×
South Asian Languages:
লিবিয়া, আগষ্ট 2011
তেহরান আন্তর্জাতিক মধ্যস্থতাকারী পক্ষ দের ইউরেনিয়াম বিনিময় করার প্রস্তাব একেবারে নাকচ করে দিয়েছে ও নিজেদের পারমানবিক কাজ কারবার চালিয়েই যাবে. বিশেষজ্ঞরা বিশ্বাস করেন যে, এটা ইরানের পারমানবিক পরিকল্পনার সমস্যা নিয়ে আলোচনায় রত রাশিয়া সহ আমেরিকা, চিন, গ্রেট ব্রিটেন, ফ্রান্স এবং জার্মানী এই ছয় পক্ষের সিদ্ধান্তেই প্রভাব ফেলবে.
প্যারিসে লিবিয়া সংক্রান্ত সম্মেলনে রাশিয়া এ দেশে নতুন রাষ্ট্রীয় সত্ত্বা গঠনের প্রক্রিয়া সম্বন্ধে নিজের দৃষ্টিভঙ্গী পেশ করবে. এ সম্বন্ধে “ইন্টারফাক্স” সংবাদ সংস্থাকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে বলেছেন লিবিয়া সম্পর্কে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতির বিশেষ প্রতিনিধি মিখাইল মার্গেলোভ. তিনি সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবেন, যা ফ্রান্সের রাজধানীতে পয়লা সেপ্টেম্বর শুরু হবে. মার্গেলোভের কথায়, সম্মেলনে মস্কো লিবিয়ায় রাশিয়ার অর্থনৈতিক ও অন্যান্য স্বার্থ রক্ষা করবে.
লিবিয়াতে যুদ্ধ পরবর্তী কালে গঠনের পরিকল্পনা ইন্টারনেটে উপচে পড়েছে. সব দেখে শুনে মনে হয়েছে যে, তা রাষ্ট্রসঙ্ঘের বিশেষ পরিষদ তৈরী করছে ব্রিটিশ নাগরিক ইয়ান মার্টিনের সভাপতিত্বে. এই দলিলে বিশদ করে রাষ্ট্রসঙ্ঘের ভূমিকা লিবিয়ার অর্থনীতির পুনরুদ্ধারের জন্য, নিরাপত্তা বজায় রাখার জন্য ও আভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে আলোচনা সৃষ্টির জন্য বর্ণনা করা হয়েছে.
ফেব্রুয়ারীর গোড়ায়, মুয়ম্মর গদ্দাফির শাসনের বিরুদ্ধে ব্যাপক গণ আন্দোলন শুরু হওয়ার সময় থেকে লিবিয়ায় প্রায় ৫০ হাজার লোক নিহত হয়েছে. এ সম্বন্ধে মঙ্গলবার বলেছেন অন্তর্বর্তী জাতীয় পরিষদের প্রতিনিধি হিশাম বুখাহিয়ার. আগে বিদ্রোহীরা প্রায় ২০ হাজার জন নিহত হওয়ার কথা জানিয়েছিল.
লিবিয়ার অন্তর্বর্তী জাতীয় পরিষদ দেশে সামরিক পর্যবেক্ষক পাঠানো সম্পর্কে রাষ্ট্রসঙ্ঘের প্রস্তাব প্রত্যাখান করেছে. জাতীয় পরিষদের প্রতিনিধি ইব্রাহিম দাব্বাশি বলেন
রাশিয়ার পরামর্শে গদ্দাফি সরকারের কাছ থেকে বাজেয়াপ্ত করা অর্থ, যা বিরোধীপক্ষের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে, তা শুধুমাত্র মানবিক খাতেই খরচ করা যাবে. জাতিসংঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভিতালি চুরকিনের উদ্ধৃতি দিয়ে ইন্টারফ্যাক্স সংবাদসংস্থা এ খবর জানিয়েছে. গত সপ্তাহের শেষে আমেরিকার চাপে পড়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ মার্কিন-যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন ব্যাঙ্ক এ্যাকাউন্টে গদ্দাফি সরকারের পড়ে থাকা ১৫০ কোটি ডলার বাজেয়াপ্ত করার অনুমতি দেয়.
