×
South Asian Languages:
ইজিপ্টের পরিস্থিতি ও রাশিয়ার অবস্থান, ফেব্রুয়ারী 2011
কায়রোর তহরির ময়দান (স্বাধীনতা চক) খুবই মনোযোগ দিয়ে রক্ষা করছে নিজের সদ্য অর্জিত স্বাধীনতা. স্বাধীন জায়গায় ঢুকতে পারা সহজে পরা যাচ্ছে না. এই ময়দানে ঢোকার সমস্ত দিকের রাস্তাতেই এখন সৈন্যদের জায়গায় – ছাত্রদের পাহারার দল দাঁড়িয়ে.
রাশিয়া আশা করে ইজিপ্টে দ্রুত গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া পুনর্স্থাপিত হোক. এই সম্বন্ধে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভের ঘোষণা শনিবারে ক্রেমলিনের তথ্য ও জনসংযোগ দপ্তর প্রকাশ করেছে. এর আগে ইজিপ্টের রাষ্ট্রপতি হোসনি মুবারক প্রবল জন বিক্ষোভ ও গোলমালের চাপে পড়ে, যা কম করে হলেও ৩০০ লোকের মৃত্যুর কারণ হয়েছে, পদত্যাগ করেছেন. দেশের পরিস্থিতির নিয়ন্ত্রণ দেশের সামরিক বাহিনীর সর্ব্বোচ্চ নেতৃত্বের হাতে চলে গিয়েছে.
সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত নিজের পদ না ছাড়ার নতুন ঘোষণা করেছেন ইজিপ্টের রাষ্ট্রপতি হোসনি মুবারক, এই ঘোষণা শুধু ইজিপ্টের বিরোধী পক্ষেরই অপছন্দের কারণ হয় নি, ওয়াশিংটনেরও হয়েছে. সেখানে যদিও ক্রমাগত বলে যাওয়া হচ্ছে যে, অন্য দেশের আভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলানো হবে না, আর ইজিপ্টের জনগনই নিজেদের নেতৃত্ব নিজেরা নির্বাচন করবেন.
ইজিপ্টে গোলমাল বিশ্বের বাজারে খাদ্য শষ্যের দাম বাড়িয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখাচ্ছে. চিকাগো শহরের মালের বাজারে গমের দাম ইতিমধ্যেই বেড়ে হয়েছে প্রতি টনে ৩১৫ ডলার, দাম বাড়ার ঝোঁক রয়ে যাচ্ছেই. তারই মধ্যে বিশেষজ্ঞরা মনে করেছেন যে, খাদ্য দ্রব্যের স্বল্প পরিমান ও বিপুল দামই উত্তর আফ্রিকা ও নিকট প্রাচ্যে জনগনের বিদ্রোহের মূল কারণ.
কায়রো শহরের নাটকীয় ঘটনা ভাবতে বাধ্য করছে যে ইজিপ্ট বর্তমানে গৃহযুদ্ধের সম্মুখীণ হয়েছে.     ২৫শে জানুয়ারী থেকে ইজিপ্টের সমস্যা এই রকম একটা চিত্রনাট্য অনুযায়ী হয়েছে: প্রতিদিনের সঙ্গে প্রশাসনের বিরোধীরা চাপ বাড়াচ্ছিল, দেশের রাস্তায় লক্ষ মানুষকে বার করে এনে. ২রা ফেব্রুয়ারী পট পাল্টে গিয়েছে, এর আগে পর্যন্ত তাই চলছিল. বুধবারে নিজেদের উপস্থিতি ঘোষণা করেছে রাষ্ট্রপতি হোসনি মুবারকের সমর্থকেরা.
পশ্চিম ইউরোপ, রাশিয়া, চিন, জাপান ইত্যাদি দেশের পর্যটন ও পরিবহন কোম্পানী গুলি টিউনিশিয়া ও ইজিপ্টের বিপ্লবের জেরে বিপুল অর্থের ক্ষতি স্বীকার করতে বাধ্য হচ্ছে. সার্বভৌম ঋণ ফেরতের ক্ষেত্রে এই আরব দেশ গুলির দেউলিয়া হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ছে, খাদ্য ও জ্বালানী শক্তি নিরাপত্তা বিষয়ে বিপদের সম্ভাবনা আরো জোরালো হচ্ছে.     সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে আন্তর্জাতিক পর্যটন.
ইজিপ্ট বর্তমানে এক বৈপ্লবিক পরিস্থিতিতে রয়েছে. আজ দেশের বিরোধী পক্ষ লক্ষ জনতার মিছিলের ডাক দিয়েছে, যা মনে করা হয়েছে দেশের পরিস্থিতিকে সম্পূর্ণ বদলে দিতে পারে.     লক্ষ লক্ষ মানুষ কায়রো ও আলেকজান্দ্রিয়া শহরের রাস্তায় নেমেছে রাষ্ট্রপতি হোসনি মুবারকের পদত্যাগ ও সদ্য শপথ নেওয়া প্রশাসনের পদত্যাগের দাবীতে.
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28
ফেব্রুয়ারী 2011
ঘটনার সূচী
ফেব্রুয়ারী 2011
4
5
6
7
9
10
16
17
18
19
20
21
26
27