×
South Asian Languages:
মার্কিন, নভেম্বর 2013

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আগামী ছয়মাসের জন্য ইরানি তেলের ওপর নিষেধাজ্ঞা শিথিল করতে যাচ্ছে। গত কয়েকদিন ধরে ইরানের পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে যে আলোচনা হচ্ছে তারই অবশ্য আনুষ্ঠানিক এক ঘোষণা দিয়েছে হোয়াইট হাউস। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি এক বিবৃতিতে ওই ঘোষণা দিয়েছেন।

পাকিস্তানের “তেহরিক-এ-ইনসাফ” দল সেই দেশে সিআইএ সংস্থার স্থায়ী কর্মীর নাম ফাঁস করে দিয়েছে ও দাবী করেছে এই ব্যক্তিকে ও সিআইএ সংস্থার প্রধান জন ব্রেন্নানকে হত্যা ও “পাকিস্তানের বিরুদ্ধে যুদ্ধের আগুন জ্বালানোর” জন্য আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর জন্য. এই সবই হচ্ছে পাকিস্তানের উত্তর পশ্চিমের খাইবার পাখতুনভা প্রদেশে ক্রমাগত প্রতিবাদ আন্দোলন ও আফগানিস্তানে ন্যাটো জোটের সৈন্যদের জন্য রসদ পাঠানো আটকে দেওয়ার চেষ্টার মধ্যেই. প্রসঙ্গতঃ, পাকিস্তানের এলাকায় পাইলট বিহীণ ড্রোন বিমানের আঘাত আগের মতই করা হচ্ছে.

ইরান নিজের পারমাণবিক কর্মসূচির পুরণ স্থগিত রাখবে ডিসেম্বরের শেষ দিকে অথবা ২০১৪ সালের জানুয়ারীর একেবারে গোড়ায়.

মার্কিনী টেলি-কোম্পানি “সি.এন.এন” শুক্রবার নিজের সাইটে প্রকাশ করেছে সেই ইন্টারভিউর পূর্ণ বয়ান, যে ইন্টারভিউ টেলি-চ্যানেলকে দিয়েছিলেন রাষ্ট্রসঙ্ঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভিতালি চুরকিন.

সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার তাশকেন্ত শহরের শীর্ষ সম্মেলনে অর্থনৈতিক ও মানবিক সহযোগিতার প্রশ্নে উন্নয়ন সংক্রান্ত আলোচনাতে জোর দেওয়া হতে চলেছে. এবারের আলোচনায় সংস্থার সদস্য বৃদ্ধি নিয়ে কোন রকমের আলোচনার কথা বলা হয় নি. এরই মধ্যে সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার ইউরো-এশিয়া এলাকায় প্রভাব বৃদ্ধিকে বহু বিশেষজ্ঞই সদস্য বৃদ্ধির সম্ভাবনার সঙ্গে যুক্ত করেছেন.

এই সমস্যায় নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে কয়েকদিন আগে তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী রেঝেপ এরদোগানের করা ঘোষণাতে, যেখানে তিনি তাঁর প্রজাতন্ত্রের পক্ষ থেকে এই সংস্থায় যোগদানের ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন. তুরস্কের পক্ষ থেকে সম্ভাব্য উদ্দেশ্য নিয়ে পর্যালোচনা করেছেন রুশ বিজ্ঞান একাডেমীর সুদূর প্রাচ্য ইনস্টিটিউটের ডেপুটি ডিরেক্টর সের্গেই লুজিয়ানিন.

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তরফ থেকে গুপ্তচরবৃত্তির সম্ভাবনা নিয়ে গ্রীষ্মকালে যে কেলেঙ্কারী দেখা দিয়েছিল তা ব্রাজিলকে নিজস্ব টেলি-কমিউনিকেশন স্পুতনিক তৈরি করতে বাধ্য করছে, যা স্ট্র্যাটেজিক যোগাযোগের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করবে, বৃহস্পতিবার জানিয়েছে লাতিন-আমেরিকার প্রচার মাধ্যম.

যখন হোয়াইট হাউসের থেকে পাঠানো দূতেরা ও আফগানিস্তানের রাষ্ট্রপতি খুবই কড়া ভাষায় একে অপরের সঙ্গে আফগানিস্তানের প্রতিরক্ষা নিয়ে চুক্তির বিষয়ে সময় ও শর্ত নিয়ে আলোচনায় মত্ত, তখনই বিশেষজ্ঞরা অনুমান করতে বসেছেন যে, কি করে এই দরাদরি আফগানিস্তানের অন্যান্য জীবন যাপনের ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলবে.

