্যকার মতো জায়গা খুঁজে পেয়েছে, যা দেখা দেয় জল সরে যাওয়ার পরে. তা কিভাবে তৈরি হয়েছে তা এখনও নির্ধারিত হয় নি.
মঙ্গলগ্রহে জল পৃথিবীর জলের চেয়ে ভারী. নাসা-র বিজ্ঞানীরা মঙ্গলগ্রহ-যান “কিউরিওসিটি-র” নেওয়া মঙ্গলগ্রহের মৃত্তিকা-র নমুনা বিশ্লেষণের ফলাফল পেশ করেছেন. জানা গেছে যে, মঙ্গলগ্রহের জলে পাঁচ গুণ বেশি রয়েছে হাইড্রোজেনের ভারী আইসোটোপ – ডিউটেরিয়াম. সাধারণ হাইড্রোজেন এবং ডিউটেরিয়ামের অনুপাত মঙ্গলগ্রহের বায়ুমণ্ডল ও জল মণ্ডলের বিবর্তন ভালভাবে বোঝার সুযোগ দেবে. মঙ্গলগ্রহ-যান “কিউরিওসিটি” লাল গ্রহে নেমেছে আগস্ট মাসে.
রাশিয়াতে মহাকাশচারী হওয়ার জন্য প্রথম উন্মুক্ত প্রতিযোগিতার ফল প্রকাশ করা হয়েছে. তাতে অংশ নেওয়ার সুযোগ ছিল একেবারে সকলেরই, শুধু সামরিক বিমানের পাইলট বা ইঞ্জিনিয়ারদেরই নয়, যারা মহাকাশ শিল্পের সঙ্গে সাধারণত যুক্ত থাকেন. প্রতিযোগিতার পরে তিনশ জনের মধ্যে বেছে নেওয়া হয়েছে সাত জন যুবক ও এক যুবতীকে.
মঙ্গলগ্রহ-যান “কিউরিওসিটি” মঙ্গলগ্রহের মাটির নমুনা বিশ্লেষণ করার সময় অতি চিত্তাকর্ষক কিছু খুঁজে পেয়েছে, জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা. তবে, সেটা কি, বিশেষজ্ঞরা বলতে অস্বীকার করেছেন, কারণ তাঁরা সবকিছু ভালভাবে পরীক্ষা করে দেখতে চান, যাতে কোনো ভুল না হয়. এ মিশনের বৈজ্ঞানিক পরিচালক জন গ্রোটসিঞ্জারের কথায়, প্রাপ্ত তথ্য আশ্চর্যকর এবং তা ইতিহাসের পাঠ্যপুস্তকে স্থান পেতে পারে.
অস্ট্রিয়ার প্যারাশ্যুট ডাইভার ফেলিক্স বাউমগার্টনার স্ট্র্যাটোস্ফিয়ার থেকে লাফ দিয়ে তিনটি বিশ্ব রেকর্ড একই সঙ্গে ভেঙেছেন: প্যারাশ্যুট ব্যবহার করে সবচেয়ে বেশী উচ্চ স্থান থেকে লাফ দেওয়ার, পতনের গতিবেগ সবচেয়ে বেশী ও ফানুসে চড়ে সবচেয়ে উঁচু নিয়ন্ত্রিত উড়ানের. এই সব ভেঙে দেওয়া রেকর্ড বাস্তব ও একেবারেই ব্যবহারের যোগ্য সংজ্ঞা বহন করে.
মঙ্গলগ্রহ-যান "কিউরিওসিটি" এ প্রমাণ পেয়েছে যে, মঙ্গলগ্রহের পৃষ্ঠদেশে এক সময়ে জলের প্রবাহ ছিল, “নাসা”-র বিবৃতির উদ্ধৃতি দিয়ে এ সম্বন্ধে জানিয়েছে “ইন্টারফাক্স” সংবাদ এজেন্সি. সাত সপ্তাহ গ্রহের অধ্যয়নের পরে মঙ্গলগ্রহ-যান পৃথিবীতে গোলাকার পাথরের ফোটো পাঠিয়েছে. বিজ্ঞানীরা মনে করেন যে, পাথরগুলি এমন আকার ধারণ করেছে জলের প্রভাবে. রোবোট লাল গ্রহের পৃষ্ঠভাগে নামে আগস্ট মাসের গোড়া.
