×
South Asian Languages:
বিশ্ব অর্থনীতি ও রাশিয়ার অবস্থান, আগষ্ট 2011
ইয়ারোস্লাভলের তৃতীয় বিশ্ব রাজনৈতিক সম্মেলনের বিষয় হয়েছে জাতিগত দ্বন্দ্ব, বহু সংস্কৃতির ঐক্যের রাজনীতি ও অভিবাসনের সমস্যা. এবারে এটা ৭- ৮ সেপ্টেম্বর হবে. আয়োজকেরা উল্লেখ করেছেন যে এই বছরে বিষয়ের নির্বাচন হয়েছে খুবই বাস্তব সম্মত. ইয়ারোস্লাভল তৃতীয় বার রাজনৈতিক সম্মেলনের অতিথিদের স্বাগত জানাবে.
বিশ্বে খাদ্য দ্রব্যের দাম গত বছরের জুলাই মাসের চেয়ে শতকরা ৩৩ ভাগ বেড়ে গিয়েছে ও ২০০৮ সালের সবচেয়ে দামী সময়ের মতো হয়েছে, আর খাবারের ভাণ্ডার অনেকটাই সংকুচিত হয়েছে. এই ধরনের তথ্য নিজেদের মাসিক রিপোর্টে উল্লেখ করেছে বিশ্ব ব্যাঙ্ক. প্রসঙ্গতঃ, এই সংস্থার বিশেষজ্ঞদের মতে, মূল্যবৃদ্ধি হওয়ার ক্ষেত্রে খুবই বড় ভূমিকা নিয়েছে ভুট্টা, চিনি ও গমের দা.
আমেরিকার অর্থনীতিকে  - বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতিকে ভারসাম্য দেওয়া – যা ডিফল্টের সীমানায় এসে দাঁড়িয়েছিল, তা বিশ্বকে আশঙ্কায় উদ্বিগ্ন করে অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকতে বাধ্য করেছিল. নতুন বিশ্ব সঙ্কটের বিপদ এখন আগের চেয়ে অনেক বাস্তব ঠেকেছে, বিশেষ করে ইউরোপীয় সঙ্ঘের দক্ষিণের প্রান্তে. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক সমস্যার অনেক কারণই বলা হয়ে থাকে.
এশিয়ার সমস্ত বড় বাজারেই মনে হচ্ছে আতঙ্ক আপাততঃ "পেছিয়ে" দেওয়া হল পরের কোন সময়ের জন্য. বুধবারে শেয়ার বাজার খোলার পরেই চার শতাংশ উঠেছে সূচক. এই ভাবেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রীয় রিজার্ভ ব্যবস্থার গতকালের ঘোষণা, যা করা হয়েছিল বিনিয়োগকারীদের শান্ত করার জন্য ও আতঙ্ক গ্রস্ত অবস্থায় সমস্ত শেয়ার বেচে দেওয়া বন্ধ করার জন্য, তা বাজার গুলিতে নতুন করে জিততে শুরু করিয়েছে.
অর্থনৈতিক ঝাঁকুনির পরপর কয়েকটি ঠেলা, ইউরোপীয় সঙ্ঘের দেশ গুলির ধার শোধের সমস্যা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডিফল্টের ঝুঁকি, বিশ্ব সার্বিক জাতীয় উত্পাদনের হারের মন্দা বিশেষজ্ঞদের মধ্যে নতুন বিশ্ব অর্থনৈতিক সঙ্কটের সম্ভাবনা সম্বন্ধে আলোচনার জন্ম দিয়েছে.
স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড পুয়োরস্ সংস্থার তরফ থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ঋণ গ্রহণের রেটিং কমিয়ে দেওয়া তাত্ক্ষণিক সারা বিশ্ব জুড়ে শেয়ার বাজার ও কাঁচামালের বাজারে প্রভাব ফেলেছে. সোমবার খোলার পরেই, ফ্রান্স ও জার্মানীর শেয়ার বাজারে দামের পতন দেখতে পাওয়া গিয়েছে. রাশিয়ার আন্তর্ব্যাঙ্ক মুদ্রা বাজারে শুক্রবারের চেয়ে শতকরা দুই ভাগ দাম কমে গিয়েছে. এশিয়ার সূচক সঙ্কট পরবর্তী দুই বছরের মধ্যে সবচেয়ে নীচু স্তরে পৌঁছেছে.
বিশ্বের সমস্ত শেয়ার বাজারেই সূচকের দাম বড় মাপেই পড়েছে. এশিয়া, ইউরোপ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সর্বত্রই দেখতে পাওয়া যাচ্ছে আতঙ্ক ও বিনিয়োগ কারীদের পলায়ন.     বৃহস্পতিবারে জার্মানী, ফ্রান্স ও গ্রেট ব্রিটেনের শেয়ার বাজারে শেয়ারের দাম দ্রুত কমতে শুরু করেছিল. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে দাম পড়েছিল ২০০৮ সালের সব চেয়ে কম দাম অবধি. ব্রাজিলের বোভেস্পা ইন্ডেক্স শতকরা ছয় শতাংশ কমেছে.
একবিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি এশিয়া ইউরোপের মতই ধনী ও উন্নতিশীল হতে পারে. কিন্তু তা হতে পারে যদি বর্তমানের সমস্যা গুলির সমাধান করা সম্ভব হয়, যা এই মহাদেশের উন্নতির পথে অন্তরায় হয়েছে. এই সিদ্ধান্ত এশিয়া উন্নয়ন ব্যাঙ্কের বিশেষজ্ঞরা তাঁদের তৈরী প্রবন্ধে করেছেন. তাঁদের হিসাব অনুযায়ী এশিয়া মহাদেশের দেশ গুলির সার্বিক জাতীয় আয় ২০৫০ সালে ২০১০ সালের তুলনায় দশ গুণ বেড়ে যাবে.
অভিবাসনের প্রক্রিয়া গুলিকে থামানো সম্ভব নয়. শুধুমাত্র গত ২৫ বছরেই বিশ্বে অভিবাসিত লোকেদের সংখ্যা হয়েছে দ্বিগুণ. আগামী দশ বছরে এর সংখ্যা আরও বাড়বে দ্বিগুণ, এক দিকে এটা অবশ্যই সেই সমস্ত দেশের জন্য লাভজনক, যেখান থেকে চলে যাওয়া হচ্ছে, আবার অন্য দিকে যে সমস্ত দেশে এই চলে যাওয়া লোকেরা আসছেন তাদের ও লাভ হচ্ছে, যেমন হচ্ছে অভিবাসিত লোকেদের.
ডেমোক্র্যাট ও রিপাব্লিকান দলের প্রতিনিধিরা রাষ্ট্রীয় ঋণের সর্ব্বোচ্চ মাত্রা বৃদ্ধি ও বাজেট খরচের পরিমান কমানো নিয়ে এক কাঠামো নির্ণায়ক সমঝোতা তৈরী করতে পেরেছে. রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা আশ্বাস দিয়েছেন যে, সমঝোতা ডিফল্টের আশঙ্কা দূর করবে ও নূতন অর্থনৈতিক সঙ্কটের সম্ভাবনা দূর করবে.
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
আগষ্ট 2011
ঘটনার সূচী
আগষ্ট 2011
2
4
6
7
12
13
14
15
16
17
19
20
21
22
23
25
26
27
28
29
30
31