×
South Asian Languages:
অর্থনৈতিক সঙ্কট

২০১৩ সালে বিশ্বে রেকর্ড পরিমাণে দানাশষ্য উত্পাদিত হতে যাচ্ছে. রাষ্ট্রসঙ্ঘের খাদ্যদ্রব্য ও কৃষি সংস্থার অনুমান অনুযায়ী নতুন বছরের আগেই বিশ্বে আড়াইশো কোটি টন বিভিন্ন ধরনের দানাশষ্য তোলা সম্ভব হতে চলেছে. এটা গত বছরের চেয়ে শতকরা আট শতাংশ বেশী. তারই মধ্যে এই সংস্থা সাবধান করে দিচ্ছে যে, খাদ্য নিরাপত্তা নিয়ে পরিস্থিতি এশিয়া ও আফ্রিকার অনেক অংশেই খারাপ হতে চলেছে.

জার্কাতা পোস্ট সংবাদপত্রে খবর দেওয়া হয়েছে যে, ইন্দোনেশিয়ার বালিতে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার নবম মন্ত্রী পর্যায়ের অধিবেশনে ১৫৯টি দেশের এই সংগঠন প্রস্তাবিত দশটির মধ্যে আটটি দলিলে সম্ভবতঃ সকলেই স্বাক্ষর করবেন.

ইরানের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের সম্ভাবনা বিশেষজ্ঞদের খনিজ তেলের বাজারে একেবারেই নানা রকমের ভবিষ্যত সম্ভাবনা ব্যক্ত করতে আগ্রহী করেছে. বিশ্বের বাজারে বৃহত্ পরিমানে ইরানের খনিজ জেল উপস্থিত হলে তা এই কালো সোনার দামের ক্ষেত্রে অনেকটাই প্রভাব ফেলতে পারে.

২০১২ সাল পর্যন্ত তেহরান ওপেক সংস্থার সদস্য দেশগুলোর মধ্যে উত্পাদনের বিষয়ে দ্বিতীয় স্থানে ছিল. প্রতিদিনে তারা ৩৫ লক্ষ ব্যারেল খনিজ তেল উত্পাদন করত, যা ২৩টি দেশে সরবরাহ করত. পশ্চিমের দেশগুলো থেকে নিষেধাজ্ঞা বহালের পরে বিশ্বের বাজারে তেহরানের জায়গা ভাগ করে নিয়েছিল ওপেক সংস্থার অন্যান্য অংশীদার দেশরা, প্রাথমিক ভাবে ইরাক. বিগত সময়ে ইরান দিনে মাত্র সাত লক্ষ ব্যারেল তেল উত্পাদন করত, যা চিনে যেত, আর তারই সঙ্গে তাইওয়ান, ভারত, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান ও তুরস্কে যেত.

প্যালেস্টাইন রাষ্ট্র কাতারের কাছ থেকে ১৫ কোটি ডলারের জরুরী আর্থিক সাহায্য পাবে রাষ্ট্রীয় কর্মীদের বেতন দানের জন্য.

রবিবারে ইরান ও “ছয় মধ্যস্থতাকারী পক্ষের” মধ্যে সমঝোতা, যা অর্জন করা হয়েছে, তা শুধু ইরানকেই স্পর্শ করে নি. এর বিশাল এক অর্থ রয়েছে ভারতের জন্যেও, যে দেশ ইরানের উপরে নিষেধাজ্ঞা থেকে নিজেদের জন্য দুর্দশার যথেষ্ট কারণ দেখতে পেয়েছে. ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম যেমন উল্লেখ করেছে যে, এই সমঝোতা ইরানের সঙ্গে জ্বালানী শক্তি ক্ষেত্রে আবার করে সহযোগিতার পথকে অনেক বেশী প্রশস্ত করে দিয়েছে. কিন্তু যেমন মনে করা হয়েছে যে, শুধু জ্বালানী শক্তি ক্ষেত্রেই সহযোগিতা আবদ্ধ হয়ে থাকবে না, আর সমগ্র পূর্ব ইউরো-এশিয়া এলাকার জন্যেই এই ভবিষ্যত সম্ভাবনা অনেক বেশী রকম ভাবেই প্রসারিত হয়েছে. এই প্রসঙ্গে রাশিয়ার স্ট্র্যাটেজিক গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিশেষজ্ঞ বরিস ভলখোনস্কি মন্তব্য করে বলেছেন:

