×
South Asian Languages:
অর্থনৈতিক সঙ্কট, জানুয়ারী 2013
বিশ্বের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি জটিল হলেও রাশিয়ার ব্যবসায়ীরা ভবিষ্যতের দিকে আশা নিয়েই তাকিয়ে রয়েছেন. এই ধরনের সিদ্ধান্তে আন্তর্জাতিক অডিট কর্পোরেশন প্রাইস-ওয়াটার-হাউস-কুপার্স পৌঁছেছে. এই সংস্থার বিশ্লেষকরা ঘোষণা করেছেন যে, রাশিয়ার কোম্পানী গুলির শতকরা ৯৫ ভাগ, নিজেদের কোম্পানী গুলির উন্নতি সম্বন্ধে আসন্ন কয়েক বছরে বিশ্বাস ও আস্থা রাখেন.
আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের( আইএমএফ ) কাছ থেকে মালি ১৮ দশমিক ৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ পেতে যাচ্ছে. দেশটিতে বর্তমানে উগ্রবাদী ইসলামিক জঙ্গীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ চলছে. মার্কিন গণমাধ্যমের খবরে মঙ্গলবার এ তথ্য জানানো হয়. এতে বলা হয়, বরাদ্ধকৃত অর্থ মালির অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও বাজেট ঘাটতি মোকাবেলায় ব্যয় করা হবে.
ইজিপ্টের তিনটি শহর – পোর্ট সঈদ, সুয়েজ ও ইসমাইলিতে ২৮শে জানুয়ারী সোমবার থেকে জরুরী অবস্থা ঘোষণা করে হয়েছে. এই সব প্রদেশের তিন দিন ধরে চলা বিশৃঙ্খল অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে রাষ্ট্রপতি মুহাম্মেদ মুর্সি এই ভাবেই তাঁর প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন. এই ব্যবস্থা এর পরে স্রেফ অসন্তোষের আরও একটা কারণ হয়েছে.
ইজিপ্টে পরিস্থিতি আরও গুরুতর হয়েছে. সেখানে মুসলমান ভাইদের প্রশাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ এবারে বিশাল আকার ধারণ করেছে. পরিস্থিতি এতই গুরুতর যে, রাষ্ট্রপতি মুহাম্মেদ মুর্সি আজ ২৭শে জানুয়ারী তাঁর ইথিওপিয়ার রাজধানী আদ্দিস আবাবা শহরে আফ্রিকা সঙ্ঘের শীর্ষ সম্মেলনে যাওয়া বাতিল করতে বাধ্য হয়েছেন. মুর্সি একই সঙ্গে দাভোস শহর থেকে অবিলম্বে প্রধানমন্ত্রী হিশাম কান্ডিলকে বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরাম ছেড়ে চলে আসতে নির্দেশ দিয়েছেন.
ইউরোপে সংকট এড়ানো গেছে, তবে নির্ভয় হওয়ার সময় এখনো আসেনি – এই মন্তব্য করেছেন আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের প্রধান ক্রিশ্চিন লেগাঁ ‘ইউরোনিউজ’কে দেওয়া বিশেষ এক সাক্ষাত্কারে.
ইউরোপের সামাজিক স্তর বিন্যাস এক নাটকীয় চরিত্র নিয়েছে ও তা ভীতিজনক ভাবেই তীক্ষ্ণ রূপ নিচ্ছে. এই বিষয়ে প্রামাণ্য হয়েছে ইউরো কমিশনের সামাজিক উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান নিয়ে শেষ প্রকাশিত রিপোর্ট. কিন্তু এই ভয়ঙ্কর ভেদ, যা সংখ্যালঘু ধনী ও সংখ্যাগরিষ্ঠ দরিদ্রদের মধ্যে বৃদ্ধি পাচ্ছে, তা হচ্ছে বাকী সস্ত বিশ্বেও.
রাশিয়ার বিকাশ নিয়ে দাভোস শহরের বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামে স্বাধীন বিশেষজ্ঞদের উপস্থিত করা কল্পচিত্র মোটেও বাস্তব নয়, কারণ তার প্রত্যেকটিতেই প্রশাসন কোন রকমের ব্যবস্থাই নিচ্ছে না বলে দেখানো হয়েছে. এই বিষয়ে ঘোষণা করেছেন রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ বুধবারে এই ফোরামে ভাষণ দিতে গিয়ে.
