×
South Asian Languages:
ইন্টারনেট, 2012
বেনামে অন্যের নামে দুর্নাম দিয়ে যারা চিঠি লেখে তাদের ও যারা অন্যের স্বত্ত্ব চুরি করে তাদের ধরার জন্য রাশিয়ার স্বরাষ্ট্র দপ্তর থেকে একটি ব্যবস্থা তৈরী করার জন্য বায়না দেওয়া হয়েছে, যা কোন লেখার লেখককে ও এমনকি স্থির করতে যে, কি রকমের মানসিক পরিস্থিতিতে সে এই চিঠি লিখেছে, তা ধরতে সাহায্য করবে.
সেন্সরের ভয় দেখিয়ে ইন্টারনেটের উপরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়া ও চিনকে নিজেদের একচেটিয়া অধিকার খর্ব করতে দেয় নি. আন্তর্জাতিক বৈদ্যুতিন যোগাযোগ জোটের দুবাই শহরের সম্মেলনে বিশ্ব জোড়া ইন্টারনেট জালের উপরে এই জোট সদস্যদের অধিকারের প্রশ্নে চুক্তি করাই শেষ অবধি সম্ভব হয় নি.
সারা বিশ্ব জুড়েই ২০১৩ সালে সাইবার অ্যাটাকের সংখ্যা অনেক বেড়ে যাবে, প্রসঙ্গতঃ এটা হবে লক্ষ্য স্থির করেই করা অ্যাটাক ও সরকারি সব কাঠামোর থেকে পাওয়া বায়না থেকেই. এই ধরনের একটা সিদ্ধান্ত অ্যান্টি ভাইরাস তৈরী করা কোম্পানী কাস্পেরস্কি ল্যাবরেটরীর পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে. আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গুপ্তচর বিভাগ পূর্বাভাস দিয়েছে যে, বিশ্ব আগামী ২০ বছরে সাইবার ক্ষেত্রে বিশ্ব যুদ্ধের সম্মুখীণ হতে চলেছে.
ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যে সেখানের এক আলাদা করে উল্লেখ যোগ্য ও যার সম্বন্ধে নানা ধরনের মন্তব্য রয়েছে, সেই “শিব সেনা” দলের বালা সাহেব ঠাকরের মৃত্যুর পরে, আবারও অনেক প্রশ্ন উঠেছে বাক্ স্বাধীনতা ও সামাজিক দায়িত্বের মধ্যে তুল্যমূল্য ইত্যাদি বিষয়ে বিচার নিয়ে. এই প্রশ্ন গুলি শুধু ভারতকেই স্পর্শ করে না.
ওয়াশিংটন পোস্ট সংবাদপত্রের মতে ক্রেমলিন রাশিয়ার ইন্টারনেট খণ্ডের উপরে নিয়ন্ত্রণ কড়া করতে চাইছে. এই কথার সমর্থন খুঁজে পাওয়া গিয়েছে রুনেটে তথাকথিত সরকারি ভাবে উদ্ভব হওয়া কালো তালিকা সংক্রান্ত ব্যাপারে মন্তব্যের মধ্যে.
“বিশ্বকে সেলাম জানাও!” (“Say Salam to the World!”) প্রতিযোগিতার শেষে এই স্লোগানকেই সেরা মনে করেছেন বিশ্ব জোড়া মুসলিম সামাজিক সাইট “সালাম বিশ্বের” (“Salam World”) রুশ ও স্বাধীন রাষ্ট্র সমূহের এলাকার কর্তৃত্ব. বিজয়ী স্লোগানের লেখক – আবদরাসিল আবেলদিনভ কাজাখস্থানের লোক. রাশিয়ার কাজানের লোক ইলশাত সায়েতভ পেয়েছেন দ্বিতীয় স্থান.
২১শে ডিসেম্বর ২০১২ এক নিরাপদ অন লাইন প্ল্যাটফর্ম টাইলার চালু করার কথা জানিয়েছে অ্যানোনিমাস বলে পরিচিত হ্যাকার গোষ্ঠী, সেখানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সহ বিভিন্ন দেশের সরকার নিজেদের নাগরিকদের আড়ালে রেখে যেসব গুরুত্বপূর্ণ খবরের কারণ হয়, তা প্রকাশ করা যাবে. এই সাইট ভবিষ্যতে স্ক্যান্ডাল বিখ্যাত উইকিলিক্স সাইটের প্রতিদ্বন্দ্বী হবে, অথবা সেটার বদলেই জায়গা করে নেবে.
