×
South Asian Languages:
লিবিয়া ও আরব বিশ্ব, আগষ্ট 2013

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রকেট লক্ষ্য করায় বিশ্বের খনিজ তেলের বাজার খুবই স্পর্শকাতর ভাবে প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে. শুধু সিরিয়াতে বোমা পড়ার ভয়েই গত চার মাসের মধ্যে তেলের দামের বিষয়ে সবচেয়ে বেশী হয়েছে. খনিজ তেল দু’দিনে শতকরা পাঁচ শতাংশ বেড়ে ব্যারেল পিছু ১১৭ ডলার হয়েছে. এটা বিশ্বের বাজারকে দেওয়া খুবই শক্তিশালী সাবধান বার্তা – আগামী দিনগুলোতে খনিজ তেলের দামে খুবই দ্রুত ওঠানামা আসতে পারে.

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিজেদের জোট সঙ্গী হারাচ্ছে. ওয়াশিংটনের মুখ্য সামরিক সহচর – লন্ডন – সিরিয়ার বিরুদ্ধে সামরিক অপারেশনের সহযোগিতায় অস্বীকার করেছে. এর পরেই আরও এক গুচ্ছ ন্যাটোর দেশ বাশার আসাদের প্রশাসনের উপরে সামরিক চিত্রনাট্য অনুযায়ী কাজ করার বিষয়ে ধারণাকে বাতিল করেছে. ওয়াশিংটন বর্তমানে অন্য সহযোগী খুঁজছে, কিন্তু ঘোষণা করেছে যে, নিজেরাই একলা আঘাত হানতে পারে.

আধুনিক যুগে সবচেয়ে জনপ্রিয় হচ্ছে তাই, যা পুরনো জিনিষের চর্বিতচর্বন, নতুন কিছু করার আর তা নিয়ে চিন্তা করার সময় নেই, তাই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো জোটের সদস্য দেশগুলোর নীতি সিরিয়া নিয়ে হতে চলেছে পুরো ইরাক ও লিবিয়াতে পশ্চিমের দেশগুলোর কাজ কারবারের মিশ্রণ, অন্তত “রেডিও রাশিয়ার” বিশেষজ্ঞরা তাই মনে করেছেন.

ন্যাটো জোটের সদস্য দেশগুলোর রাষ্ট্রদূতদের ব্রাসেলস শহরে এক জরুরী অধিবেশনে ডেকে পাঠানো হয়েছে. আলোচ্য তালিকায় রয়েছে – সিরিয়া. এর আগে গতকাল সন্ধ্যায় মার্কিন পররাষ্ট্র সচিব রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে এক টেলিফোন আলাপের সময়ে সিরিয়াতে ২১শে আগষ্ট দামাস্কাস শহরের উপকণ্ঠে সম্ভাব্য রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের জন্য দোষ চাপিয়ে দিয়েছেন সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি বাশার আসাদের উপরেই. মস্কো এর বিপক্ষে যুক্তি দিয়েছে. জানাই রয়েছে যে, রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করে আক্রমণ যে সিরিয়ার সরকারি ফৌজ করেছে, তার কোন রকমেরই প্রমাণ নেই. কিন্তু পশ্চিম খুব একটা বাস্তব বিষয় নিয়ে আগ্রহী নয়, রয়টার সংস্থার তথ্য অনুযায়ী যে কোন ক্ষেত্রেই এই আঘাত হানা হতে পারে এই বৃহস্পতিবারেই.

রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিদের সিরিয়া নিয়ে গাগ শহরের ২৮শে আগষ্টের সাক্ষাত্কারকে বাতিল করা হয়েছে. মার্কিন গসডেপের সংবাদে বলা হয়েছে যে, প্রথমে আমেরিকার পক্ষ থেকে ঠিক করা হবে নিজেদের তরফ থেকে দামাস্কাসের উপকণ্ঠে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের প্রতিক্রিয়া কি. এই ঘটনার জন্য দায়িত্ব রাষ্ট্রসঙ্ঘের পক্ষ থেকে তদন্তের অপেক্ষা না করেই সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি বাশার আসাদের উপরে দেওয়া হয়েছে. অন্যভাবে বলতে হলে, যদি পশ্চিম থেকে সিরিয়াতে সামরিক অপারেশন শুরু করা হয়, তবে শান্তি প্রক্রিয়া নিয়ে কোন রকমের পরামর্শ করাটাই বাড়তি হয়ে যাবে.

