×
South Asian Languages:
সৌদি আরব, আগষ্ট 2013

আধুনিক যুগে সবচেয়ে জনপ্রিয় হচ্ছে তাই, যা পুরনো জিনিষের চর্বিতচর্বন, নতুন কিছু করার আর তা নিয়ে চিন্তা করার সময় নেই, তাই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো জোটের সদস্য দেশগুলোর নীতি সিরিয়া নিয়ে হতে চলেছে পুরো ইরাক ও লিবিয়াতে পশ্চিমের দেশগুলোর কাজ কারবারের মিশ্রণ, অন্তত “রেডিও রাশিয়ার” বিশেষজ্ঞরা তাই মনে করেছেন.

সিরিয়ার প্রশাসন রাষ্ট্রসঙ্ঘকে অবিলম্বে রাষ্ট্রসঙ্ঘের পর্যবেক্ষকদের ২২, ২৪ ও ২৫শে আগষ্ট দামাস্কাসের উপকণ্ঠে তিনটি নতুন রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের ঘটনার তদন্ত করতে যাওয়ার জন্য আহ্বান করেছে, এই আহ্বান রাষ্ট্রসঙ্ঘে সিরিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি বাশার জাফারি করেছেন. বান কী মুনকে সিরিয়ার তরফ থেকে এই আহ্বানের কথা উল্লেখ করে জাফারি বলেছেন যে, নিরাপত্তা পরিষদে সিরিয়া নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে কোনও সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া যায় নি, আর সিরিয়ার রাজধানিতে সামরিক দপ্তর খালি করে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার খবরও তিনি অস্বীকার করেছেন.

ন্যাটো জোটের সদস্য দেশগুলোর রাষ্ট্রদূতদের ব্রাসেলস শহরে এক জরুরী অধিবেশনে ডেকে পাঠানো হয়েছে. আলোচ্য তালিকায় রয়েছে – সিরিয়া. এর আগে গতকাল সন্ধ্যায় মার্কিন পররাষ্ট্র সচিব রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে এক টেলিফোন আলাপের সময়ে সিরিয়াতে ২১শে আগষ্ট দামাস্কাস শহরের উপকণ্ঠে সম্ভাব্য রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের জন্য দোষ চাপিয়ে দিয়েছেন সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি বাশার আসাদের উপরেই. মস্কো এর বিপক্ষে যুক্তি দিয়েছে. জানাই রয়েছে যে, রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করে আক্রমণ যে সিরিয়ার সরকারি ফৌজ করেছে, তার কোন রকমেরই প্রমাণ নেই. কিন্তু পশ্চিম খুব একটা বাস্তব বিষয় নিয়ে আগ্রহী নয়, রয়টার সংস্থার তথ্য অনুযায়ী যে কোন ক্ষেত্রেই এই আঘাত হানা হতে পারে এই বৃহস্পতিবারেই.

মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী চাক হেগেল বলেছেন এখন শুধু সর্বাধিনায়কের ইশারার অপেক্ষাই বাকী. সমস্ত সামরিক যন্ত্র সিরিয়ার উপরে ঝাঁপিয়ে পড়ার জন্য তৈরী হয়ে আছে.

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক সিনিয়র প্রশাসনিক কর্মকর্তা. খবর দিয়েছেন যে, প্রেসিডেন্ট ওবামার মতে, সেই দেশের গৃহযুদ্ধে গভীর ভাবে জড়িত থাকার কারণে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিরিয়ার প্রশাসনের পক্ষ থেকে রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহারের জন্য শাস্তি হিসেবে এবং একটি বাধা হিসেবে উপস্থিত করার জন্য পরিকল্পিত সীমিত সুযোগ ও সময় কালের আক্রমণ করা দরকার রয়েছে.

রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিদের সিরিয়া নিয়ে গাগ শহরের ২৮শে আগষ্টের সাক্ষাত্কারকে বাতিল করা হয়েছে. মার্কিন গসডেপের সংবাদে বলা হয়েছে যে, প্রথমে আমেরিকার পক্ষ থেকে ঠিক করা হবে নিজেদের তরফ থেকে দামাস্কাসের উপকণ্ঠে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের প্রতিক্রিয়া কি. এই ঘটনার জন্য দায়িত্ব রাষ্ট্রসঙ্ঘের পক্ষ থেকে তদন্তের অপেক্ষা না করেই সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি বাশার আসাদের উপরে দেওয়া হয়েছে. অন্যভাবে বলতে হলে, যদি পশ্চিম থেকে সিরিয়াতে সামরিক অপারেশন শুরু করা হয়, তবে শান্তি প্রক্রিয়া নিয়ে কোন রকমের পরামর্শ করাটাই বাড়তি হয়ে যাবে.

সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আসাদ বলেছেন, বিদেশী জঙ্গীদের অনুপ্রবেশ সিরিয়ায় চলমান সামরিক সংঘাতের জন্য দায়ী। রুশ পত্রিকা ইজভেস্তিয়াকে দেওয়া সাক্ষাতকারে তিনি এ কথা বলেন।

সিরিয়ার বিরুদ্ধে সম্ভাব্য শক্তি প্রয়োগের সম্ভাবনার কথা যারা বলছে, তাদের সকলকেই রাশিয়া শুভবুদ্ধি প্রদর্শণের আহ্বান করেছে ও ট্র্যাজিক ভুল করতে না করেছে. এই বিষয়ে রবিবারে সন্ধ্যায় ঘোষণা করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্র দপ্তরের সরকারি প্রতিনিধি আলেকজান্ডার লুকাশেভিচ.

ইজিপ্ট বিনিয়োগ ও আর্থিক সাহায্যের ক্ষেত্রে ইউরোপীয় সঙ্ঘ বা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের থেকে বাতিল হয়ে যাওয়ার ভয় না পেলেও পারে. সৌদী আরব ও পারস্য উপসাগরীয় কিছু রাজতন্ত্র সমস্ত ঘাটতি পূরণ করে দেবে বলে আশ্বাস দিয়েছে. ওয়াশিংটন থেকে বিগত সময়ের ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ইজিপ্টকে সহায়তার বিষয়ে পরিকল্পনাকে আবার করে দেখার কথা ঘোষণা করা হয়েছে. ইউরোপীয় সঙ্ঘ তাদের জোটের পররাষ্ট্র মন্ত্রীদের এই প্রসঙ্গে জরুরী অধিবেশন করার জন্য আহ্বান করেছে. ওয়াশিংটন আর ব্রাসেলস ইজিপ্টের সামরিক বাহিনীকে ১৬ থেকে ১৮ই আগষ্ট “মুসলমান ভাইদের” সমর্থকদের মিছিল ছত্রভঙ্গ করে দেওয়ার সময়ে অতিরিক্ত রকমের শক্তি প্রয়োগ নিয়ে অভিযোগ করেছে.

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মিশরের প্রতি সামরিক সাহায্য আংশিকভাবে স্থগিত রেখেছে,

দোহা শহরে তালিবদের অফিসের উপরে “ঐস্লামিক আমীরশাহী আফগানিস্তানের” পতাকা উত্তোলন নিয়ে ইতিহাসের পরে তালিবদের সঙ্গে আলোচনার বিষয়টা কাবুলের সরকারি শব্দকোষ থেকে হারিয়ে গিয়েছিল. কিন্তু দেখা গেল যে, শুধু সেই কারণেই, যাতে নতুন উদ্যোগের নাম করে আবার ফিরে আসা সম্ভব হয়. আফগানিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রকের সরকারি প্রতিনিধি ঝানান মুসাজাই ঘোষণা করেছেন যে, তালিবরা নিজেদের প্রতিনিধি দপ্তর তুরস্ক বা সৌদী আরবে খুলতেই পারে, যাতে আফগানিস্তানের সর্ব্বোচ্চ শান্তি সভার সাথে শান্তি আলোচনা করা যেতে পারে.