আলজেরিয়া তার ভূখন্ডে মুয়াম্মার গদ্দাফির আত্মীয়-স্বজনদের আশ্রয় দেওয়ায় লিবিয়ার বিদ্রোহীরা যারপরোনাই খুব্ধ. ইতালীয় সংবাদপত্র রিপুবলিকা জানাচ্ছে, যে অন্তর্বর্তীকালীন জাতীয় পরিষদ তাদের স্বদেশে ফেরত পাঠানোর দাবী করছে. লিবিয়ার বিরোধী পক্ষ  আলজেরিয়ার শাসক কতৃপক্ষ গৃহীত এই পদক্ষেপকে লিবিয়ার বিরুদ্ধে আগ্রাসন বলে অভিহিত করেছেন.
লিবিয়ার চলতি ঘটনায় রুশী জনগণ উদ্বিগ্ন রুশী সমাজে লিবিয়ায় চলতি ঘটনা নিয়ে তীব্র বিতর্ক চলছে. শুধুমাত্র রাজনীতিবিদরাই নয়, বা শুধুমাত্র প্রতিরক্ষা মন্ত্রক নয়, লিবিয়ার সমস্যা নিয়ে সংবাদ প্রচার মাধ্যম এবং ইন্টারনেট সাইটগুলি আলোচনা করছে. ন্যাটো জোটের আকাশ থেকে বোমাবর্ষণ, লিবিয়ায় গৃহযুদ্ধ এবং গোটা রাষ্ট্রের পতন রাশিয়ায় সাংঘাতিকভাবে আলোচনা করা হচ্ছে.
ইরানের সরকার কয়েকবার লিবিয়ার বিরোধীপক্ষকে মানবতাবাদী সাহায্য পাঠিয়েছে, ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলি আকবর সালেহির উদ্ধৃতি দিয়ে রবিবার এ সম্বন্ধে জানিয়েছে বৃটেনের “ডেইলি টেলিগ্রাফ” পত্রিকার ওয়েব-সাইট.
লিবিয়ার টোর্বুক বন্দরে তেলের টার্মিনালের কাজ পুনরারম্ভ হবে সেপ্টেম্বরের শেষে. এ সম্বন্ধে “রয়টার” সংবাদ সংস্থাকে জানিয়েছেন বিদ্রোহীদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত “আগোকো” তৈল কোম্পানির প্রতিনিধি. রবিবার মুয়ম্মর গদ্দাফির শাসনের বিরোধীরা রাস-এল-আনুফ শহরে লিবিয়ার বৃহত্তম তৈল পরিশোধন কারখানার কাজ শিগগিরই পুনরারম্ভ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে.
লিবিয়ার রাজধানী বিদ্রোহীদের হাতে সমর্পণ করা হয়েছে তার বাইরের প্রতিরক্ষার নেতৃত্ব করা মোহাম্মেদ এশকালের সাথে গোপন সমঝোতার ভিত্তিতে, জানিয়েছে বৃটিশ সাপ্তাহিকী “সান্ডে টেলিগ্রাফ”. মুয়ম্মর গদ্দাফির ঘনিষ্ঠ ব্যক্তি হিসেবে তিনি অধিনায়কত্ব করেন সেই সৈনিক ব্রিগেডের, যার উপর ভার ছিল পশ্চিম দিক থেকে ত্রিপোলি রক্ষার.
আরব লীগ লিবিয়ার বিদ্রোহী সংগঠন ন্যাশানাল ট্রানসিশনাল কাউন্সিলকে(এনটিসি) লিবিয়ার বৈধ সরকার হিসেবে গণ্য করেছে।তবে আফ্রিকান ইউনিয়ন এখনই  
লিবিয়ার অস্থায়ী জাতীয় পরিষদ ত্রিপোলি শহরে উঠে এসেছে. বিরোধীদের প্রতিনিধিরা ঘোষণা করেছে যে, আজ থেকে সমস্ত নেতৃত্ব সরকারী ভাবে স্বীকৃত রাজধানী থেকেই করা হবে, যা বিরোধীদের সামরিক নেতৃত্বের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ন্যাটো জোটের পক্ষ থেকে সরাসরি সহায়তা না পেলে দখল নেওয়া সম্ভব হত না.
মুয়ম্মর গদ্দাফির বিরোধীরা ত্রিপোলির গোটা ভূভাগ এখনও নিয়ন্ত্রণে আনতে পারে নি. লিবিয়ার রাজধানীতে অ্যাক্রেডিটেশন পাওয়া সংবাদদাতাদের তথ্য অনুযায়ী, বিদ্রোহীরা, নিঃসন্দেহে, প্রায় পুরো শহর নিয়ন্ত্রণ করছে. তবে কিছু কিছু জায়গায় কর্নেল গদ্দাফির যোদ্ধারা প্রতিরোধ চালিয়ে যাচ্ছে. শুক্রবার সবচেয়ে বিপজ্জনক পরিস্থিতি গড়ে ওঠে আবু-সালিম পাড়ায়. সেখানে লিবিয়ার নেতার সশস্ত্র পক্ষসমর্থকরা আগের মতোই নির্বিঘ্নে রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছে.
