×
South Asian Languages:
গণ অভ্যুত্থান, 2013

বিরোধী পক্ষের তরফ থেকে ব্যাঙ্ককে থাই-জাপান মৈত্রী ষ্টেডিয়াম দখল করার আরও একটা প্রচেষ্টা বন্ধ করতে গিয়ে এই দেশের পুলিশ বাহিনী বাধ্য হয়ে টিয়ার গ্যাস ও রবারের গুলি ব্যবহার করেছে. ষ্টেডিয়ামে দেশের নির্বাচন কমিশনের তরফ থেকে দেশের পার্লামেন্ট নির্বাচনে যাঁরা অংশ নিতে চান, তাঁদের তরফ থেকে দলিল পত্র গ্রহণ করছে.

২০১০ সালের ২৪শে ডিসেম্বর টিউনিশিয়ার সিদি-বুজিদে প্রথম বেন আলির প্রশাসনের বিরুদ্ধে গণ অভ্যুত্থান ঘটেছিল, যা “আরব বসন্তের” শুরু করেছিল. হাতে গোনা কয়েক সপ্তাহের মধ্যে উত্তর আফ্রিকায় দুটি প্রশাসনকে জনতার ঝড় ধুয়ে দিয়েছিল, যে দুটিই বহুদিন ধরে পশ্চিমের খুবই ভরসার জোটসঙ্গী হয়ে ছিল.

তারপরে ঘটনাচক্র দিক পরিবর্তন করেছে, আর ছড়িয়ে পড়েছে সেই সমস্ত দেশের উপরে, যাদের বেন আলির টিউনিশিয়া বা হোসনি মুবারকের ইজিপ্টের সঙ্গে খুব কমই অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক দিক থেকে মিল ছিল. “আরব বসন্ত” তারপরে ১৮০ ডিগ্রী দিক পরিবর্তন করেছে.

প্রশাসন বিরোধী মিছিল ব্যাঙ্ককের সমস্ত রাস্তা গাড়ী চলাচলের জন্য বন্ধ করে দেবে আর একদিন শুধু পায়ে হেঁটেই যাওয়া যাবে. “গণতান্ত্রিক সংস্কারের জন্য জনতা সভা” নামের স্বঘোষিত দলের সাধারন সম্পাদক ও নেতা সুথেপ থীয়াকসুবান আজ অনেকদিন ধরেই থাইল্যান্ডে সরকার বিরোধী সমাবেশ ও মিছিল চালিয়ে যাচ্ছেন, তিনি বলেছেন যে, তাঁর দলের “তিরিশ লক্ষ কর্মী পাঁচটি বড় ও দশটি ছোট স্কোয়ারে সমাবেশ করতে আসবে ও মিছিল করে শহরের সমস্ত রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ করে দেবে”, তিনি উল্লেখ করেছেন যে, “আগে ভাবা হয়েছিল যে, এই সমস্ত মিটিং ও মিছিল রবিবারে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ছটার মধ্যেই শেষ হবে, তবে এখন মনে হচ্ছে যে, তা চলবে সোমবার সকাল পর্যন্ত”.

ইউক্রেনের রাষ্ট্রপতি ভিক্টর ইয়ানুকোভিচ বলেছেন যে, তিনি সেই সমস্ত সরকারি কর্মচারীদের বরখাস্ত করবেন, যারা ইউরোপীয় সঙ্ঘের সঙ্গে যোগদানের বিষয়ে ইউক্রেনের হয়ে দলিল তৈরী করেছে. এই দলিল তৈরী করা হয়েছে জাতীয় স্বার্থের ক্ষতি করে, তিনি এই ঘোষণা করেছেন এক গোল টেবিল বৈঠকে, যা সারা দেশের প্রতিনিধিত্বের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হয়েছে. এই প্রসঙ্গে ইয়ানুকোভিচ আশ্বাস দিয়েছেন যে, ইউক্রেন ইউরোপীয় সমাকলনের বিষয় না করছে না ও তা করতেও চায় না.

থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ঈঙ্গলাক চিনাভাত দেশে প্রশাসনের পরিবর্তন নিয়ে জনমত গ্রহণের ধারণার কথা তাঁর বক্তৃতায় উল্লেখ করেছেন. থাইল্যান্ডের টেলিভিশনে তিনি বলেছেন যে, তিনি পদত্যাগ করতেই পারেন, যদি এটা থাইল্যান্ডের বেশীরভাগ লোক চান. এই দেশে প্রশাসন বিরোধী কাজ কারবার দু’সপ্তাহের বেশী সময় ধরে চলছে. দেশের মিছিলের লোকরা, যা ঈঙ্গলাক চিনাভাত নেতৃত্ব দিচ্ছেন সেই প্রশাসনের বিরুদ্ধে, আন্দোলন করছে, কারণ তিনি প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী তাক্সিম চিনাভাতের ভগ্নী, যাঁকে ২০০৬ সালে দেশে সামরিক অভ্যুত্থানের পরে দেশ ছাড়তে হয়েছিল.

থাইল্যান্ডের সরকার প্রধান বিরোধী নেতা সুতেপ তাউগসুবানের সমর্থকদের ও ব্লু-স্কাই টেলিভিশন চ্যানেলের কর্তা ও কর্মীদের গ্রেপ্তার করতে চায়, কারণ তারা প্রশাসন বিরোধী গোলমালকে সমর্থন করেছে আর ব্যাঙ্কক শহরের মেয়র দপ্তরের কর্মীরাও ছাড়া পাবেন না.

থাইল্যান্ডের প্রশাসন ব্যাঙ্কক শহরের সর্বত্র কার্ফ্যু জারী করেছে, তার সঙ্গে নিকটবর্তী দুটি প্রদেশে ও আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরেও সতর্কতা নেওয়া হয়েছে. এই বিষয়ে খবর দিয়েছে দেশের জাতীয় রেডিও.

সিরিয়ার রাসায়নিক অস্ত্র ভূমিতে নষ্ট করা নিয়ে সহমতে আসা সম্ভব হচ্ছে না. রাসায়নিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ সংস্থার বিশেষজ্ঞরা এবারে তা সমুদ্রে নষ্ট করার সম্ভাবনা খতিয়ে দেখছেন. নিরপেক্ষ জলসীমা কতখানি বিষাক্ত দ্রব্য নষ্ট করার জন্য উপযুক্ত জায়গা, তা নিয়ে আলোচনা করেছেন “রেডিও রাশিয়ার” বিশেষজ্ঞরা.

ইরাকের পার্লামেন্ট এক চিঠি তৈরী করছে নিজেদের দেশের পররাষ্ট্র দপ্তরের নামে, যাতে এই দপ্তরকে আহ্বান করা হয়েছে রাষ্ট্রসঙ্ঘের কাছে সৌদী আরবের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা জারী করার দাবী জানানোর. এই বিষয়ে ইরাকের পার্লামেন্টের ক্ষমতাসীন জোটের প্রতিনিধি কাজীম আশ-শামরি জানিয়েছেন.

মঙ্গলবারে ইজিপ্টের আদালত নির্দেশ দিয়েছে এর আগে সরকারে ক্ষমতায় থাকা “মুসলমান ভাইদের” দলের সমস্ত আর্থিক ব্যবস্থার উপরে নিষেধাজ্ঞা জারী করার ও তারই সঙ্গে এই গোষ্ঠীর নেতাদের নামে থাকা সম্পদও. এই খবর দিয়েছে ফ্রান্স প্রেস সংস্থা. ইজিপ্টের কেন্দ্রীয় অভিশংসক দপ্তর থেকে সেই জুলাই মাসেই দেশের ১৪জন ঐস্লামিক আন্দোলনের নেতার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল, যাদের মধ্যে “মুসলমান ভাইদের” দলের সর্ব্বোচ্চ নেতা মুহম্মদ বাদিয়ার অ্যাকাউন্টও ছিল.

২১শে আগষ্ট দামাস্কাস উপকণ্ঠে স্নায়ু-বৈকল্যের গ্যাস জারিন ব্যবহারের প্রমাণ সমর্থিত হয়েছে রাষ্ট্রসঙ্ঘের বিশেষজ্ঞদের রিপোর্টে. নীতিগত ভাবে এটা সেই রিপোর্ট বের হওয়ার আগেও স্পষ্টই জানা ছিল. তার ওপরে আবার এই রিপোর্টে সেই প্রশ্নের কোন উত্তর নেই যে, ঠিক কে এই রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেছে. কিন্তু তা স্বত্ত্বেও এখানে মনে করিয়ে দেওয়া হয়েছে সেই সমস্ত বাস্তব ঘটনা, যা এর জন্য সশস্ত্র বিরোধী পক্ষকেই সন্দেহ করতে বাধ্য করে. তবুও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, গ্রেট ব্রিটেন ও ফ্রান্স ইতিমধ্যেই নিজেদের পছন্দসই ভাবে এই রিপোর্টকে ব্যাখ্যা করে বসেছে, তারা ঘোষণা করেছে যে, এই তথ্য নাকি সিরিয়ার সামরিক বাহিনী যে রাসায়নিক অস্ত্র প্রয়োগ করেছে, তাই প্রমাণ করে.