সুদান সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর অস্বীকার করেছে যে, সিরিয়াতে জঙ্গীদের হাতে এসে যে সমস্ত অস্ত্র পড়ছে, তা তাদের দেশ থেকে কাতার রাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় পাঠানো হচ্ছে.

সিরিয়াতে বাশার আসাদের প্রশাসনের পতন হলে, তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার প্রশ্নেই গুরুতর সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে. এই ধরনের ঘোষণা করেছেন সিআইএ সংস্থার প্রথম ডেপুটি ডিরেক্টর মাইকেল মরেল্ল. তাঁর কথামতো, সিরিয়াতে “আল- কায়দার” বিজয় হলে, তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য বাড়তি সমস্যার সৃষ্টি করবে.

 সিরিয়ার বিদ্রোহীদের সহায়তা করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিজেরাই নিজেদের জন্য গুরুতর সমস্যার সৃষ্টি করছে. অস্ত্র, যা আজ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ার জঙ্গীদের হাতে তুলে দিতে যাচ্ছে, তা আগে হোক বা পরেই হোক আমেরিকার লোকদের বিরুদ্ধেই ব্যবহৃত হবে. ফলে বিগত সময়ের মতই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে, তাদের সঙ্গেই যুদ্ধ করতে হবে, যাদের তারা সামান্য কিছুদিন আগেই সমর্থন করেছিল. এই ধরনের সাবধান বাণীই ওয়াশিংটনে বেশী করেই শুনতে পাওয়া যাচ্ছে.

সিরিয়া বিরোধী পক্ষের তরফ থেকে জঙ্গীদের বন্দীদের গণহত্যা করা সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে তাদের তরফ থেকে প্রধান কৌশলগত পদ্ধতিতে পরিণত হয়েছে. বিরোধী ও বৈপ্লবিক শক্তির জাতীয় জোটের নেতৃত্বের সদস্য আনিস আইরুট স্বীকার করেছে যে, তারা বর্তমানের প্রশাসনের বিরুদ্ধে নিরীহ জনগনের গণহত্যা করে নিজেদের লক্ষ্য পূরণ অর্থাত্ ভয়ের ভারসাম্য রক্ষা করতে চাইছে. যদিও বাশার আসাদের প্রশাসনকে কেউই কখনও বন্দী করা নিয়ে অভিযোগ করে নি.

কায়রোর উত্তরের শহরতলি শুবরা এল-হেইমা নামের জায়গায় এক হাসপাতালের কাছে একটি হাত বোমা নষ্ট করে দেওয়া হয়েছে বলে খবর দিয়েছে আন্তর্আরব্য টেলিভিশন চ্যানেল আল- আরাবিয়া.

“রেডিও রাশিয়ার” সমীক্ষা. আফগানিস্তানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ঘোষণা করা হয়েছে যে, আগামী রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের সময়ে নিরাপত্তা বজায় রাখা নিয়ে পরিকল্পনা তৈরী করা হয়েছে, যা আগামী ২০১৪ সালের এপ্রিল মাসে হবে. এই প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ঘোষণা করেছে যে, আফগানিস্তানের জাতীয় বাহিনী দেশের ৬৮৪৫টি ভোট গ্রহণ কেন্দ্রের সবকটিতেই নিরাপত্তা বজায় রাখার জন্য ক্ষমতা ধরে. এই ধরনের আশ্বাস কতটা বাস্তব – যদি সেই প্রকৃত পরিস্থিতিকেই শুধু হিসাব করা হয় যে, বর্তমানে দেশের অনেকাংশই, দেশের সামরিক বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে নেই, তা হলে?

“জেনেভা-২” সম্মেলনে প্রশাসন ও বিরোধী পক্ষ সিরিয়া থেকে চরমপন্থীদের বের করে দেওয়ার জন্য সমঝোতায় আসা উচিত্.

1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
আগষ্ট 2013
ঘটনার সূচী
আগষ্ট 2013
1
3
4
7
8
10
11
13
15
16
17
18
19
21
22
23
24
30
31