লিবিয়ার বিদ্রোহীদের প্রধান নেতৃস্থানীয় সংস্থা অন্তর্বর্তী জাতীয় পরিষদ সরকারীভাবে বেনগাজি থেকে ত্রিপোলিতে চলে এসেছে. এ সম্বন্ধে বলেছেন অন্তর্বর্তী জাতীয় পরিষদের অর্থ ও অর্থনীতি সংক্রান্ত সচিব আলি তারখুনি. আগে বিদ্রোহীদের প্রতিনিধি আহমেদ জিব্রিল নিশ্চয়োক্তি করেন যে, গোড়ায় ত্রিপোলিতে বিরোধী পক্ষের পরিষদে তার সর্বোচ্চ নেতৃবৃন্দের  প্রতিনিধিত্ব থাকবে না.
লিবিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দেল আতিআল-ওবেইদি বলেছেন যে, মুয়ম্মর গদ্দাফির পরাজয়ে দেশে গৃহযুদ্ধ শেষ হয়েছে. তিনি গদ্দাফির পক্ষসমর্থকদের অস্ত্র সংবরণের আহ্বান জানান. এ সম্বন্ধে বুধবার তিনি বলেন ত্রিপোলিতে নিজের বাড়ি থেকে টেলিফোনে বৃটিশ টেলিভিশনের চতুর্থ চ্যানেলকে প্রদত্ত এক ইন্টারভিউতে. গদ্দাফি আল-ওবেইদিকে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পদে নিযুক্ত করেন মার্চ মাসে, আগের মন্ত্রী মুসা কুসার গ্রেট-বৃটেনে পালানোর পরে.
মার্কিনী রাষ্ট্রদূত রবার্ট ফোর্ডের দ্বারা সিরিয়ার ভূভাগে চলাফেরার নিয়ম লঙ্ঘন উপলক্ষ্যে ডামাস্কাস ওয়াশিংটনের কাছে প্রতিবাদ জানিয়েছে. এ সম্বন্ধে জানিয়েছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র বিভাগের প্রেস সার্ভিসের নেত্রী ভিক্তোরিয়া নুল্যান্ড. এর একদিন আগে ফোর্ড প্রতিবাদ আন্দোলনের অংশগ্রহণকারীদের সাথে সংহতির প্রতীক হিসেবে সিরিয়ার দক্ষিণাঞ্চলের জাসেম শহর সফর করেন এবং এ সম্পর্কে সিরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে জানান সফরের পরে.
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের বিবেচনার জন্য এক খসড়া সিদ্ধান্ত পেশ করেছে, যা অনুযায়ী মুয়ম্মর গদ্দাফির সম্পত্তির একাংশ তত্পর হবে. অনুমান করা হচ্ছে যে, এ থেকে দেড়শো কোটি ডলার দেওয়া হবে লিবিয়ার বিদ্রোহীদের. অর্থ ব্যবহৃত হবে মানবতাবাদী উদ্দেশ্যে, অস্ত্র কেনার জন্য নয়, জোর দিয়ে বলা হয়েছে খসড়া সিদ্ধান্তে.
লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলির দক্ষিণে কর্নেল মুয়াম্মার গদ্দাফির বাসভবন   বিদ্রোহীরা লুঠ করেছে. বৃটেনের টেলি-চ্যানেল “স্কাই নিউজ” জানিয়েছে যে, অপহৃত হয়েছে গদ্দাফির ব্যক্তিগত জিনিসপত্র এবং অস্ত্র. বিদ্রোহীরা মঙ্গলবার রাতে ১০টি মোটরগাড়িতে এসে বাব-আল-আজিজিয়ায় গদ্দাফির বাসভবন দখল করে. টেলি-চ্যানেল জানিয়েছে যে, তারা, মনে হয়, অনুমান করতে পারে নি যে, এত তাড়াতাড়ি এ পুরো ভবন-সমাহার নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হবে.
আগের
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
আগষ্ট 2011
ঘটনার সূচী
আগষ্ট 2011
4
6
7
14
18
28