×
South Asian Languages:
নিষেধাজ্ঞা, জানুয়ারী 2012
মিয়ানমার রাষ্ট্রপতি টেইন সেইন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর, যে তার দেশ নাকি উত্তর কোরিয়ার কাছ থেকে পারমানবিক অস্ত্র কেনার চেষ্টা করেছিল – এই খবর অস্বীকার করেছেন. আজ সিঙ্গাপুরের সংবাদপত্র ‘স্ট্রেইটস টাইমস’কে দেওয়া সাক্ষাত্কারে তিনি এ কথা বলেছেন.
মিশরে শাসনরত সশস্ত্র সামরিক পরিষদ রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের নতুন আইন ঘোষণা করেছে. মিশরের সংবাদ মাধ্যমগুলি এই খবর দিয়েছে. সামরিক পরিষদের প্রধান ফিল্ড-মার্শাল মোহাম্মদ হুসেন তানতাভি সংসদের নিম্নকক্ষে কোনো আলোচনা ছাড়াই ঐ আইন স্বাক্ষর করেছেন. উপোরক্ত আইন অনুযায়ী, কেবলমাত্র মিশরীয় এবং যার পিতামাতা উভয়েই মিশরীয়, রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হতে পারে.
তেহরানে আইন গ্রহণ করা হচ্ছে, যাতে অবিলম্বে ইরানের খনিজ তেল ইউরোপীয় সঙ্ঘকে রপ্তানী করা বন্ধ হয়, এমনকি ইউরোপীয় সঙ্ঘের পক্ষ থেকে ১লা জুলাই থেকে নিষেধাজ্ঞা কার্যকরী হওয়া শুরুর আগেই. এই বিষয়ে মন্তব্য করেছেন ভ্লাদিমির সাঝিন.
মস্কোয় আমেরিকার রাষ্ট্রদূত মাইকেল ম্যাকফল এই বসন্তে জ্যাকসন-ওয়েনিকের সংশোধনী প্রত্যাহার করার পূর্বাভাস দিয়েছেন. একো মস্কোভাকে প্রদত্ত সাক্ষাত্কারে তিনি একথা ঘোষণা করেছেন. তার কথায়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য এটা মুখ্য কর্তব্য, কারন ঐ সংশোধনী রাশিয়ার সাথে ব্যবসাকারী মার্কিনী কোম্পানীগুলির ক্ষতি করে. ১৯৭৪ সালে আরোপ করা জ্যাকসন-ওয়েনিক সংশোধনী আগে সোভিয়েত ইউনিয়ন, আর তারপরে রাশিয়ায় উচ্চপ্রযুক্তি সম্পন্ন জিনিষপত্র রপ্তানী করার উপর বিধিবদ্ধতা জারী করে.
বারাক ওবামা ঘোষণা করেছেন, যে ইরানের পারমানবিক অস্ত্র বানানোর প্রয়াসে আমেরিকা সর্বোতভাবে বাধা দেবে এবং সে দেশের সরকারের উপর চাপ সৃস্টি করার জন্য বিধিনিষেধ আরও কড়া করতে থাকবে. “ইরানের দিকে তাকিয়ে দেখুন. আমাদের কূটনৈতিক প্রয়াসের সুবাদে বিশ্ব, যা আগে বিভক্ত ছিল এবং তর্ক হোত ইরানের পারমানবিক প্রকল্প নিয়ে, অতঃপর জোট বেঁধেছে.
ওয়াশিংটনের ইরান বিরোধী রাজনীতি, যার প্রয়োগে সম্ভব হয়েছে ইরানের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক ও বিনিয়োগ সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা গ্রহণ করা, তা এই দেশ ও তার খনিজ তেলের গ্রাহক দেশ গুলিকে এড়িয়ে যাওয়ার পথ খুঁজতে বাধ্য হতে. বিশদ করে লিখেছেন আমাদের সমীক্ষক গিওর্গি ভানেত্সভ.     ইরান বর্তমানে ২৫ লক্ষ ব্যারেলের বেশী খনিজ তেল রপ্তানী করে.
