×
South Asian Languages:
যৌথ নিরাপত্তা, এপ্রিল 2012
ইরান ও আন্তর্জাতিক পারমানবিক শক্তি এজেন্সী তেহেরানের পারমানবিক প্রকল্পের বিষয়ে আলাপ-আলোচনা নতুন করে শুরু করবে ভিয়েনায় ১৩ই মে. এজেন্সীতে ইরানের প্রতিনিধি আলি আসগর সোলতানিয়ের সূত্র ধরে ‘ফ্রান্স প্রেস’ সংবাদসংস্থা এই খবর দিচ্ছে. সোলতানিয়ে বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন, যে এই ঘটনা প্রমাণ করে, যে ইরান পারমানবিক শক্তি এজেন্সীর সাথে সহযোগিতা করতে প্রস্তুত এবং তার পারমানবিক প্রকল্প পুরোপুরি শান্তিপূর্ণ.
        মায়ানমার পশ্চিমের জন্য আর মন্দের অক্ষরেখা হয়ে থাকছে না. ইউরোপীয় সঙ্ঘ রেঙ্গুনে নিজেদের প্রতিনিধি দপ্তর খুলতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে ও আগে ঘোষিত সমস্ত নিষেধাজ্ঞার মধ্যে একমাত্র অস্ত্র বিক্রয় সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা ছাড়া বাকী সব গুলি চালু না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে.
    রাশিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক ভ্লাদিভস্তক শহরে এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অর্থনৈতিক সহযোগিতা সংস্থার শীর্ষ বৈঠক, সোচী শীত অলিম্পিক, কাজান শহরের ইউনিভার্সিয়াডের জন্য নিরাপত্তা রক্ষার কাজে উদ্ভাবনী প্রযুক্তি নির্মিত “বুদ্ধিমান” যন্ত্র কেনার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে. এই সব “বুদ্ধিমান” যন্ত্র সন্ত্রাসবাদী হানার সম্বন্ধে আগে থেকে জানতে সাহায্য করবে.
     সামুদ্রিক জলদস্যূদের আক্রমণের সংখ্যা বিগত কয়েক মাস ধরে অনেক কমে গিয়েছে. আন্তর্জাতিক সামুদ্রিক ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী প্রথম ত্রৈমাসিকে ১০২টি জলদস্যূ আক্রমণ নথিভুক্ত করা হয়েছে. গত ২০১১ সালের একই সময়ে ঘটেছিল ১৪২টি আক্রমণের ঘটনা.
২৪শে এপ্রিল থেকে ‘সামুদ্রিক পারস্পরিক সহযোগিতা-২০১২’ নামক রুশী-চীনা সামরিক প্রশিক্ষণের সক্রিয় পর্যায় শুরু হল. তিনদিন ধরে দুইদেশের সামরিক নাবিকরা পীতসাগরে রকেটবিরোধী, নৌবিরোধী প্রতিরক্ষা, সামুদ্রিক সরবরাহ ও সামুদ্রিক পরিবহন যান প্রহরা দিয়ে নিয়ে যাওয়ার মহড়া দেবে সম্মিলিতভাবে. লক্ষ্য – সন্ত্রাসবাদী ও বিপজ্জনক সামুদ্রিক এলাকায় জলদস্যুদের সাথে সংগ্রাম.
        ব্রাসেলসে রাশিয়া ও ন্যাটোর পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে. দুই পক্ষের জয়ন্তী বৈঠক উপলক্ষ্যে উভয়ই নানা বিষয় ঐক্যমতে পৌঁছার একটি সুযোগ পেয়েছে. বিশেষত রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা সংক্রান্ত প্রশ্নের সমাধান করা. শিকাগোতে আসন্ন ন্যাটোর সম্মেলনে এ বিষয়টি সত্যিই অনেক বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে.
    ব্রাসেলস শহরের রাশিয়া – ন্যাটো পরিষদের আলোচনার পরে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রী সের্গেই লাভরভ এই কথা বলেছেন. তিনি উল্লেখ করেছেন যে, রাশিয়ার সঙ্গে ব্যতিক্রমী ভাবেই আমেরিকার অস্ত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সীমান্তের বাইরে রয়েছে ও সেখানে, যে জায়গায় এই গুলি রাখা হয়েছে, তাতে ব্যবহার করার উপযুক্ত পরিকাঠামো রয়েছে.
    বিশ্বাস করো, তবুও পরীক্ষা করো – ঠিক এই ভাবেই রাশিয়ার পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রধান সের্গেই লাভরভ ন্যাটো জোটের নেতৃত্বের সেই ঘোষণা যে, ইউরোপীয় রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা রাশিয়ার স্বার্থের বিরুদ্ধে করা হচ্ছে না, তার সম্বন্ধে মন্তব্য করেছেন. এই ঘোষণা করা হয়েছে রাশিয়া ন্যাটো সভার জয়ন্তী বর্ষপূর্তি সভায়, যেটি বৃহস্পতিবারে ব্রাসেলস শহরে অনুষ্ঠিত হয়েছে.