এই গোষ্ঠীর কাজের ফলপ্রসূতা বেড়েই চলেছে. এই বিষয়ে রুশ প্রধানমন্ত্রী দাভোস শহরে অর্থনৈতিক সম্মেলনে যোগ দিতে এসে ঘোষণা করেছেন. আমি মনে করতে পারি, কি করে জি ২০ তৈরী হয়েছিল, মনে করতে পারি সেই সন্দেহ প্রবণতা, যা তখন বেশী করেই ছিল, এক কঠিন অর্থনৈতিক সঙ্কটের মুহূর্তে.
রাশিয়া ও বিশ্বের অর্থনীতিতে উন্নতির পথে অন্তরায় হতে পারে কাঁচামালের খুবই বেশী দাম, এই বিষয়ে ঘোষণা করেছেন রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ দাভোস শহরে আয়োজিত বিশ্ব অর্থনৈতিক সম্মেলনে. মেদভেদেভ বলেছেন যে, বর্তমানে খনিজ তেলের দাম যথেষ্ট. খুব কম দামও অন্য আরেক কিনারায় ঠেলে দেয় – স্থিতিশীল অর্থনৈতিক বিকাশের উপযুক্ত প্রয়োজনীয় পরিমানে কাঁচামালের অভাবে, এই রকমই মনে করেন প্রধানমন্ত্রী.
বর্তমানের অর্থনৈতিক সঙ্কটকে “রেডিও রাশিয়াকে” দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতির পরামর্শদাতা অর্থনীতিবিদ ও রুশ বিজ্ঞান একাডেমীর অ্যাকাডেমিশিয়ান সের্গেই গ্লাজেয়েভ “টাঁকশালের যুদ্ধ” বলেই সংজ্ঞা দিয়েছেন. বাজারে অর্থনীতির সঙ্কটের সময়ে এলোমেলো অর্থের পরিমান প্রভূত, কারণ সেগুলির কোথাও কাজে লাগার উপায় নেই, তাদের মূল্য হ্রাস হচ্ছে.
রাশিয়ার অর্থনীতি প্রাণ সঞ্চারের অপেক্ষায় রয়েছে. গত বছরে বার্ষিক গড় উত্পাদনের হার লক্ষ্যণীয় ভাবেই কম হয়েছে, তাও আবার সেই ক্ষেত্রে যে, দেশের উত্পাদন সক্ষম সমস্ত ক্ষমতাই সম্পূর্ণ ভাবে কাজে লাগানো হয়েছিল, আর বেকারত্ব ছিল সবচেয়ে কম স্তরেই.
গত নভেম্বরে ইউরো-অঞ্চলে শিল্পোত্পাদন ০,৩% কমেছে ও গোটা বছরে সবমিলিয়ে ৩,৭% কমেছে. সোমবার ইউরোপীয় পরিসংখ্যান দপ্তর জানিয়েছে, যে এটা পূর্বাভাসের তুলনায় অনেক খারাপ. বিশ্লেষকরা আশা করেছিল, যে নভেম্বরে শিল্পোত্পাদন ০,২% বাড়বে ও সারা বছরের হিসাবে মোট ৩,১% হ্রাস পাবে. শিল্পোত্পাদন সবচেয়ে বেড়েছে এস্তোনিয়ায়, লাটভিয়ায় ও নেদারল্যান্ডসে. শিল্পোত্পাদন সবচেয়ে বেশি হ্রাস পেয়েছে স্লোভেনিয়ায়, পর্তুগালে ও স্পেনে.
মার্কিন রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা এই চলে যাওয়া সপ্তাহের শেষে নতুন প্রশাসনের প্রধান দায়িত্বভার গুলি ভাগ করে দেওয়া শেষ করেছেন. তাঁর ক্যাবিনেটের, মনে হচ্ছে এবারে বেশী করেই উপস্থিত বুদ্ধি সম্পন্ন ও বাস্তব ভারসাম্যের ধারণা আছে এমন সব মানুষ বেড়েছে. নতুন মুখ হয়েছে পররাষ্ট্র দপ্তর, অর্থমন্ত্রক, পেন্টাগন ও সিআইএ সংস্থার প্রধানদের.