রাশিয়া মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে দামাস্কাসের উপরে শক্তি প্রয়োগ করে চাপ সৃষ্টি করার বিষয়ে বিরত হতে আহ্বান করেছে. মার্কিন পররাষ্ট্র সচিব জন কেরির সঙ্গে এক টেলিফোন আলাপের সময়ে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রী সের্গেই লাভরভ মনে করিয়ে দিয়েছেন যে, সম্ভাব্য নতুন সামরিক অপারেশনের খুবই বিপজ্জনক পরিণামের সম্বন্ধে, যা সমগ্র নিকটপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকার উপরে পড়তে পারে ও যার উদাহরণ হয়েছে ইরাক ও লিবিয়া.

রাষ্ট্রসঙ্ঘের মহাসচিব বান কী মুন ঘোষণা করেছেন যে, তিনি ঠিক করেছেন সিরিয়াতে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরস্ত্রীকরণ সংক্রান্ত প্রশ্নের হাই কমিশনার – অ্যাঞ্জেলা কেইনকে সিরিয়া পাঠাবেন বলে. শ্রীমতী কেইন সেখানে দামাস্কাস শহরের উপকণ্ঠে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের খবর নিয়ে পরিস্থিতি স্পষ্ট করে বুঝে নেবেন. বান কী মুন সিরিয়ার প্রশাসনকে তাদের দেশে থাকা রাষ্ট্রসঙ্ঘের বিশেষজ্ঞ দলের সঙ্গে সহায়তা করতে আহ্বান করেছেন, যাতে তারা দামাস্কাসের পূর্ব শহরতলির ঘটনা নিয়ে দ্রুত তদন্ত করতে পারেন.

রাশিয়া ঘোষণা করেছে যে, তাদের কাছে থাকা তথ্য অনুযায়ী দামাস্কাসের একুশে আগষ্ট উপকণ্ঠে ব্যবহার করা রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেছে সেই সিরিয়ার বিরোধী পক্ষই, তারা বাশার আসাদের প্রশাসনের কেউ নয়. সরকারি ফৌজের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা অপরীক্ষিত তথ্যের ভিত্তিতেই করা হয়েছে. আর আঞ্চলিক ও পশ্চিমের সংবাদ মাধ্যমের আগ্রাসী প্রচার শুধু আবার করেই প্রমাণ করে দিচ্ছে যে, এখানে আগে থেকে পরিকল্পিত প্ররোচনার কথাই হচ্ছে. এই বিষয়ে রাশিয়ার পররাষ্ট্র দপ্তরের তরফ থেকে প্রকাশিত এক ঘোষণাতে বলা হয়েছে. এই ধরনের প্ররোচনা আজ প্রথমবার দেওয়া হচ্ছে না.

সিরিয়ার প্রশাসন আজ দামাস্কাসের উপকণ্ঠে রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহার নিয়ে খবরকে পুরোপুরি মিথ্যা বলে নাম দিয়েছে. সিরিয়ার রাজধানীর উপকণ্ঠের এলাকা নাকি রাসায়নিক অস্ত্রের আক্রমণের মুখে পড়েছে, এই রকম খবর দিয়েছে দুবাইয়ের টেলিভিশন চ্যানেল “আল-আরাবিয়া”. তাদের বক্তব্য অনুযায়ী দামাস্কাসের উপকণ্ঠে - গুটা মরূদ্যান এলাকায় ২৮০জন নিহত হয়েছেন. “আল-আরাবিয়া” নিজেদের টুইটারের মাইক্রো ব্লগে নিহতের সংখ্যা বাড়িয়ে দিয়ে লিখেছে প্রায় পাঁচশো বলেই. টেলিভিশন চ্যানেলের খবর অনুযায়ী এই আক্রমণ করেছে সরকারি ফৌজ আর ব্যবহার করেছে “ভূমি থেকে ভূমিতে” ছোঁড়ার রকেট.