ব্যবহারিক জীবন থেকে বহু সংখ্যক ভাষা প্রায় বিলুপ্ত হয়ে যেতে বসেছে. সব দোষের মূলে – ইন্টারনেটের নীরব সমস্ত যন্ত্র গুলি, যারা সেই গুলি চিনে উঠতে সক্ষম হচ্ছে না.
দিমিত্রি মেদভেদেভ সোমবারে ফেসবুক কোম্পানীর প্রধান মার্ক শুকেরবের্গের সঙ্গে দেখা করেছেন. রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী (যিনি নিজেই ইন্টারনেটের একজন সক্রিয় ব্যবহারকারী) বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক সাইটের জনকের সঙ্গে ইন্টারনেটে বুদ্ধিস্বত্ত্ব সংক্রান্ত প্রশ্ন ও ফেসবুক সাইটের নতুন সব যৌগ গুলির বিষয়ে রাশিয়ার পেশাদার লোকদের নিয়েও কথা বলেছেন.
ইন্টারনেট উদ্ভব হওয়ার সঙ্গেই একটা বোধ হয়েছিল যে, চিঠি আর গ্রিটিংস কার্ড এবারে পড়ে রইল ইতিহাসের পাতাতেই. কিন্তু চিঠি পত্রের ধারা শেষ অবধি বিজয়ী হতে পরেছে. ঠিক সাত বছর আগে পর্তুগালের এক কম্পিউটার প্রোগ্রাম বিশেষজ্ঞ পাওলো মাগাল্যায়েশ postcrossing.com নামে একটা সাইট বানিয়ে ছিলেন, সেই সব লোকদের কথাই মাথায় রেখে, যাঁরা ঐতিহ্যগত ভাবেই হাতে লিখে কাগজের চিঠি পাঠাতে ও পেতে ভালবাসেন.
লাতিন আমেরিকার দেশ গুলি ইকোয়েডরকে গ্রেট ব্রিটেনের সঙ্গে জুলিয়ান আসাঞ্জ সংক্রান্ত বিরোধে সমর্থন করেছে. বিশেষজ্ঞরা মনে করেন যে, এই সমর্থন সার্বভৌমত্ব রক্ষার জন্য সম্মিলিত প্রয়াসের অংশ ও ব্রিটেনের বিচার ব্যবস্থার দুই ধরনের নীতির প্রতি সমালোচনার অংশ.
“গোপনীয় সব খবর ফাঁস করে দেওয়ায় বিশ্বের সেরা” জুলিয়ান আসাঞ্জ বিগত সপ্তাহে আবার এক কেলেঙ্কারির কেন্দ্রে উপনীত হয়েছেন. গ্রেট ব্রিটেনের সরকার হুমকি দিয়েছে জুলিয়ান আসাঞ্জকে গ্রেপ্তার করার, এমনকি যদি তার জন্য দেশের পুলিশ বাহিনীকে লন্ডনে ইকোয়েডরের দূতাবাসের এলাকায় জোর করে ঢুকতে হয় তা হলেও.
সাইবার অপরাধের বিষয়ে সামগ্রিক ভাবে শক্তি প্রয়োগ না করলে ইন্টারনেট হবে বিশ্ব জোড়া এক ভারসাম্য নষ্ট করে দেওয়ার মতো শক্তি. তাই ইউরোপীয় সঙ্ঘের পক্ষ থেকে সাইবার অপরাধ সংক্রান্ত কেন্দ্র সৃষ্টির ঘোষণা শুধু স্বাগতম জানানোই যেতে পারে বলে মনে করেছেন বিশেষজ্ঞরা. কিন্তু এই সমস্যা সমাধানের জন্য প্রয়োজন পড়বে সমস্ত দেশের সক্রিয় সহযোগ.
রাশিয়ার ইন্টারনেট গ্রাহকদের সংখ্যা ইউরোপের চেয়ে ব্যতিক্রমী ভাবে অঞ্চল গুলির কারণেই বেড়ে যেতে পারে. গত বছরে ইন্টারনেটে গ্রাহকদের সংখ্যা বেড়েছে শতকরা কুড়ি ভাগ, এই খবর দিয়েছে “ইয়ানডেক্স” কোম্পানী আর “সামাজিক মতামত” তহবিল থেকে হিসেব করে. প্রসঙ্গতঃ এই বিষয়ে উন্নতির ক্ষেত্রে রেকর্ড করেছে – গ্রামাঞ্চল: এখানে উন্নতি হয়েছে মোটের একের তৃতীয়াংশ.