কাবুলে কিছু বিশেষজ্ঞ ইতিমধ্যেই ঘোষণা করেছেন যে, আফগানিস্তানের লোকদের এই চুক্তির একেবারেই কোন দরকার নেই, কারণ দেখাই যাচ্ছে যে, আমেরিকার লোকরা আফগানিস্তানকে কিছুই দেয় নি, শুধুমাত্র সেই দেশে মাদক দ্রব্য উত্পাদনের বিষয়ে তুমুল পরিমাণে অগ্রগতি ছাড়া. আরও একদল মনে করেছেন যে, এই চুক্তির আবার কিছু ইতিবাচক দিকও রয়েছে, যা ব্যবহার করা দরকার.

জেনেভায় গত সপ্তাহে ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে আন্তর্জাতিক মধ্যস্থ “ছয় দেশ” ও ইরানের আলাপ-আলোচনায় সাফল্য সম্ভব হয়েছে রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিদলের ঘনিষ্ঠ সহযোগিতার কল্যাণে.

রবিবারে ইরান ও “ছয় মধ্যস্থতাকারী পক্ষের” মধ্যে সমঝোতা, যা অর্জন করা হয়েছে, তা শুধু ইরানকেই স্পর্শ করে নি. এর বিশাল এক অর্থ রয়েছে ভারতের জন্যেও, যে দেশ ইরানের উপরে নিষেধাজ্ঞা থেকে নিজেদের জন্য দুর্দশার যথেষ্ট কারণ দেখতে পেয়েছে. ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম যেমন উল্লেখ করেছে যে, এই সমঝোতা ইরানের সঙ্গে জ্বালানী শক্তি ক্ষেত্রে আবার করে সহযোগিতার পথকে অনেক বেশী প্রশস্ত করে দিয়েছে. কিন্তু যেমন মনে করা হয়েছে যে, শুধু জ্বালানী শক্তি ক্ষেত্রেই সহযোগিতা আবদ্ধ হয়ে থাকবে না, আর সমগ্র পূর্ব ইউরো-এশিয়া এলাকার জন্যেই এই ভবিষ্যত সম্ভাবনা অনেক বেশী রকম ভাবেই প্রসারিত হয়েছে. এই প্রসঙ্গে রাশিয়ার স্ট্র্যাটেজিক গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিশেষজ্ঞ বরিস ভলখোনস্কি মন্তব্য করে বলেছেন:

আফগানিস্তানের পার্লামেন্ট জির্গা অধিবেশনে অংশ নেওয়া সদস্যরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সামরিক চুক্তি স্বাক্ষর করার স্বপক্ষে মত দিয়েছেন ও তাঁরা আহ্বান করেছেন রাষ্ট্রপতি হামিদ কারজাইকে ২০১৩ সাল শেষ হওয়ার আগেই এই চুক্তিতে স্বাক্ষর করার জন্য. কারজাই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য নিজের পক্ষ থেকে শর্ত দিয়েছেন. তার মধ্যে রয়েছে ২০১৪ সালের এপ্রিল মাসে দেশে উন্মুক্ত নির্বাচন বাস্তবায়নে সহায়তা করা ও আফগানিস্তানের ঘর বাড়ীতে হানা দেওয়া বন্ধ রেখে, তালিবদের সঙ্গে আলোচনায় অগ্রগতি করা.

ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচির বিন্যাস ও সাংগঠনিক নক্সা “স্পর্শ করা হয় নি অন্তর্বর্তী সমঝোতায়”, যা জেনেভায় অর্জিত হয়েছে তেহেরান এবং ছয় দেশের (রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য পাঁচটি দেশ ও জার্মানি) মাঝে, অন্যদিকে, “পশ্চিমী নিষেধাজ্ঞার বিন্যাসে ফাটল দেখা দিয়েছে”.

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইরান সম্পর্কে কূটনীতির জন্য দরজা বন্ধ করতে পারে না. সান-ফ্রানসিস্কো সফররত রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা এইভাবে সোমবার উত্তর দিয়েছেন ইরানের “পারমাণবিক ফাইল” সম্পর্কে জেনেভায় অর্জিত সমঝোতার প্রতি ইস্রাইলের সমালোচনার.

ভারতের জাতীয় খনিজ তেল পরিশোধন কোম্পানী হিন্দুস্তান পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন লিমিটেড ইরান থেকে আবার খনিজ তেল কেনার সম্ভাবনার কথা খতিয়ে দেখছে. এই বিষয়ে জানানো হয়েছে সোমবার স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমে.