ভারত সঙ্কটের দোড়গোড়ায়. আপাততঃ অর্থনীতিবিদরা বিদেশী মূলধন আকর্ষণ করা নিয়ে যখন ব্যস্ত ও রাজনীতিবিদরা এগিয়ে দিচ্ছেন দেশের জন্য খুবই দামী খাদ্য নিরাপত্তা বিল, তখন ভারতের জাতীয় মুদ্রা রুপিয়ার দাম কমে যাওয়ার কারণে খুবই দ্রুত বেড়ে গিয়েছে যেমন জ্বালানী ও শিল্পজাত দ্রব্যের দাম, তেমনই মূল খাদ্যোপোযোগী জিনিষের দামও: আলু, পিঁয়াজ ও নুনের দাম. পরিস্থিতি একেবারে চরমে পৌঁছেছে যখন বিহারে নুনের দাম এক দিনে পনেরো টাকা থেকে দশগুণ বেড়ে দেড়শো টাকা হয়েছিল প্রতি কিলোগ্রামে.

কানাডার একটি খনিজ উত্পাদন কোম্পানী অ্যালিক্স রিসোর্সেস সিদ্ধান্ত নিয়েছে নিজেদের খনিজ অনুসন্ধান সংক্রান্ত সহকর্মী কোম্পানীকে তাদের কাজের জন্য বৈদ্যুতিন মুদ্রা “বিটকয়েন” ব্যবহার করে মূল্য দেওয়ার. বিশ্বের বৃহত্তম দেশগুলোর অর্থনৈতিক প্রশাসকরা কিন্তু এই রকমের ঘটনার পরম্পরা ভাল চোখে দেখছেন না. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেনেট যেমন মনে করে যে, অর্থনীতির বাস্তব ক্ষেত্রে ভার্চুয়াল অর্থ দেশের জন্যই বিপজ্জনক হয়ে দাঁড়াতে পারে.

বিশ্বের অর্থনীতি বর্তমানে বৈদ্যুতিন বিদেশী মুদ্রা সংক্রান্ত নতুন এক লড়াইয়ের অধ্যায়ের সামনে পড়েছে. এই ধরনের সিদ্ধান্ত করেছেন বিশ্বের রিজার্ভ ব্যাঙ্কগুলোর থেকে শেষ খবর পাওয়ার পরে বিশ্লেষকরা. দেশগুলো কৃত্রিম ভাবে নিজেদের জাতীয় মুদ্রার বিনিময় মূল্য কমাতে শুরু করেছে, যাতে অর্থনৈতিক উন্নতিতে গতিবেগ দেওয়া যেতে পারে.

রাশিয়ার অর্থনীতি সঙ্কটের পরে পুনর্স্থাপিত হচ্ছে ইউরো অঞ্চলের চেয়ে যথেষ্ট দ্রুত গতিতে. 

রাশিয়া অর্থনৈতিক কাঠিন্য অতিক্রম করায় গ্রীসের প্রচেষ্টা সম্ভাব্য সমস্ত উপায়ে সমর্থন করবে, বলেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরোভ. 

অর্থনীতিবিদেরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রীয় সংস্থাগুলির কাজ বন্ধ থাকার জন্য ক্ষতির হিসেব করছেন, যা আমেরিকার ইতিহাসে প্রথম ডিফল্ট ঘটাতে পারত.

