×
South Asian Languages:
ন্যাটো জোট, জুন 2012
তেহরানের সঙ্গে খনিজ তেলের বিষয়ে চুক্তিবদ্ধ দেশ গুলির রাষ্ট্রীয় ব্যাঙ্ক গুলির বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা জারী করেছে. এর আগে ব্যক্তিগত মালিকানায় চলা অর্থনৈতিক সংস্থা গুলির উপরে নিষেধাজ্ঞা জারী করা হয়েছিল, যারা সেই ঐস্লামিক প্রজাতন্ত্রের সঙ্গে কর্ম সূত্রে আবদ্ধ ছিল. আর ১লা জুলাই থেকে ইউরোপীয় সঙ্ঘ ইরানের বিরুদ্ধে খনিজ তেলের বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা বহাল করতে চলেছে.
আফগানিস্তানে নিরাপত্তায় সহায়তাকারী আন্তর্জাতিক বাহিনীর অধিনায়ক মার্কিনী জেনারেল জন অ্যালেন বুধবার কর্ম-সফরে পাকিস্তানে আসছেন, জানিয়েছে পাকিস্তানের “নিউজ ইন্টারন্যাশানাল” পত্রিকা. অ্যালেন সাক্ষাত্ করবেন পাকিস্তানের সশস্ত্র বাহিনীর অধিনায়ক আশফাক কাইয়ানির সাথে. এ সাক্ষাতে উচ্চপদস্থ সামরিক কর্মীরা “হাক্কানি” বংশের জঙ্গীদের প্রতিরোধ করার বিষয় আলোচনা করবেন.
ইরানের পারমানবিক পরিকল্পনা বিশ্ব সমাজকে শান্তি দিচ্ছে না. পশ্চিম জোর দিচ্ছে যে, তেহরান পারমানবিক যুদ্ধ শুরু করতে পারে, যেই তাদের হাতে পারমানবিক অস্ত্র উপস্থিত হবে, তক্ষুনি. কিন্তু সেই ধরনের ঘটনা চক্র এমনকি ওয়াশিংটনেও বা ব্রুসেলসে খুব কম লোকই বিশ্বাস করে.
রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা পাকিস্তানকে আলাদা করেছেন জাতীয় নিরাপত্তার প্রশ্নে “সবচেয়ে সংজ্ঞাবহ উদ্বেগের কারণ” বলে আর বিশেষ করে আশঙ্কা করেছেন যে, পাকিস্তান এখন ধ্বংসের মুখে রয়েছে, আর তাদের পারমানবিক অস্ত্র সন্ত্রাসবাদীদের হাতে পড়তে পারে.
ন্যাটো জোট খুবই “গভীর মনোযোগ দিয়ে নিজেদের দক্ষিণ- পূর্ব সীমান্তে পরিস্থিতি দেখবে”. এই বিষয়ে ঘোষণা করেছেন আঙ্কারার উদ্যোগে আয়োজিত সিরিয়া নিয়ে ন্যাটো জোটের জরুরী বৈঠকের পরে সাংবাদিক সম্মেলনে সাধারন সম্পাদক আন্দ্রেস ফগ রাসমুস্সেন. এই উদ্যোগের কারণ হয়েছিল সিরিয়ার পক্ষ থেকে তুরস্কের বিমান বাহিনীর একটি যুদ্ধ বিমানকে ধ্বংস করার ঘটনা.
সম্ভবতঃ বিশ্বে খুব একটা বেশী জায়গা পাওয়া যাবে না, যেখানে সূর্য প্রায় সারা বছর ধরেই আলো করে রাখে. এই রকমের একটি আকর্ষণীয় জায়গা হল পারস্য উপসাগরের এলাকা. কিন্তু বিগত ছয় মাসে এই নিয়ে দ্বিতীয় বার উপসাগরের সবচেয়ে সংকীর্ণ সামুদ্রিক এলাকা – খরমুজ প্রণালীর উপরের আকাশে রাজনৈতিক আবহাওয়া খারাপ হচ্ছে.
সিরিয়ার দ্বারা ধ্বংস করা তুরস্কের ফাইটার বিমান ন্যাটো জোটের প্রত্যক্ষ সামরিক হস্তক্ষেপ ঘটায় নি, কারণ জোট যুদ্ধের ক্ষতির ভয় পাচ্ছে সিরিয়ার সুবিকশিত আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার জন্য. এ সম্বন্ধে “ইন্টারফাক্স” সংবাদ এজেন্সিকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে বলেছেন রাশিয়ার সামাজিক সভার সদস্য, রাজনৈতিক গবেষণা ইনস্টিটিউটের ডিরেক্টর সের্গেই মার্কোভ. বিশেষজ্ঞের কথায়, জোট তাছাড়া ভয় পাচ্ছে রাডিক্যাল ইস্লামপন্থীদের শাসন ক্ষমতায় আসার সম্ভাবনার.