১৫৫ বছর আগে (১৭ই সেপ্টেম্বর) রাশিয়ার এক প্রত্যন্ত গ্রামে জন্মেছিলেন আধুনিক মহাকাশ বিজ্ঞানের জনক কনস্তানতিন শিয়ালকোভস্কি. পৃথিবী – মানব সভ্যতার শিশু বয়সের পালঙ্ক, কিন্তু চিরকাল বাচ্চার দোলনায় থাকা সম্ভব নয়, - তিনি বলতেন. মহাকাশ যুগের বহু দিন আগেই এই জিনিয়াস বিজ্ঞানীর পক্ষে সম্ভব হয়েছিল সেই ফর্মুলা আবিষ্কার করার, যা ব্যবহার করে আজও রকেট পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ শক্তিকে পার হয়ে যেতে পারছে.
রাশিয়ার রসকসমস সংস্থা স্থির করেছে পৃথিবীর কাছের কক্ষপথে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে আবার “মঙ্গল – ৫০০” নামের পরীক্ষা করে দেখার. এর জন্য আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে মহাকাশচারীদের পাঠানো হবে এক বছরের জন্য, যা সাধারন ভাবে চলে আসা মহাকাশে যাত্রার চেয়ে দ্বিগুণ বেশী সময়ের.
ভারত পরিকল্পনা করেছে ২০১৩ সালের নভেম্বর মাসে মঙ্গল গ্রহের কক্ষপথে এক বৈজ্ঞানিক যন্ত্র পাঠানোর. দেশের প্রধানমন্ত্রী ডঃ মনমোহন সিংহের কথামতো, দেশের মন্ত্রীসভা এই মিশনের ধারণাকে সমর্থন করেছে, যা তুলনামূলক ভাবে খুবই কম খরচ অর্থাত্ মাত্র ৮ কোটি ২০ লক্ষ ডলার দিয়েই সম্পন্ন হয়ে যাবে.
মহাকাশ সরঞ্জাম “কিউরিওসিটি” গত মঙ্গলবার মঙ্গল গ্রহের প্রথম রঙীন ফোটো পাঠিয়েছে. এ ফোটোতে দেখা যাচ্ছে গ্রহের উত্তরাংশের প্রাকৃতিক দৃশ্য. পিছনের দিকে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে হেইলা ক্রেটার. ফোটোটি খুব স্পষ্ট নয় – হয়তো মঙ্গলগ্রহ-যান নামার সময় ওড়া ধুলার জন্য. তাছাড়া নাসা-র টুইটারে বসানো আছে মঙ্গল গ্রহে এ যানের নামার সময়ের ভিডিও রেকর্ড. মঙ্গল গ্রহে এ যান নেমেছিল সোমবার.
মঙ্গলগ্রহ-যান “কিউরিওসিটি” লাল গ্রহের পৃষ্ঠভাগের প্রথম কিছু ছবি পৃথিবীতে পাঠিয়েছে. নাসা-তে জানানো হয়েছে যে, তা ঘটেছে আট মাস ব্যাপী মহাকাশযাত্রার পরে মঙ্গল গ্রহে নামার ঠিক পরেই, এ যাত্রা বাস্তবিকপক্ষে আন্দাজেই চালানো হয়েছে : আমাদের গ্রহ থেকে মঙ্গল গ্রহ এত দূরে অবস্থিত যে, বেতার তরঙ্গকে এ দূরত্ব অতিক্রম করতে প্রায় ১৪ মিনিট লাগে.
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
জানুয়ারী 2012
ঘটনার সূচী
জানুয়ারী 2012
1
2
3
4
5
6
7
8
9
10
11
12
13
14
15
16
17
18
19
20
21
22
23
24
25
26
27
28
29
30
31