×
South Asian Languages:
আগ্রহের বিষয়, এপ্রিল 2012
    মস্কো শহরের রাস্তায় এখনই বহু লোককে কমলা কালো রঙের ফিতা নিয়ে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে. আর এর অর্থ হল, সামাজিক প্রচারাভিযান “সেন্ট জর্জ ব্যান্ড” আরও দ্রুত গতিতে করা হচ্ছে. ১৯৪৫ সালের মহান বিজয়ের এই প্রতীক বিশেষ করে জনপ্রিয় হয়েছে অল্প বয়সী যুবক দের মধ্যে. তাদের স্লোগান: “দাদুর বিজয় – আমার বিজয়!
    রাশিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক ভ্লাদিভস্তক শহরে এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অর্থনৈতিক সহযোগিতা সংস্থার শীর্ষ বৈঠক, সোচী শীত অলিম্পিক, কাজান শহরের ইউনিভার্সিয়াডের জন্য নিরাপত্তা রক্ষার কাজে উদ্ভাবনী প্রযুক্তি নির্মিত “বুদ্ধিমান” যন্ত্র কেনার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে. এই সব “বুদ্ধিমান” যন্ত্র সন্ত্রাসবাদী হানার সম্বন্ধে আগে থেকে জানতে সাহায্য করবে.
রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিন রুশ বিজ্ঞানীদের সঙ্গে দেখা করেছেন, যাঁরা প্রায় চার কিলোমিটার পুরু বরফের নীচে দক্ষিণ মেরুর পূর্ব নামের হ্রদের জল অবধি পৌঁছতে সক্ষম হয়েছেন. গবেষকরা তাঁদের কাজ সম্বন্ধে ব্যাখ্যা করেছেন, আর নির্বাচিত রাষ্ট্রপতি আশ্বাস দিয়েছেন যে, পরবর্তী কালেও দক্ষিণ মেরুতে অনুসন্ধানের কাজে সমর্থন করা হবে.
আজ ২৩শে এপ্রিল রাশিয়াতে শুরু হতে চলেছে সেন্ট জর্জ ফিতার উত্সব, যা ফ্যাসিজমের বিরুদ্ধে মহান পিতৃভূমি রক্ষার যুদ্ধকে উত্সর্গ করে করা হয়েছিল. ৯ই মে পর্যন্ত রাশিয়ার রাজধানী ও অন্যান্য জায়গায়, রাশিয়ার কাছের ও অনেক দূরের বিদেশে দেওয়া হতে থাকবে বহু লক্ষ এই ধরনের কমলা- কালো রঙের পট্টি.
     রাশিয়ার বিজ্ঞানীরা এক গুচ্ছ বিরল প্রোগ্রাম বানাতে সক্ষম হয়েছেন, যা প্রায় শতকরা একশ ভাগ নির্দিষ্ট করে বলে দিতে পারে কোথায় মাটি ধ্বসে যাওয়া শুরু হতে পারে আর বিপজ্জনক জায়গা গুলির জন্য ফলপ্রসূ সুরক্ষার ব্যবস্থা কিভাবে নেওয়া উচিত্. নিজের সম্ভাবনা অনুযায়ী এই আবিষ্কার বিশ্বের সমস্ত একই ধরনের প্রোগ্রামের চেয়ে ভাল, এই কথা উল্লেখ করেছেন এই প্রোগ্রামের স্রষ্টারা.
    শীত কালের শেষ হয়েছে, রাষ্ট্রপতির ঘোড়সওয়ার ও পদাতিক সৈন্য দলের কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানের আরও একটি ঋতু শুরু হল. ঠিক মধ্য দিনে ক্রেমলিনের ক্যাথেড্রাল স্কোয়ারে বেরিয়ে এসেছিল পাহারাদার পদাতিক সৈন্য দল, যাদের পরনে ছিল বিংশ শতাব্দীর শুরুর সময়ে তৈরী প্যারেডের ইউনিফর্ম. সেনা বাহিনীর অর্কেস্ট্রার সঙ্গে তারা পাথরের রাস্তার উপর দিয়ে চলে গিয়েছিল, তার পরে তাদের বদলে এসেছিল ঘোড়সওয়ার বাহিনী.
গত বছরের নভেম্বর মাসে সেন্ট পিটার্সবার্গের ষষ্ঠ আন্তর্জাতিক “সংস্কৃতি আলাপ” সম্মেলনে পর্যটক, প্রত্নতত্ত্ববিদ ও সিনেমা পরিচালক লিওনিদ ক্রুগলভ ঘোষণা করেছিলেন এক উচ্চাকাঙ্ক্ষী প্রকল্পের কথা – বিখ্যাত চার মাস্তুলের বিশাল বজরা সেদভ চড়ে প্রথম রুশ বিশ্ব পরিক্রমা, যা উনবিংশ শতকের শুরুতে ইভান ক্রুজেনশ্টের্ন করেছিলেন, সেই রকমের পরিক্রমা করা হবে. এই অভিযানের শুরুর কথা হয়েছে ২০শে মে.
রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ বিশ্বাস করেন যে, খেলাধূলায় যত না গুরুত্বপূর্ণ পদক প্রাপ্তি ও রেকর্ড ফল করা, তার থেকেও বেশী হল বহু লক্ষ অনুরাগীদের সত্ প্রতিযোগিতার প্রতি আগ্রহ. দেশের প্রধান রাশিয়ার রাজধানীতে প্রথম বার হওয়া জাতীয় অলিম্পিক কমিটি গুলির সাধারন সভা উপলক্ষে ক্রেমলিনে আনুষ্ঠানিক আপ্যায়ন করেছেন.
        লন্ডনের প্রশাসন শহরের মেট্রো রেলের স্টেশনের নাম বদলাচ্ছেন. ব্রিটেনের রাজধানীতে গ্রীষ্ম অলিম্পিক ও প্যারা- অলিম্পিকের সময়ে পোল ভল্টার এলেনা ইসিনবায়েভা, টেনিস খেলোয়াড় ইভগেনি কাফেলনিকভ, জিমন্যাস্ট আলেক্সেই নেমভ ও প্রায় তিরিশ জন সোভিয়েত ও রুশ খেলোয়াড়ের নামাঙ্কিত স্টেশন থাকবে.
খেলাধূলার জগতে প্রতিটি নতুন বছর – এটা অনেক আগ্রহোদ্দীপক ও মন কাড়া ঘটনার সমারোহ. ২০০৯ সালে বিশ্বের খেলাধূলার জগতের ক্যালেন্ডারের পাতায় “সিল্ক ওয়ে” নামের গাড়ীর দৌড় প্রতিযোগিতা একটা চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছিল, আর তা ছিল রাশিয়া পক্ষ থেকে এক ধরনের "চ্যালেঞ্জ", যা বিশ্বের বহু দেশেরই খেলোয়াড়রা ও এই ধরনের প্রতিযোগিতার ফ্যান লোকরা খুবই সানন্দে গ্রহণ করেছিল.
মস্কোয় ভারতের সংস্কৃতি কেন্দ্রে শোনানো হয়েছিল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সঙ্গীত এবং কবিতা. তা শুনিয়েছিল ভারতীয়রা এবং রুশী, তরুণ-তরুনী আর বয়স্ক লোকেরা, যারা রবীন্দ্রনাথের রচনা জানেন, ভালবাসেন আর অধ্যয়ন করছেন. এঁদেরই একজন হলেন – ডঃ তাতিয়ানা মরোজোভা – রাষ্ট্রীয় শিল্পকলা বিদ্যা ইন্সটিটিউটের সিনিয়ার বৈজ্ঞানিক কর্মী. তিনি গেয়েছেন রবীন্দ্রনাথের “গীতাঞ্জালি”র একটি গান.
 ভারতে প্রথম দর্শণে খুবই অস্বাভাবিক এক স্ক্যান্ডাল হয়েছে. বুধবারে ভারতীয় সংবাদপত্র ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস একটা বড় প্রবন্ধ প্রকাশ করেছে, যেখানে বলা হয়েছে যে, ১৬ থেকে ১৭ই জানুয়ারী রাতে হরিয়ানা রাজ্যে ঘাঁটি গেড়ে বসা সাঁজোয়া গাড়ীর ব্যাটালিয়ন ও আগ্রায় থাকা ৫০ নম্বর প্যারাট্রুপার ব্রিগেড দিল্লীর দিকে রওয়ানা হয়েছিল.
গুপ্তচর আরশোলা – আজব গল্প নাকি সত্যি?  ইতালির সংবাদপত্র Corriere Della Sera যে তথ্য প্রকাশ করেছে, তাতে ইজরায়েল ও আমেরিকার বিজ্ঞানীরা বিভিন্ন কীট পতঙ্গ ও শামুক নিয়ে গবেষণা করছে, যাতে পরবর্তী কালে তাদের গুপ্তচর বৃত্তির কাজে লাগানো যায়.
    ২১শে এপ্রিল রাশিয়া ও বিদেশে এক ব্যাকরণ শুদ্ধ লেখা নিয়ে পরীক্ষার আয়োজন করা হয়েছে – নাম “সম্পূর্ণ শ্রুতিলিখন”. প্রায় পঁচিশ হাজার মানুষ তাতে অংশ নেবেন.     এই পরীক্ষার সরকারি সাইটে জানানো হয়েছে যে, সম্পূর্ণ শ্রুতিলিখন এই জন্যই আয়োজন করা হয়েছে যাতে মানুষের দৃষ্টি পড়ে শিক্ষিত হওয়ার দিকে ও ব্যাকরণ শুদ্ধ ভাবে লেখার দিকে.
সাম্বো – রাশিয়াতে সৃষ্টি করা এক কুস্তি ধরনের খেলা, - সম্ভবতঃ, তা শীঘ্রই অলিম্পিকে একটি খেলার বিষয় হতে চলেছে. এই মল্ল যুদ্ধ গ্রেট ব্রিটেনের পক্ষ থেকে খুবই অর্থবহ সহায়তা পেয়েছে – লন্ডনে কমনওয়েলথ সাম্বো সংগঠন নথিভুক্ত করা হয়েছে.
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30
এপ্রিল 2012
ঘটনার সূচী
এপ্রিল 2012
1
3
7
8
9
11
12
13
14
15
16
19
20
22
25
28
29
30