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, সৌদি আরব, কাতার ও তুরস্ক সিরিয়ার বিরোধীদের সাহায্যের ক্ষেত্র আলাদা করে বেছে নিয়েছে.মার্কিনরা সাহায্য করছে অস্ত্র দিয়ে, দুটি আরব রাজতন্ত্র – অর্থ দিয়ে, আর তুরস্ক নিজেদের এলাকা দিয়ে. এই ধরনের সমঝোতার অস্তিত্ব অনেকদিন আগেই অনুমান করা হয়েছিল, কিন্তু শুধু এখনই এই বাস্তব একটা সমর্থন পেয়েছে.
তুরস্কের কর্তৃপক্ষ সিরিয়ার সাথে যুদ্ধ করতে যাচ্ছে না, সাধারণভাবে কারুর সঙ্গেই নয়. এ সম্বন্ধে গত সোমবার বলেছেন তুরস্কের উপ-প্রধানমন্ত্রী ব্যুলেন্ট আরিঞ্চ. গত সপ্তাহে সিরিয়ার বাহিনীর দ্বারা তুরস্কের সামরিক বিমান ধ্বংসে এমন প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে আঙ্কারা.একই সঙ্গে,আরিঞ্চ উল্লেখ করেন যে, তুরস্ক এ ঘটনাকে পরিণতি-হীন ভাবে ছেড়ে দিতে চায় না.
সমস্ত রকমের লক্ষণ অনুযায়ী তুরস্কের বিমান বাহিনীর যুদ্ধবিমান “আর এফ- ৪ই ফ্যান্টম” সিরিয়ার আকাশ প্রতিরক্ষা বাহিনী ধ্বংস করার ঘটনা বাস্তবেই গুপ্তচর বৃত্তি দিয়ে শুরু হয়েছে বলে দেখা যাচ্ছে. এই কথা উল্লেখ করে রাজনীতিবিদ স্তানিস্লাভ তারাসভ বলেছেন: “এটা একেবারেই স্পষ্ট হয়েছে তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রী আহমেদ দাভুতোগলু যখন সেই দেশের টেলিভিশন চ্যানেলে এই প্রসঙ্গে বলেছেন, তার পরে.
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ন্যাটো জোটের বিমান বাহিনীর আঘাতের ফলে ২৪ জন পাকিস্তানী সৈনিকের মৃত্যুর জন্য সরকারীভাবে ক্ষমা প্রার্থনা করবে না. এ সম্বন্ধে রয়টার সংবাদ এজেন্সিকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে বলেছেন পেন্টাগনের প্রধান লেওন পানেট্টা. তাঁর কথায়, আগে জানানো অনুশোচনা এবং সমবেদনাই যথেষ্ট.২০১১ সালের ২৬শে নভেম্বর ন্যাটো জোটের কয়েকটি হেলিকপ্টার দেশের উত্তর-পশ্চিমে দুটি সীমান্ত চৌকির উপর আঘাত হানে.
আরব লিগের সাধারন সম্পাদকের ডেপুটি আহমেদ বেন হেল্লি ঘোষণা করেছেন যে, ইরানের ৩০শে জুন জেনেভায় হতে যাওয়া সিরিয়া সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক বৈঠকের অংশীদার হওয়া উচিত্. এই দৃষ্টিকোণ কি আরব লিগের সরকারি দৃষ্টিভঙ্গীর সঙ্গে মেলে – তা সম্পূর্ণ ভাবে স্পষ্ট নয়.
মেক্সিকোর লস- কাবোস শহরে হওয়া “কুড়িটি” দেশের নেতাদের শীর্ষ সম্মেলনের পরে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন বুধবারে (মস্কো সময়) নিজের অংশগ্রহণের মূল্যায়ন করেছেন. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি তাঁর বিশ্বাস সম্বন্ধে বলেছেন যে, ইউরো অঞ্চলে পরিস্থিতি ভালোর দিকেই যাবে.
