×
South Asian Languages:
সিরিয়া, 26 জুন 2012
সিরিয়ার দ্বারা ধ্বংস করা তুরস্কের ফাইটার বিমান ন্যাটো জোটের প্রত্যক্ষ সামরিক হস্তক্ষেপ ঘটায় নি, কারণ জোট যুদ্ধের ক্ষতির ভয় পাচ্ছে সিরিয়ার সুবিকশিত আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার জন্য. এ সম্বন্ধে “ইন্টারফাক্স” সংবাদ এজেন্সিকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে বলেছেন রাশিয়ার সামাজিক সভার সদস্য, রাজনৈতিক গবেষণা ইনস্টিটিউটের ডিরেক্টর সের্গেই মার্কোভ. বিশেষজ্ঞের কথায়, জোট তাছাড়া ভয় পাচ্ছে রাডিক্যাল ইস্লামপন্থীদের শাসন ক্ষমতায় আসার সম্ভাবনার.
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, সৌদি আরব, কাতার ও তুরস্ক সিরিয়ার বিরোধীদের সাহায্যের ক্ষেত্র আলাদা করে বেছে নিয়েছে.মার্কিনরা সাহায্য করছে অস্ত্র দিয়ে, দুটি আরব রাজতন্ত্র – অর্থ দিয়ে, আর তুরস্ক নিজেদের এলাকা দিয়ে. এই ধরনের সমঝোতার অস্তিত্ব অনেকদিন আগেই অনুমান করা হয়েছিল, কিন্তু শুধু এখনই এই বাস্তব একটা সমর্থন পেয়েছে.
রাষ্ট্রসঙ্ঘ ও আরব রাষ্ট্র লীগের বিশেষ প্রতিনিধি কোফি আনন সিরিয়া সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক সম্মেলনে আমন্ত্রণ করার প্রস্তাব করেছেন, যা ৩০শে জুন জেনেভায় আয়োজন করার পরিকল্পনা রয়েছে. এ সম্বন্ধে ওয়াশিংটনে কূটনৈতিক উত্স-কে উদ্ধৃত করে মঙ্গলবার জানিয়েছে “অ্যাসোশিয়েটেড প্রেস” সংবাদ এজেন্সি.
তুরস্কের কর্তৃপক্ষ সিরিয়ার সাথে যুদ্ধ করতে যাচ্ছে না, সাধারণভাবে কারুর সঙ্গেই নয়. এ সম্বন্ধে গত সোমবার বলেছেন তুরস্কের উপ-প্রধানমন্ত্রী ব্যুলেন্ট আরিঞ্চ. গত সপ্তাহে সিরিয়ার বাহিনীর দ্বারা তুরস্কের সামরিক বিমান ধ্বংসে এমন প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে আঙ্কারা.একই সঙ্গে,আরিঞ্চ উল্লেখ করেন যে, তুরস্ক এ ঘটনাকে পরিণতি-হীন ভাবে ছেড়ে দিতে চায় না.
তুরস্ক জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে আবেদনপত্র পাঠিয়েছে, যেখানে সিরিয়ার সামরিক বাহিনী কতৃক তাদের বিমান ধ্বংসের ঘটনাকে ঐ অঞ্চলে শান্তি ও স্থিতিশীলতার পক্ষে হুমকি বলে উল্লেখ করা হয়েছে. ঐ আবেদনপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, যে বিমানটিকে ভূপাতিত করা হয়েছে আন্তর্জাতিক আকাশে. আবেদনপত্রে তুরস্ক সিরিয়ার তীব্র নিন্দা করে বলেছে, যে বিমানের উপর গোলা চালানো তুরস্কের সার্বভৌমত্বের পক্ষে হুমকি.
পশ্চিমী প্রচার মাধ্যমগুলি পশ্চিমী কূটনীতিজ্ঞদের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে যে, রাষ্ট্রসঙ্ঘ সিরিয়ায় নিরস্ত্র পর্যবেক্ষকদের মিশন হ্রাস করার সম্ভাবনা আলোচনা করছে. পশ্চিমী কূটনীতিজ্ঞদের কথায়, রাষ্ট্রসঙ্ঘের পর্যবেক্ষক মিশনের সামরিক অংশ হ্রাস করা হতে পারে অথবা এমনকি বন্ধ করে দেওয়া হতে পারে, এ দেশে হিংসা বৃদ্ধির জন্য. সিরিয়ায় থেকে যেতে পারে শুধু মিশনের বেসামরিক অংশ যোগাযোগ বজায় রাখার কাজের জন্য.
প্যালেস্টাইনী জাতীয় প্রশাসনের প্রধান মাহমুদ আব্বাস সিরিয়ায় হিংসার বৃদ্ধির জন্য সিরিয়ার প্রতিবেশী দেশগুলিতে পরিস্থিতি অস্থিতিশীল হওয়ার বিপদ সম্বন্ধে সতর্ক করে দিয়েছেন. এ সম্বন্ধে তিনি বলেন “ইন্টারফাক্স” সংবাদ এজেন্সিকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে, যা তিনি দিয়েছেন প্যালেস্টাইনী ভূভাগে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিনের সফরের প্রাক্কালে.
জুন 2012
ঘটনার সূচী
জুন 2012