×
South Asian Languages:
বিশ্ব অর্থনীতি ও রাশিয়ার অবস্থান, 2012
২০১২ সালে খনিজ তেলের দাম ছিল ব্যারেল প্রতি ৯২ থেকে ১২৫ ডলার. বিশেষজ্ঞদের পূর্বাভাস অনুযায়ী, আগামী বছরে দাম সেই একই রকম অর্থাত্ গড়ে ১০০ ডলারের মতই হবে. কিন্তু যদি নিকট প্রাচ্যে পরিস্থিতির বিস্ফোরণ ঘটে, তবে খনিজ তেলের দাম ২০০ ডলারের উর্ধ্বসীমাও পার হয়ে যেতে পারে.
রাশিয়ার পক্ষ থেকে “বড় কুড়িটি” দেশের জোটের সভাপতিত্বের সময়ে বিশ্বের আর্থিক ব্যবস্থার কাঠামো পাল্টানোর কাজই হবে মূল উদ্দেশ্য. এই সম্বন্ধে “রেডিও রাশিয়াকে” বলেছেন “বড় কুড়ি” দেশের বিষয়ে রাশিয়ার অর্থ মন্ত্রকের পক্ষ থেকে কাজকর্মের প্রধান ভারপ্রাপ্ত সের্গেই স্তরচাক. ২০১৩ সালের সমস্ত সময় ধরেই রাশিয়া অর্থনৈতিক ভাবে “বড় কুড়িটি” দেশের জোটের সভাপতিত্ব করবে.
চিন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ঐতিহ্য অনুযায়ী আলোচনার মঞ্চকে এবারে সক্রিয় করতে চেয়েছে, যাতে পরবর্তী সময়ে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে মতবিরোধ আগে থেকেই রোধ করা সম্ভব হতে পারে, এই আশা নিয়ে. ১৮-১৯ ডিসেম্বর ওয়াশিংটনে শুরু হতে চলেছে চিন-আমেরিকা ব্যবসা-বাণিজ্য পরিষদের বৈঠক. এটা বাণিজ্য ও অর্থনীতির ক্ষেত্রে একটি প্রথম আলোচনা চালু রাখার ব্যবস্থা. প্রথমবার তা সক্রিয় করা হয়েছিল সেই ১৯৮৯ সালে.
২০৩০ সালের মধ্যে এশিয়া পশ্চিমকে পিছনে ফেলে এগিয়ে যাবে বার্ষিক আভ্যন্তরীণ উত্পাদনে, সামরিক ক্ষেত্রে ব্যয় বরাদ্দে, বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ও নতুন প্রযুক্তির বিষয়ে. এই বিষয়ে বলা হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গুপ্তচর বিভাগের রিপোর্টে. বিশ্বের শক্তি কেন্দ্র সরে যাওয়া নিয়ে লিখেছেন আমাদের সমীক্ষক গিওর্গি ভানেত্সভ.
সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার কাঠামোর মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগের বিষয়ে যোগাযোগের মাধ্যমে সহযোগিতা করার জন্য রাশিয়ার মন্ত্রীসভার প্রধান দিমিত্রি মেদভেদেভ সহকর্মীদের আহ্বান করেছেন. এই ঘোষণা তিনি করেছেন সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার মন্ত্রীসভা গুলির প্রধানদের কিরগিজিয়ার রাজধানী বিশকেক শহরের বৈঠকে. রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মনে করেন যে, সদস্য দেশ গুলির কাজকর্মের বিষয়ে যোগাযোগের বিষয়টি আরও ভাল করা দরকার, তার মধ্যে অর্থনৈতিক নীতির ব্যাপারেও.
দিল্লী শহরে এই সপ্তাহের শুরুতে ভারত ও চিনের মধ্যে অর্থনৈতিক প্রশ্নে “স্ট্র্যাটেজিক আলোচনা” হয়েছে. আর চিনে এই
গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র কঙ্গো রাষ্ট্রের গৃহযুদ্ধ সারা বিশ্বের বহু লক্ষ মোবাইল টেলিফোন ও কম্পিউটার ব্যবহারকারী মানুষের জন্য খুবই বড় সমস্যার কারণ হতে চলেছে. এই দেশে উত্পাদিত ট্যান্টালাম ধাতু আধুনিক যন্ত্রপাতি উত্পাদনের জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে.