সকলের জন্যই খাবার পর্যাপ্ত! বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে, মানব সমাজ নিজেদের ভরপেট খাওয়ারই যোগাড় দিতে সমর্থ শুধু নয়, বরং বুভুক্ষা নামক সামাজিক ব্যাপারটাকে একেবারে গোড়া ধরে নির্মূল করে দিতে পারে. এর জন্য শুধু প্রয়োজন যেকোন হিসাবী গৃহকর্ত্রীর মতো নিজে কাজ করা. ব্রিটেনের লোকদের হিসেব মতো, আজকের দিনে মানবসমাজ প্রায় ১০০ থেকে ২০০ কোটি খাদ্য দ্রব্য প্রতি বছরে ফেলে দিচ্ছে জঞ্জালে.
বিশ্বের অর্থনীতিতে আগামী দশ বছরের মধ্যে ব্যবস্থা গঠনের জন্য ভিত্তি মূলক বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান গুলির ও নেতৃস্থানীয় বিশ্বের বিনিময় মুদ্রা গুলির পতনের আশঙ্কা রয়েছে. এই সম্বন্ধে বলা হয়েছে বিশ্বায়নের ঝুঁকি – ২০১৩ নামের বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের বিশেষজ্ঞদের দ্বারা প্রস্তুত এক রিপোর্টে.
বর্তমানের বিশ্বে রসদ আরও কমে আসছে. সুতরাং তার জন্য আর বিক্রীর বাজারের জন্য লড়াই আরও কঠোর হচ্ছে. সুতরাং ২০১৩ সালে প্রধান ক্রীড়নকদের পরস্পর বিরোধী অবস্থান আরও অনেকটাই তীক্ষ্ণ হতে চলেছে. আমাদের “দাবা ও রাজনীতি” নামের আলোচনা চক্রে পরিস্থিতি নিয়ে বিশ্লেষণ করেছেন দুই রুশ বিখ্যাত দাবাড়ু.
কাতার মিশরকে আর্থিক সাহায্যের পরিমান ২৫০ কোটি ডলার বাড়াবে, যাতে সে দেশে বৈপ্লবিক ঘটনাবলী ঘটার পরে অর্থনীতিকে চাঙ্গা করে তোলা যায়.
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রকাশিত বিশ্বখ্যাত ম্যাগাজিন ফোর্বসের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে রাশিয়ার অর্থনীতির স্থিতিশীল উন্নয়ন বজায় রয়েছে বলে জানানো হয়েছে. ফোর্বসের অনলাইন সংষ্করণে প্রকাশিত ওই প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, বিশ্ব মন্দার পরেও রাশিয়ার অর্থনীতির স্থিতিশীল উন্নয়ন যা ইউরোপীয় ইউনীয়ন ভুক্ত প্রায় সবগুলো দেশের তুলনায় শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে এবং এই প্রবৃদ্ধির হার শতকরা ৩ থেকে ৪ ভাগ.
আমেরিকার ‘ফরেন পলিসি’ পত্রিকার সাইটে প্রভাবশালী কনসাল্টিং গ্রুপ ‘ইউরো-এশিয়া’ পৃথিবীর সবচেয়ে প্রভাবশালী রাজনীতিবিদদের তালিকা প্রকাশ করেছে. প্রথম স্থানটি ফাঁকা রাখা হয়েছে, দ্বিতীয় স্থানে আছে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিনের নাম. তালিকায় তৃতীয় স্থানে আছেন মার্কিনী কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের প্রধান বেন বের্নানকে. তার পেছনে স্থান পেয়েছেন জার্মানীর চ্যান্সেলর এ্যাঞ্জেলা মার্কেল ও মার্কিনী রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা.
মিশরকে অর্থনৈতিক সাহায্য প্রদানের পরিস্থিতি পর্যালোচনা করতে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ)একটি প্রতিনিধি দল ৭ জানুয়ারি কায়রো সফর করবে. সংস্থাটির প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়. সূত্র জানায়, মিশরীয় সরকারের আমন্ত্রনে এ সফর অনুষ্ঠিত হবে এবং প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিবেন মধ্যপ্রাচ্য ও মধ্য এশিয়ার আইএমএফের পরিচালক মাসুদ আহমেদ.
আগের
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
জানুয়ারী 2013
ঘটনার সূচী
জানুয়ারী 2013
1
4
7
10
13
14
16
17
18
19
20
21
31