ইজিপ্টের খবর এনেছে ফ্রান্স প্রেস সংস্থা উত্স হিসাবে উল্লেখ করেছে সেই দেশের রাষ্ট্রপতির প্রশাসনকে. রাষ্ট্রপতি আদলি মনসুর ঠিক করেছেন দেশে জরুরী অবস্থার মেয়াদ আরও দুই মাস বাড়িয়ে দেওয়ার – এই কথা বলা হয়েছে অন্তর্বর্তী কালীণ রাষ্ট্রপতির সরকারি মুখপাত্রের ঘোষণাতে.

সিরিয়াতে আমেরিকার তরফ থেকে আঘাত হানা হলে ইরান এই সব আগ্রাসকদের আর তাদের এই এলাকার সহচরদের খুবই কঠোর প্রত্যুত্তর দেবে, কারণ তারা বাশার আসাদের প্রশাসনের সবচেয়ে কাছের সহকর্মী দেশ. তেহরান নিজেদের রকেট বাহিনী তৈরী করছে নিজেদের তৈরী থাকা ও বিষয়ের প্রতি খুব গুরুত্ব দেওয়াকে বুঝিয়ে দেওয়ার জন্যেই. আসাদকে প্রতিরক্ষা করার জন্য এই দেশে বর্তমানে স্বেচ্ছায় যুদ্ধে যোগ দেওয়ার জন্য লোকদের নিয়ে বাহিনী তৈরী করা হচ্ছে. ইরানের স্বপক্ষে থাকা “হেজবোল্লা” দল ঘোষণা করেছে যে, তারা পশ্চিমের দেশগুলোর অন্যদেশের রাষ্ট্রদূতাবাস, কনস্যুলেট ও অন্যান্য ভবনগুলোর উপরে আঘাত করতে পারে.

আরব লীগের প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক আমর মুসা রবিবারে ঠিক হয়েছে যে, ইজিপ্টের পঞ্চাশ জনের পরিষদের সভাপতিত্ব করবেন, যেটি দেশের সংবিধানের নতুন বয়ান তৈরী করবে. তেসরা জুলাই সামরিক বাহিনীর পক্ষ থেকে প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি মুহাম্মেদ মুর্সিকে সরিয়ে দেওয়ার পরে এর আগের সংবিধানকে স্থগিত রাখা হয়েছে. এই পঞ্চাশ জনের দলে দেশের প্রধান রাজনৈতিক দলের লোকরা রয়েছেন, তাছাড়া নাগরিক সমাজ, ধর্ম নিরপেক্ষ বিরোধী পক্ষ ও ধর্মীয় সমাজের লোকরা ছাড়া, ট্রেড ইউনিয়ন, ছাত্র সমাজ ও নারী আন্দোলনের প্রতিনিধিদেরও রাখা হয়েছে.

সিরিয়ার একজন বিরোধী ওয়াশিংটনকে সাবধান করে দিয়েছে যে, আমেরিকার সেনা বাহিনীকে এই এলাকায় শহীদ ব্যাটালিয়ন দিয়ে আক্রমণ করা হবে, যা সিরিয়াতে বিরোধীরাই তৈরী করবে, যদি ওবামা সিরিয়াতে আক্রমণ করা নিয়ে সাহস করে.

সিরিয়ার বিরোধী দল “আল-শাবাবের” সাধারণ সম্পাদক মাহির মিরখিজ “ফার্স সংবাদ সংস্থাকে” দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে ৩১শে আগষ্ট বলেছেন যে, “স্বদেশ - প্রশাসনের বিরোধীতা করার চেয়ে বেশী গুরুত্বপূর্ণ”.

রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন রুশ পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষ বা জাতীয় সভার সিরিয়া নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেনেট সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করার প্রস্তাবকে সমর্থন করেছেন. তাঁর মস্কো শহরের বাইরের বাসভবনে আজ তিনি জাতীয় সভার স্পীকার ভালেন্তিনা মাতভিয়েঙ্কো ও লোকসভার স্পীকার সের্গেই নারিশকিনের সঙ্গে এক সাক্ষাত্কার করেছেন. বিষয় ছিল – সিরিয়াকে ঘিরে তীক্ষ্ণ হয়ে ওঠা পরিস্থিতি.

পশ্চিম সিরিয়ার প্রশাসনকে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের জন্য দোষ দিচ্ছে. আবার দোষ দিচ্ছে স্পষ্টই কপটতা করে – কারণ খুব সম্ভবতঃ, এই অস্ত্রব্যবহার করেছে জঙ্গীরাই. কিন্তু যে কোন ক্ষেত্রেই এটা বাশার আসাদের প্রশাসনের প্রতি অভিযোগের স্রেফ মোড়ক. পশ্চিমের তরফ থেকে সিরিয়ার প্রতি প্রথম অভিযোগ – সেই বিষয়ে যে, সেখানে নাকি স্বৈরতান্ত্রিক প্রশাসন আর গণতন্ত্র নেই.

আধুনিক যুগে সবচেয়ে জনপ্রিয় হচ্ছে তাই, যা পুরনো জিনিষের চর্বিতচর্বন, নতুন কিছু করার আর তা নিয়ে চিন্তা করার সময় নেই, তাই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো জোটের সদস্য দেশগুলোর নীতি সিরিয়া নিয়ে হতে চলেছে পুরো ইরাক ও লিবিয়াতে পশ্চিমের দেশগুলোর কাজ কারবারের মিশ্রণ, অন্তত “রেডিও রাশিয়ার” বিশেষজ্ঞরা তাই মনে করেছেন.

ন্যাটো জোটের সদস্য দেশগুলোর রাষ্ট্রদূতদের ব্রাসেলস শহরে এক জরুরী অধিবেশনে ডেকে পাঠানো হয়েছে. আলোচ্য তালিকায় রয়েছে – সিরিয়া. এর আগে গতকাল সন্ধ্যায় মার্কিন পররাষ্ট্র সচিব রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে এক টেলিফোন আলাপের সময়ে সিরিয়াতে ২১শে আগষ্ট দামাস্কাস শহরের উপকণ্ঠে সম্ভাব্য রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের জন্য দোষ চাপিয়ে দিয়েছেন সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি বাশার আসাদের উপরেই. মস্কো এর বিপক্ষে যুক্তি দিয়েছে. জানাই রয়েছে যে, রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করে আক্রমণ যে সিরিয়ার সরকারি ফৌজ করেছে, তার কোন রকমেরই প্রমাণ নেই. কিন্তু পশ্চিম খুব একটা বাস্তব বিষয় নিয়ে আগ্রহী নয়, রয়টার সংস্থার তথ্য অনুযায়ী যে কোন ক্ষেত্রেই এই আঘাত হানা হতে পারে এই বৃহস্পতিবারেই.

রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিদের সিরিয়া নিয়ে গাগ শহরের ২৮শে আগষ্টের সাক্ষাত্কারকে বাতিল করা হয়েছে. মার্কিন গসডেপের সংবাদে বলা হয়েছে যে, প্রথমে আমেরিকার পক্ষ থেকে ঠিক করা হবে নিজেদের তরফ থেকে দামাস্কাসের উপকণ্ঠে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের প্রতিক্রিয়া কি. এই ঘটনার জন্য দায়িত্ব রাষ্ট্রসঙ্ঘের পক্ষ থেকে তদন্তের অপেক্ষা না করেই সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি বাশার আসাদের উপরে দেওয়া হয়েছে. অন্যভাবে বলতে হলে, যদি পশ্চিম থেকে সিরিয়াতে সামরিক অপারেশন শুরু করা হয়, তবে শান্তি প্রক্রিয়া নিয়ে কোন রকমের পরামর্শ করাটাই বাড়তি হয়ে যাবে.

আগের
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
জানুয়ারী 2013
ঘটনার সূচী
জানুয়ারী 2013
1
2
3
4
5
6
8
10
13
14
19
20
25
29