×
South Asian Languages:
সৌদি আরব, ডিসেম্বর 2013

সিরিয়া সঙ্কট সমাধানের জন্য “জেনেভা – ২” আন্তর্জাতিক সম্মেলনের শুরু হতে আর এক মাসের কম সময় রয়েছে. কিন্তু এখনও কারা অংশগ্রহণ করবে তা ঠিক হয় নি. বিরোধী পক্ষ ঠিক করে উঠতে পারছে না সুইজারল্যান্ডে কি নিজেদের প্রতিনিধি দল পাঠানো হবে, আর তা যদি হয়, তবে ঠিক কাকে. আর ইরানের যোগদান নিয়ে রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এখনও সমঝোতায় পৌঁছতে পারছে না.

২০১০ সালের ২৪শে ডিসেম্বর টিউনিশিয়ার সিদি-বুজিদে প্রথম বেন আলির প্রশাসনের বিরুদ্ধে গণ অভ্যুত্থান ঘটেছিল, যা “আরব বসন্তের” শুরু করেছিল. হাতে গোনা কয়েক সপ্তাহের মধ্যে উত্তর আফ্রিকায় দুটি প্রশাসনকে জনতার ঝড় ধুয়ে দিয়েছিল, যে দুটিই বহুদিন ধরে পশ্চিমের খুবই ভরসার জোটসঙ্গী হয়ে ছিল.

তারপরে ঘটনাচক্র দিক পরিবর্তন করেছে, আর ছড়িয়ে পড়েছে সেই সমস্ত দেশের উপরে, যাদের বেন আলির টিউনিশিয়া বা হোসনি মুবারকের ইজিপ্টের সঙ্গে খুব কমই অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক দিক থেকে মিল ছিল. “আরব বসন্ত” তারপরে ১৮০ ডিগ্রী দিক পরিবর্তন করেছে.

২০১১ সালের গোড়ায় সিরিয়ায় সঙ্কট দেখা দেওয়ার সময় থেকে পৃথিবীর প্রায় ৭০টি দেশ থেকে ১১ হাজারেরও বেশি জঙ্গী সিরিয়ায় পৌঁছেছে সরকারী বাহিনীর বিরুদ্ধে সামরিক ক্রিয়াকলাপে অংশগ্রহণের জন্য.

সিরিয়ার জাতীয় বিরোধী ও বৈপ্লবিক জোট এই প্রথম ইরানের “জেনেভা-২” সম্মেলনে যোগদানের সম্ভাবনা মেনে নিয়েছে. এটাও সত্যি যে, তারা নিজেদের সহমত হওয়ার ব্যাপারে খুব একটা স্পষ্ট করে না দেওয়া শর্ত দিয়ে ঘোষণা করেছে.

সিরিয়াকে ঘিরে “জেনেভা -২” সম্মেলনের ভবিষ্যত নিয়ে মন্তব্য করেছেন সমীক্ষক ভ্লাদিমির সাঝিন.

সিরিয়ার বিরোধী গোষ্ঠীগুলো, যাদের পশ্চিমে মনে করা হয়েছে মধ্যপন্থী বলেই, তারা এবারে সিরিয়াতে গেরিলা ফ্রন্ট তৈরী করেছে, যাতে বেশী সফল ভাবে “ঝেভাত-আন-নুসরা”, “ঐস্লামিক ফ্রন্ট” ও “ইরাক ও লেভান্তে এলাকায় ঐস্লামিক রাষ্ট্রের” বাহিনীদের জঙ্গীদের বিরুদ্ধে যাওয়া সম্ভব হয়. এই নিয়ে তুরস্কের সংবাদপত্র হুরিয়ত খবর দিয়েছে. এই ধরনের পদক্ষেপ বিরোধীরা নিয়েছে গত সপ্তাহে সিরিয়ার স্বাধীন সেনাবাহিনীর অস্ত্র ও রসদের ভাণ্ডার ঐস্লামিকেরা দখল করে নেওয়ার পরে ও তার পরেই সেই বাহিনীর প্রধান সলিম ইদ্রিস দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ার পরে.

ঠিক দুই বছর আগে বাগদাদে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক পতাকা নামিয়ে নেওয়া হয়েছিল. এটা ছিল একটা প্রতীকী ব্যাপার, যা করা হয়েছিল, স্রেফ দেখানোর জন্যই যে, ইরাক থেকে মার্কিন সেনাবাহিনী চলে যাচ্ছে. আগামী বছরে, সব দেখে শুনে মনে হয়েছে যে, আমেরিকার সেনাবাহিনীর মূল অংশ আফগানিস্তান থেকেও নিয়ে যাওয়া হতে চলেছে.

কিছু লোক মনে করেছেন যে, ওয়াশিংটন রাজনৈতিক দিক থেকেও মধ্য ও নিকট প্রাচ্য থেকে নিজেদের প্রভাব কম করছে – আর এটা বিগত সময়েই বেশী করে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে.

পররাষ্ট্র মন্ত্রী পর্যায়ে জড়ো হয়ে এই সপ্তাহে ঐস্লামিক সহযোগিতা সংস্থা ২২শে জানুয়ারী ২০১৪ সালে “জেনেভা- ২” আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজনকে সমর্থন জানিয়েছে আর ঠিক করেছে যে, বিরোধীদের এই সংস্থায় সিরিয়ার প্রতিনিধিত্ব করতে দেবে না. এই বিষয়ে জানিয়েছেন “রিয়া নোভস্তি” সংস্থাকে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও প্রকাশনা দপ্তরের ডেপুটি ডিরেক্টর মারিয়া জাখারভা.

আসন্ন জেনেভা-২ শান্তি সম্মেলনে সৌদি আরবের অংশগ্রহণের কোন প্রয়োজনীয়তা দেখছে না সিরিয়ার সরকার। আল-মায়ান টেলিভিশন চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাতকারে এ কথা বলেছেন সিরিয়ার তথ্যমন্ত্রী ওমরান আজ-জাউবি।

ইরানের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের সম্ভাবনা বিশেষজ্ঞদের খনিজ তেলের বাজারে একেবারেই নানা রকমের ভবিষ্যত সম্ভাবনা ব্যক্ত করতে আগ্রহী করেছে. বিশ্বের বাজারে বৃহত্ পরিমানে ইরানের খনিজ জেল উপস্থিত হলে তা এই কালো সোনার দামের ক্ষেত্রে অনেকটাই প্রভাব ফেলতে পারে.

২০১২ সাল পর্যন্ত তেহরান ওপেক সংস্থার সদস্য দেশগুলোর মধ্যে উত্পাদনের বিষয়ে দ্বিতীয় স্থানে ছিল. প্রতিদিনে তারা ৩৫ লক্ষ ব্যারেল খনিজ তেল উত্পাদন করত, যা ২৩টি দেশে সরবরাহ করত. পশ্চিমের দেশগুলো থেকে নিষেধাজ্ঞা বহালের পরে বিশ্বের বাজারে তেহরানের জায়গা ভাগ করে নিয়েছিল ওপেক সংস্থার অন্যান্য অংশীদার দেশরা, প্রাথমিক ভাবে ইরাক. বিগত সময়ে ইরান দিনে মাত্র সাত লক্ষ ব্যারেল তেল উত্পাদন করত, যা চিনে যেত, আর তারই সঙ্গে তাইওয়ান, ভারত, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান ও তুরস্কে যেত.

1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
ডিসেম্বর 2013
ঘটনার সূচী
ডিসেম্বর 2013
1
2
5
6
7
8
9
10
11
12
13
15
18
20
21
22
23
25
26
27
28
29
30
31