ইন্টারনেটে ১২ ই মার্চ পালন করা হচ্ছে স্বাধীনতা দিবস, সাধারণত খুবই জোরালো ভাবে এই স্বাধীনতার সীমা পরিসীমা নিয়ে আলোচনা হয়ে থাকে. বৈদ্যুতিন বক্তব্যকে “যেমন খুশী” ব্যবহার করে মন্দ কাজ করার ঘটনা কিছু কম হয় নি, বলে বিশেষজ্ঞরা উল্লেখ করেছেন, কিন্তু এটা কোন কারণ হতে পারে না ইন্টারনেটে প্রবেশের অধিকারের মত সামাজিক ভাল ব্যাপার অস্বীকার করার.
    বলশয় থিয়েটারের কর্তৃপক্ষ ও শিল্পীরা ২০১২ সালের ১১ই মার্চ দিনটিকে তাঁদের জন্য ভাগ্য নির্ধারক বলে মনে করেছেন. এই দিনে দেশের প্রধান থিয়েটার ইন্টারনেটে রাশিয়ার লোকেদের জন্য নিজেদের ব্যালে দেখানো শুরু করছে. আগে এই থিয়েটারের ব্যালে সরাসরি দেখার সৌভাগ্য হয়েছিল শুধু বিদেশের গ্রাহকদেরই.     সরাসরি সম্প্রচারের ধারণা বহু দিন ধরেই করা হয়েছিল.
ইউরোপের লোকেরা বৃহত্ কর্পোরেশনের স্বার্থ রক্ষা করতে গিয়ে নিজেদের অধিকার ও স্বাধীনতা খর্ব হতে দেবে না. বিগত ছুটির দিন গুলিতে দুশোটি ইউরোপের শহরের লোকেরা ঠাণ্ডা তোয়াক্কা না করে রাস্তায় নেমেছিলেন, শহর গুলি গ্রেট ব্রিটেন, জার্মানী, হল্যান্ড, পোল্যান্ড, বালগেরিয়া, অস্ট্রিয়া, ফিনল্যান্ড, ফ্রান্স, স্লোভাকিয়া, এস্তোনিয়া, লাতভিয়া ও লিথুয়ানিয়া দেশের.
মঙ্গলবার ৭ই ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক ইন্টারনেট নিরাপত্তা দিবস পালিত হয়েছে. পালন করেছে বিশ্ব জোড়া ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা, এই দিবস পালন করা হয়েছে ইউরোপীয় ইন্টারনেট ব্যবস্থা ইনসেফ সংস্থার তরফ থেকে. এবারে সেটা হয়েছে খুবই জোরালো সেন্সর, কপিরাইট প্রসঙ্গ ও ইন্টারনেটে বাক্ স্বাধীনতা নিয়ে. প্রসঙ্গতঃ এই বিতর্ক হচ্ছে বিভিন্ন সর্বোচ্চ মহলেও.
    ভারতে সরকারের কয়েকটি বড় সামাজিক সাইট ও ইন্টারনেট কোম্পানীকে আদালতে টেনে আনার ইচ্ছার বিরুদ্ধে বিতর্কের শেষ হচ্ছে না. এর মধ্যে গোগোল ফেসবুক রয়েছে, আর সরকার চাইছে ব্লগ সেন্সর করতে, যা প্রায়ই খুব অসভ্য ও অপমানজনক লেখায় ভর্তি হচ্ছে. এই মামলা শুরু হতে চলেছে ১৩ই মার্চ আদালতে.
গণ হারে গণ্ডগোল ও মিটিং বিগত সময়ে আয়োজিত হচ্ছে ইন্টারনেটের মাধ্যমে, তাই বিভিন্ন দেশের পুলিশ বাহিনী নিজেদের কাজে ওস্তাদি বাড়াচ্ছে সামাজিক সাইটের মাধ্যমে. গ্রেট ব্রিটেনে এর মধ্যেই ২৫০০ পুলিশ ফেসবুক ও টুইটার সাইটে "ক্ষোভ নিয়ন্ত্রণের" বিষয়ে নানা রকমের কৌশল নিয়ে পড়াশোনা করছেন.
আগের
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
জানুয়ারী 2012
ঘটনার সূচী
জানুয়ারী 2012
1
2
3
4
5
6
7
8
9
10
11
12
13
14
15
16
18
19
20
22
23
24
25
27
28
30
31