ইজরায়েল সরকার স্থির করেছে ২৬জন প্যালেস্টাইনের নাগরিককে জেল থেকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য. তাদের ছেড়ে দেওয়া সিদ্ধান্ত প্যালেস্টাইনের নেতৃত্বের সঙ্গে আলোচনায় বসার আগে নেওয়া হয়েছে. কিন্তু একই সঙ্গে ঘোষণা করা হয়েছে যে, জর্ডন নদীর পশ্চিম তীরে বসতি নির্মাণের কাজ অব্যাহত থাকবে.

সিরিয়াতে বাশার আসাদের প্রশাসনের পতন হলে, তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার প্রশ্নেই গুরুতর সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে. এই ধরনের ঘোষণা করেছেন সিআইএ সংস্থার প্রথম ডেপুটি ডিরেক্টর মাইকেল মরেল্ল. তাঁর কথামতো, সিরিয়াতে “আল- কায়দার” বিজয় হলে, তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য বাড়তি সমস্যার সৃষ্টি করবে.

 সিরিয়ার বিদ্রোহীদের সহায়তা করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিজেরাই নিজেদের জন্য গুরুতর সমস্যার সৃষ্টি করছে. অস্ত্র, যা আজ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ার জঙ্গীদের হাতে তুলে দিতে যাচ্ছে, তা আগে হোক বা পরেই হোক আমেরিকার লোকদের বিরুদ্ধেই ব্যবহৃত হবে. ফলে বিগত সময়ের মতই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে, তাদের সঙ্গেই যুদ্ধ করতে হবে, যাদের তারা সামান্য কিছুদিন আগেই সমর্থন করেছিল. এই ধরনের সাবধান বাণীই ওয়াশিংটনে বেশী করেই শুনতে পাওয়া যাচ্ছে.

সিরিয়া বিরোধী পক্ষের তরফ থেকে জঙ্গীদের বন্দীদের গণহত্যা করা সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে তাদের তরফ থেকে প্রধান কৌশলগত পদ্ধতিতে পরিণত হয়েছে. বিরোধী ও বৈপ্লবিক শক্তির জাতীয় জোটের নেতৃত্বের সদস্য আনিস আইরুট স্বীকার করেছে যে, তারা বর্তমানের প্রশাসনের বিরুদ্ধে নিরীহ জনগনের গণহত্যা করে নিজেদের লক্ষ্য পূরণ অর্থাত্ ভয়ের ভারসাম্য রক্ষা করতে চাইছে. যদিও বাশার আসাদের প্রশাসনকে কেউই কখনও বন্দী করা নিয়ে অভিযোগ করে নি.

ইজরায়েল ও প্যালেস্টাইনের মধ্যে শেষ সমঝোতার দলিলের বয়ান তৈরী করার জন্য নয় মাস প্রস্তুতির সময়ের প্রয়োজন পড়বে. এই বিষয়ে ওয়াশিংটনে আলোচনা পর্ব শুরু হয়েছে বলে ঘোষণা করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্র সচিব জন কেরি. এই সময়ের মধ্যে, কেরির চিন্তা অনুযায়ী আলোচনার সমস্ত অংশগ্রহণকারীরা আমেরিকার মধ্যস্থতার মাধ্যমে সমস্ত বিতর্কিত বিষয়েই সমাধান করবেন, তার মধ্যে জেরুজালেমের প্রশ্ন, জর্ডন নদীর পশ্চিম তীরে ইহুদী বসতি নির্মাণ ও ভবিষ্যতের সীমান্তের প্রশ্নও থাকবে.

1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
আগষ্ট 2013
ঘটনার সূচী
আগষ্ট 2013
2
3
4
5
7
8
10
11
14
15
16
17
18
19
20
24
25
31