১৯শে জুন রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদ সিরিয়ার পর্যবেক্ষক মিশনের প্রধান রবার্ট মুডের রিপোর্ট শুনবে, তার পরে এই দেশে কাজ কর্মের জন্য পরবর্তী পরিকল্পনা স্থির করবে. রাষ্ট্রসঙ্ঘের মিশন প্রথমবার নিজেদের কাজকর্ম নিয়ে এপ্রিল মাসের শেষে সিরিয়াতে তাদের কাজ শুরু হওয়ার পর থেকে বিবরণ দেবে.
রয়টারস সংস্থার খবর অনুযায়ী আফগানিস্তানের তালিবরা ভারতের আফগানিস্তান সংক্রান্ত অবস্থানকে খুবই উচ্চ মূল্যায়ন করেছে – অংশতঃ ভারতের পক্ষ থেকে আফগানিস্তানের আভ্যন্তরীণ বিষয়ে একেবারেই হস্তক্ষেপ না করার প্রবল ইচ্ছা. কয়েকদিন আগেই দিল্লী সফরের সময়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী লিওন প্যানেত্তা আফগানিস্তানের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ভারতের অংশগ্রহণ সক্রিয় করা নিয়ে আহ্বান করেছিলেন. তালিবরা ভারতের অবস্থানের প্রতি স্রেফ সমর্থন করেই ক্ষান্ত হয় নি.
আজকের দিনের দুনিয়ায় একেবারেই সমস্ত কিছু ভাল নয়. বিশ্বের অর্থনীতির ব্যবস্থা স্থিতিশীল নয়, সশস্ত্র বিরোধ চলছে, রাষ্ট্র গুলির মধ্যে রাজনৈতিক মত পার্থক্য পার হওয়া থেকে অনেক দূরে. এখনকার সবচেয়ে বেদনা দায়ক প্রশ্ন গুলির উত্তর খুঁজতে বিশ্বের বড় কুড়িটি দেশের নেতারা ১৮- ১৯শে জুন মেক্সিকোর লস- কাবোস জি ২০ শীর্ষবৈঠকে কাজ করবেন. এটা জি ২০ কাঠামোর মধ্যে সর্ব্বোচ্চ পর্যায়ে সপ্তম বৈঠক.
এই সপ্তাহে ওয়াশিংটনে তৃতীয় বাত্সরিক ভারত – মার্কিন স্ট্র্যাটেজিক আলোচনা স্পষ্ট করেই দেখিয়ে দিয়েছে যেমন আংশিক ভাবে দুই দেশের স্বার্থের বিষয়ে সম্মতি, তেমনই অবস্থানের বিষয়ে দুই দেশের যথেষ্ট পার্থক্য, এই কথা মনে করে রাশিয়ার স্ট্র্যাটেজিক গবেষণা কেন্দ্রের বিশেষজ্ঞ বরিস ভলখোনস্কি তাঁর মত ব্যক্ত করেছেন. অর্থনৈতিক দিকে দুই পক্ষেরই প্রশংসনীয় সাফল্য রয়েছে বলে রুশ বিশেষজ্ঞ উল্লেখ করেছেন.
রাশিয়া, চিন ও মধ্য এশিয়ার দেশ গুলি (কাজাখস্থান, কিরগিজিয়া, তাজিকিস্তান) পাহাড়ী জায়গায় সম্মিলিত ভাবে সামরিক অপারেশনের কৌশল তৈরী করেছে. সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার "শান্তি মিশন – ২০১২" নামের প্রশিক্ষণ (৮ থেকে ১৪ই জুন) তাজিকিস্তানে শেষ হয়েছে. এর সক্রিয় কাজ কর্মের সময়ে যোগ দিয়েছে দুই হাজারেরও বেশী সামরিক কর্মী ও ৫০০ টি যুদ্ধের গাড়ী.
পেন্টাগন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসকে জানিয়েছে আফগানিস্তানের সেনা বাহিনীর জন্য রাশিয়ার কোম্পানী রসআবারনএক্সপোর্টের কাছ থেকে বাড়তি ১২টি মি- ১৭ হেলিকপ্টার কেনার সিদ্ধান্ত সম্বন্ধে. এই বিষয়ে বুধবারে সাংবাদিকদের জানিয়েছে বারাক ওবামা প্রশাসনের প্রতিনিধি. একই সময়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেনেটে চেষ্টা করা হচ্ছে আফগানিস্তানের জন্য রাশিয়ার হেলিকপ্টার কেনা বন্ধ করে দেওয়া, যুক্তি দেওয়া হচ্ছে সিরিয়ার প্রশাসনকে রাশিয়ার পক্ষ থেকে সরবরাহ বন্ধ না করাকে.
আগের
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30
জুন 2012
ঘটনার সূচী
জুন 2012
2
3
7
16
17
23
24
28
30