কয়েকদিন আগে হওয়া “ইউরোপ – এশিয়া” আসেম সম্মেলনে রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ ঘোষণা করেছিলেন যে, জ্বালানীর বাজারে নতুন বিপদের হুমকি রয়েছে. এই ধরনের হুমকির বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা নাম করেছেন “সস্তা” কার্বন যৌগের যুগ শেষ হওয়াকে.
লাওসের রাজধানী ভিয়েনতিয়েন শহরে “এশিয়া ইউরোপ” – আসেম সংগঠনের শীর্ষ বৈঠকের নবম সম্মেলন শেষ হয়েছে. রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ, যিনি এই সম্মেলনে অংশ নিয়েছিলেন, তিনি উল্লেখ করেছেন যে, আজ আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা সংক্রান্ত সমস্ত ফ্যাক্টরের পর্যালোচনা করা প্রয়োজন হয়েছে, যা স্ট্র্যাটেজিক স্থিতিশীলতার উপরে প্রভাব বিস্তার করতে পারে.
চিন ও ভারতের বিশেষজ্ঞদের মধ্যে বিগত কিছু কাল ধরেই এই দুই দেশের উন্নয়নের পথের তুলনামূলক সুবিধা নিয়ে বিতর্কের সূত্রপাত হয়েছে. এই সমস্যা নিয়ে নিজের মত প্রকাশ করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কূটনৈতিক একাডেমীর উপাচার্য আলেকজান্ডার লুকিন. ভারত ও চিন: কার বিকাশ বেশী ফলপ্রসূ? এই বিষয়ে বহুদিন ধরেই দুই দেশের সাংবাদিক ও রাজনীতিবিদেরা তর্ক জুড়েছেন.
গ্যাসের জায়গায় হবে তেল. গাজপ্রমের প্রধান আলেক্সেই মিলার ঘোষণা করেছেন যে, রাশিয়ার জন্য শেল তেল নিষ্কাশই হবে সঠিক. মিলারের কথামতো, কোম্পানী এবারে শেল তেল নিষ্কাশণ নিয়ে কাজ করবে. এই নাম দেওয়া হয়েছে সেই ধরনের খনিজ তেলকে, যা মাটির নীচের পাথুরে জায়গায় ছোট খানা খন্দে ভর্তি হয়ে থাকে.
খাবার জিনিষের অভাব ও খাদ্য দ্রব্যের সঙ্কট বিশ্বের বহু কোটি মানুষের জন্য আজ বাস্তবে পরিণত হয়েছে. ১৬ই অক্টোবর বিশ্ব খাদ্য দিবস পালন করা হয়ে থাকে. এটা সেই সমস্যাকেই মনে করিয়ে দেওয়া: রাষ্ট্রসঙ্ঘের বিশ্ব খাদ্য কৃষি সংস্থার মূল্যায়ণ অনুযায়ী প্রত্যেক অষ্টম বিশ্ব বাসীই নিয়মিত অনাহারী রয়েছেন.
আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল অক্টোবর মাসের রিপোর্টে ২০১২ ও ২০১৩ সালের বিশ্ব অর্থনীতির উন্নতির মাত্রা সংক্রান্ত সূচক কমিয়ে দিয়েছে. আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল বৃহত্ অর্থে অর্থনৈতিক পরিস্থিতি খারাপ হওয়াকে ইউরোপের ঋণ সমস্যা ও আমেরিকার অর্থনীতির সমস্যার সঙ্গেই যুক্ত করেছে, যাদের জন্য সবচেয়ে মুখ্য বিপদ রয়েছে তথাকথিত আয়ব্যয়ের মধ্যে অনেক খানি ফারাক.
বেশ কয়েকটি ইংরেজ খবরের কাগজে প্রকাশিত হয়েছে যে, এবার থেকে ব্রিটেনের সেই সব কূটনীতিবিদ যারা ভারতে যাবেন, তাদের বাধ্য হতে হবে হিন্দী ভাষার প্রাথমিক জ্ঞান নিয়ে যেতে অথবা আরও একটু ঠিক করে বললে ইংরাজী ও হিন্দী ভাষার একটা মিশ্রণ যাকে নাম দেওয়া হয়েছে “হিংলিশ”, তা শিখে যেতে.