খনিজ তেল রপ্তানীকারক দেশ গুলির সংস্থা ওপেক নিজেদের সদস্য দেশ গুলির স্বার্থ রক্ষাকেই মুখ্য মনে করে বলে রবিবারে ইরানের রাজধানীতে বর্তমানের সভাপতি ও ইরাকের খনিজ তেল মন্ত্রী আবদেল করিম আল- লুয়ৈবি ঘোষণা করেছেন. বর্তমান বছরে ইরাক এই সংস্থায় সভাপতিত্ব করছে. “ইরাক চেষ্টা করবে ওপেক সংস্থাকে কোন রাজনৈতিক খেলা থেকে নিরস্ত করতে চেষ্টা করবে.
ইন্টারনেটে ধর্মঘট আশানুরূপ ফল দিয়েছে. আমেরিকার কংগ্রেস স্টপ অনলাইন পাইরেসী অ্যাক্ট অথবা ইন্টারনেট চালু থাকা অবস্থায় বিনা অনুমতিতে অন্যের বুদ্ধিজাত সম্পত্তি কেড়ে নেওয়ার বিরুদ্ধে আইন, যাকে সোপা (SOPA) বলে নাম দেওয়া হয়েছে, তা গ্রহণ করার সময় অনির্দিষ্ট কালের জন্য পেছিয়ে দিয়েছে. বিশেষজ্ঞরা মনে করেছেন যে, বর্তমানের ভাষ্যে এই দলিল গৃহীত হবে না.
ইউরোপীয় সংঘের সদস্য দেশগুলি ইরানের সেন্ট্রাল ব্যাঙ্কের উপর বিধিনিষেধ আরোপ করার ব্যাপারে ঐক্যমতে পৌঁছেছে. ঐ বিধিনিষেধের মধ্যে আছে, সেইসব লেনদেন, যা পাশ্চাত্যের মতে ইরানের পারমানবিক প্রকল্পের উন্নয়নের ব্যাপারে সাহায্য করতে পারে. আশা করা হচ্ছে উপোরক্ত দলিল অনুমোদন করা হবে আগামী ২৩শে জানুয়ারী সদস্য দেশগুলির পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকে.
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র চিনকে অর্থনৈতিক ভাবে বেঁধে রাখার জন্য রাজনীতি কঠোর করছে. রাষ্ট্রপতি ওবামার নির্দেশ অনুযায়ী প্রশাসনের ভিতরে কার্যকরী পরিষদ তৈরী করা হবে চিনের পক্ষ থেকে বাণিজ্য ও অন্য যো কোন ধরনের নিয়ম ভঙ্গের বিষয়ে নিয়ন্ত্রণ ও রোধ করার জন্য, যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসায়িক স্বার্থহাণী করতে সক্ষম.
রাশিয়া ইরানের বিরুদ্ধে তেল সংক্রান্ত বাধানিষেধ প্রবর্তনের বিরুদ্ধে, ইরানের দ্বারা ইউরেনিয়াম পরিশোধন নিয়ে কাজ চালানো সত্ত্বেও. এ সম্বন্ধে "ইতার-তাস" সংবাদ সংস্থাকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে বলেছেন রাশিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই রিয়াবকোভ. তাঁর কথায়, “এ ধরণের বাধানিষেধের সাথে ব্যাপক নরহত্যার অস্ত্র প্রসার নিরোধের ব্যবস্থা সুদৃঢ় করার কর্তব্য মীমাংসার কোনো সম্পর্ক নেই.
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
জানুয়ারী 2012
ঘটনার সূচী
জানুয়ারী 2012
1
2
3
4
5
6
7
8
9
10
11
13
14
15
17
18
19
22
27
28
29
30