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রীয় ঋণ গত বৃহস্পতিবার ইতিহাসে এই প্রথম ১৭ লক্ষ কোটি ছাড়িয়ে গেছে – রাষ্ট্রীয় ঋণের সীমা বাড়ানো সম্পর্কে কংগ্রেসে সহমত অর্জনের পরে এক দিনে এ ঋণ বেড়েছে ৩২৮০০ কোটি ডলার এবং দাঁড়িয়েছে ১৭ লক্ষ ২ হাজার ৭০০ কোটি ডলারে.

এ বছরের তৃতীয় ত্রৈমাসিকে চীনের বিদেশী মুদ্রার রিজার্ভ ১৬ হাজার ৩০০ কোটি ডলার বেড়েছে.

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা এক আইন স্বাক্ষর করেছেন. যা অনুযায়ী, সাময়িকভাবে রাষ্ট্রীয় সংস্থার জন্য অর্থ বরাদ্দ পুনরারম্ভ হবে এবং রাষ্ট্রীয় ঋণের সীমা বাড়ানো হবে, যাতে ডিফল্ট নিবারণ করা যায়.

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাজেট পরিস্থিতি নিয়ে সৃষ্ট সংকট এবার সর্বশেষ পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছেছে। আগামী ১৭ অক্টোবরের আগে ঋণসীমা বাড়ানো না গেলে যুক্তরাষ্ট্র ঋণ খেলাপি হয়ে যাবে। রিপাবলিকান আর ডেমোক্র্যাট আইনপ্রণেতারা একমত না হলে হয়তো যুক্তরাষ্ট্রের জন্য কৌশলগত স্থবিরতা তৈরী হবে অথবা সরকারকে কঠোর অর্থনীতি নীতি প্রণয়ন করতে হবে। আর এই দুই ব্যবস্থাই পুরো বিশ্বের অর্থনীতিতে বিরুপ প্রভাব ফেলবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

বিশ্ব অর্থনৈতিক সঙ্কটের সবচেয়ে তীব্র পর্যায় অতিক্রম করা হয়েছে, তবে তাড়াতাড়ি তা পুনর্স্থাপিত হবে এ আশা করা উচিত নয়, বলেছেন সোমবার রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন.

ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশে রাজ্যের ভূভাগের এক অংশ নিয়ে নতুন তেলেঙ্গানা রাজ্য গঠনে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কর্মীদের ধর্মঘটের ফলে ব্যাপক পরিসরের বিদ্যুত্ সঙ্কট দেখা দিয়েছে. 

পেন্টাগনের অন্ততপক্ষে ৪ লক্ষ বেসামরিক কর্মী আজ তৃতীয় দিন কাজে বের হচ্ছে না, তাদের বেতন আটকে রয়েছে.

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নতুন বাজেটে অর্থ বরাদ্দ সংক্রান্ত সংকটের সমাধান হতে যাচ্ছে। আশাকরা হচ্ছে আজ শুক্রবারই কংগ্রেসের দুই কক্ষের সমঝোতায় পৌঁছানো সম্ভব হবে এবং একটি সাময়িক বাজেট পাশ করা যাবে। তবে যা গুরুত্বপূর্ণ তা হলো সরকারের ঋণসীমা একই সাথে বাড়ানো। আর এমনটি হলে ফেডারেল সরকারের অস্থিরতা দূর করা যাবে এবং কয়েক লাখ মানুষ নিজ নিজ কর্মস্থলে ফিরতে পারবেন।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা বলেছেন যে, রাষ্ট্রীয় সব সংস্থা বন্ধ করা এবং মার্কিন সরকারের “শাট-ডাউন” দেশকে ডিফল্ট-এর দিকে নিয়ে যেতে পারে, জানিয়েছে “বি.বি.সি”.

আগের
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
ডিসেম্বর 2017
ঘটনার সূচী
ডিসেম্বর 2017
1
2
3
4
5
6
7
8
9
10
11
12
13
14
15
16
17
18
19
20
21
22
23
24
25
26
27
28
29
30
31