বিশ্ব অর্থনীতির গতিময় আরোগ্য আশা করা হচ্ছে না. আনন্দের সম্ভাবনা অনির্দিষ্টতা দিয়ে চাপা দেওয়া রয়েছে. এটা, বাস্তবে, সেই মুখ্য বিষয়, যা আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের কার্যকরী ডিরেক্টর ক্রিস্টিন লাগার্ড টোকিও শহরে আসন্ন আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল ও বিশ্ব ব্যাঙ্কের বাত্সরিক সম্মেলনের আগে বলেছেন.
গাজপ্রম সংস্থা এশিয়া অঞ্চলে গ্যাস সরবরাহের জন্য প্রথম বৃহত্ ও দীর্ঘস্থায়ী চুক্তি করেছে. নিজেদের হোল্ডিংয়ের ভিতরের কোম্পানী গাজপ্রম মার্কেটিং অ্যান্ড ট্রেডিং (জিএমটি) এর মাধ্যমে গ্যাস উত্পাদন ও সরবরাহ করার এই কোম্পানী তরল গ্যাস সরবরাহ করার জন্য ভারতের গ্যাস অথরিটী অফ ইন্ডিয়া লিমিটেড (গেইল) কোম্পানীর সঙ্গে চুক্তি করেছে. বিশেষজ্ঞরা বিশ্বাস করেন যে, স্ট্র্যাটেজিক অর্থে রাশিয়ার জন্য এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ.
দানাশষ্য উত্পাদক মূল দেশ গুলিতেই এই বছরের খরার ফলে বিশ্বের বাজারে গমের দাম বাড়ছে. সবচেয়ে কঠিন পরিস্থিতি হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, যেখানে বিরল রকমের গ্রীষ্মের দাবদাহে অধিকাংশ ফসলই জ্বলে গিয়েছে. রাশিয়াও এই বছরে খরার ফলে কম শষ্য উত্পাদন করতে পেরেছে. তা স্বত্ত্বেও সরকার বিদেশে রপ্তানীর বিষয়ে কোন রকমের বাধা নিষেধ আরোপ করে নি.
বিশ্ব নতুন বিনিময় যোগ্য মুদ্রা নিয়ে যুদ্ধের সামনে উপনীত হয়েছে. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক স্থির করেছে কোন রকমের মূল্যবান সঞ্চয়ের বিনিময় ব্যতিরেকেই আরও বেশী করে ডলার ছাপার বন্দোবস্ত করার. এই “ছোঁয়াচে রোগ” ধরেছে ইউরোপের কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক ও জাপানের ব্যাঙ্কেরও. “মূল্যহীণ” ব্যাঙ্ক নোট ছাপার বিষয়ে নিয়ন্ত্রণকারীদের দলে যোগ দিয়েছে ব্যাঙ্ক অফ ইংল্যান্ডও.
ইরান নতুন মডেলের অর্থনীতি বিকাশের পথ ধরেছে, যা দেশের আভ্যন্তরীণ বাজার ও একই সময়ে খনিজ তেল রপ্তানীর উপর থেকে নির্ভরশীলতা কম করার উপরে তৈরী করা হয়েছে. এই বিষয়ে ঘোষণা করেছেন ঐস্লামিক প্রজাতন্ত্রের প্রভাবশালী প্রয়োজনীয়তা সভার সম্পাদক মেসিন রেজাই.
রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন আজ ঘোষণা করেছেন, যে তিনি ভ্লাদিভস্তকে এ্যাপেকের শীর্ষসম্মেলনের ফলাফলে পুরোপুরি সন্তুষ্ট. সমাপ্তিমুলক সাংবাদিক সম্মেলনে পুতিন বলেছেন, যে এই সংস্থার ইতিহাসে এটা সবচেয়ে সফল শীর্ষসম্মেলন. সেই সাথেই আজ ২১টি দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা অর্থনৈতিক এক ঘোযণাপত্র স্বাক্ষর করেছেন. আমন্ত্রক হিসাবে রাশিয়া আলোচ্য বিষয়সূচী নির্ধারন করেছিল ও সহযোগিতার বিভিন্ন ক্ষেত্রে তার অগ্রাধিকার জানিয়ে ছিল. উপোরক্ত ঘোষণাপত্রেও তা প্রতিফলিত হয়েছে.
আগের
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
জানুয়ারী 2012
ঘটনার সূচী
জানুয়ারী 2012
1
2
3
4
5
6
7
8
9
10
12
14
15
17
19
21
22
23
25
27
28
29
31