জেনেভাতে এই প্রথমবার গত দশকের মধ্যে একটানা ক্লান্ত করে দেওয়া আলোচনার পরে ইরানের পারমাণবিক পরিকল্পনা নিয়ে একটা সহমতে পৌঁছনো সম্ভব হয়েছে. আন্তর্জাতিক মধ্যস্থতাকারী প্রতিনিধিদল, যাদের মধ্যে রাষ্ট্রসঙ্ঘের পাঁচ স্থায়ী সদস্য দেশ ও জার্মানী রয়েছে – তারা একদিকে ও ইরান – অন্যদিকে, এক দলিলে স্বাক্ষর করেছে, যা ঐস্লামিক প্রজাতন্ত্র ইরানের পারমাণবিক পরিকল্পনার ভাগ্য নির্ধারণ করবে.

মনে হচ্ছে যে, একটি সমস্যা যা শেষ পর্যন্ত যুদ্ধে পরিণত হতে পারত, তা সমাধানের কাছে পৌঁছেছে. কিন্তু “সম্মিলিত ভাবে তৈরী করা পরিকল্পনা”, যা দিয়ে এই সমঝোতার নাম দেওয়া হয়েছে, তা নিয়ে কিন্তু সকলেই সন্তুষ্ট নয়. কিন্তু কেন? এই প্রসঙ্গে আমাদের সমীক্ষক ভ্লাদিমির সাঝিন মন্তব্য করেছেন.

রাষ্ট্রসঙ্ঘ আয়োজিত আবহাওয়া সংক্রান্ত সম্মেলন, যা ওয়ারশ শহরে ১১ থেকে ২৩শে নভেম্বর পর্যন্ত হয়েছে, তাতে কোন নতুন উন্নতি দেখতে পাওয়া যায় নি. এই আলোচনার লক্ষ্য ছিল আবহাওয়া নিয়ে নতুন করে চুক্তির বয়ান তৈরী করা, যা ২০২০ সালে কিয়োটো প্রোটোকলের জায়গা নেবে. কিন্তু এই প্রশ্ন নিয়ে প্রতিনিধি দলেরা এমনকি আলোচনার সূত্রপাত পর্যন্ত করেন নি.

এই সম্মেলনে যাঁরা অংশ নিয়েছেন, তাঁরা সহমতে এসেছেন যে, আগামী বছরে এই বিষয়ে আলোচনা চালিয়ে যাবেন. আর এটাই প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে ১৯০টি দেশ থেকে আসা প্রতিনিধি দলের কাজের মূল পরিণাম. তাও একেবারে শেষ মুহূর্তে সর্বসম্মতি ক্রমে সিদ্ধান্ত করা সম্ভব হয়েছে মাত্র কয়েকটি দলিল নিয়েই, এই কথা উল্লেখ করে রাশিয়ার প্রতিনিধি দলের প্রধান আলেকজান্ডার বেদরিত্শকি বলেছেন:

ডিসেম্বরে "জেনেভা-২" সম্মেলন আয়োজনের সম্ভাবনা কম. এ সম্বন্ধে সোমবার “ইতার-তাস” সংবাদ এজেন্সিকে বলেছেন এক পশ্চিমী কূটনৈতিক সূত্র. 

ইউরোসঙ্ঘ ডিসেম্বরেই ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা লাঘবের প্রক্রিয়া ডিসেম্বরেই শুরু করবে আন্তর্জাতিক মধ্যস্থ “ছয় দেশ” ও তেহেরানের মাঝে অর্জিত সমঝোতার কাঠামোতে. 

মার্কিনী পররাষ্ট্র সচিব জন কেরি সোমবার লইয়া-জির্গার দ্বারা গৃহীত নিরাপত্তা সংক্রান্ত দ্বিপাক্ষিক সমঝোতার সিদ্ধান্ত সমর্থন করেছেন, যা অনুযায়ী, মার্কিনী সামরিক বাহিনী এ দেশে থাকতে পারবে ২০১৪ সালের পরেও. 

সিরিয়ার রাসায়নিক অস্ত্র ভূমিতে নষ্ট করা নিয়ে সহমতে আসা সম্ভব হচ্ছে না. রাসায়নিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ সংস্থার বিশেষজ্ঞরা এবারে তা সমুদ্রে নষ্ট করার সম্ভাবনা খতিয়ে দেখছেন. নিরপেক্ষ জলসীমা কতখানি বিষাক্ত দ্রব্য নষ্ট করার জন্য উপযুক্ত জায়গা, তা নিয়ে আলোচনা করেছেন “রেডিও রাশিয়ার” বিশেষজ্ঞরা.

আগের
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30
নভেম্বর 2013
ঘটনার সূচী
নভেম্বর 2013
4
17
23
24