    বিশ্বে খুবই প্রসারিত ভাবে আলোচনা করা হচ্ছে ইস্তাম্বুলে ইরান ও “ ছয় পক্ষের ” মধ্যস্থতাকারী দলের (রাশিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, গ্রেট ব্রিটেন, ফ্রান্স, চিন ও জার্মানী) প্রতিনিধিদের মধ্যে ইরানের পারমানবিক সমস্যার সমাধান সংক্রান্ত আলোচনার ফলাফল নিয়ে.
১৬-১৯শে এপ্রিল মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুর শহরে আয়োজিত ডি এস এ – ২০১২ আন্তর্জাতিক এশিয়া সামরিক অস্ত্র ও প্রযুক্তি প্রদর্শনীতে রাশিয়ার কোম্পানী গুলি ৪০০টিরও বেশী আধুনিক উত্পাদিত বস্তু দর্শকদের সামনে উপস্থিত করতে চলেছে. এই প্রদর্শনী করা হয়ে থাকে প্রতি দুই বছরে একবার করে মালয়েশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় ও জাতীয় পুলিশ দপ্তরের উদ্যোগে.
    শুক্রবারে মস্কোতে রিক (রাশিয়া, ভারত, চিন) দেশ গুলির পররাষ্ট্র মন্ত্রী সের্গেই লাভরভ, এস. এম. কৃষ্ণ ও ইয়ান শ্জেচির বৈঠক সম্পন্ন হয়েছে. মন্ত্রীরা বিশ্ব রাজনীতির সবচেয়ে তীক্ষ্ণ সমস্যা গুলি নিয়ে আলোচনা করেছেন. কিন্তু প্রধান প্রশ্ন, যা পর্যবেক্ষকরা এই কাঠামোর একেবারেই প্রথম উদয়ের দিন থেকেই করে আসছেন, তা আপাততঃ শেষ অবধি সমাধান করা হয় নি.
 বিফল হওয়া নিয়ে আন্তর্জাতিক সমাজ প্রতিক্রিয়া প্রদর্শন করেছে. রাষ্ট্রসঙ্ঘের মহাসচিব বান গী মুন একে নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্ত বিরোধী বলেছেন. ন্যাটো জোটে এই উড়ানের সমালোচনা করা হয়েছে ও উত্তর কোরিয়ার প্রশাসনকে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্ত অমান্য করতে নিষেধ করা হয়েছে, যেখানে উত্তর কোরিয়ার উপরে ব্যালিস্টিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে রকেট উড়ান করা নিষেধ করা হয়েছিল.
সিরিয়া সঙ্কটের নিয়ন্ত্রণের সময় সীমা, ইরানের পারমানবিক পরিকল্পনা ও কোরিয়া উপদ্বীপ অঞ্চলে উত্তেজনা উদ্রেক কারী পরিস্থিতি – ওয়াশিংটনে জি ৮ গোষ্ঠীর দেশ গুলির পররাষ্ট্র মন্ত্রীরা আন্তর্জাতিক রাজনীতির মুখ্য সমস্যা গুলি নিয়ে নিজেদের অবস্থান সময়োপোযোগী কি না তা আলোচনা করে দেখেছেন. এই বৈঠক ছিল “জি ৮” শীর্ষ সম্মেলনের প্রস্তুতির জন্য সবচেয়ে বড় অধ্যায়.
সিরিয়ার প্রশাসন কোফি আন্নানের সঙ্কট নিয়ন্ত্রণের পরিকল্পনা বাস্তবায়নের কাজ শুরু করেছে. কিন্তু এই দেশে হিংসা বন্ধ করা সম্ভব, যদি বিরোধের সমস্ত পক্ষই যোগাযোগের মাধ্যমে কাজ করে, এই কথাই আজ ঘোষণা করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রধান সের্গেই লাভরভ, তাঁর সিরিয়ার সহকর্মী ওয়ালিদ মুয়াল্লিমের সঙ্গে আলোচনার শেষে.
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সিঙ্গাপুরকে চিনের বিরুদ্ধে সামরিক জোটে টেনেছে. এই ভাবেই ভূ- রাজনৈতিক সমস্যা গবেষণা একাডেমীর সভাপতি লিওনিদ ইভাশভ সিঙ্গাপুরে চারটি মার্কিন যুদ্ধ জাহাজ রাখা নিয়ে চুক্তি সম্বন্ধে মন্তব্য করেছেন. এই জাহাজ গুলি বিশেষ করে তৈরী করা হয়েছে সমুদ্র তীরবর্তী এলাকায় অপারেশন করার উপযুক্ত করে ও সেগুলি এখানে থাকবে বদলী হিসাবে. প্রথম এই ধরনের জাহাজ অঞ্চলে আসবে এই বছরের শেষের আগেই.
    “টাইমস” সংবাদপত্রে প্রকাশ করা হয়েছে যে, শনিবারে ইস্তাম্বুলে “ছয় পক্ষের” মধ্যস্থতাকারী প্রতিনিধি দলের সামনে (রাশিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, চিন, গ্রেট ব্রিটেন, ফ্রান্স ও জার্মানী) এই পথের কথা বলবেন ইউরোপীয় সঙ্ঘের পররাষ্ট্র বিষয়ক হাই কমিশনার ক্যাথরিন অ্যাস্টন.
কিম চেন ঈন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা তৈরীতে সাহায্য করছেন, যার লক্ষ্য চিন ও রাশিয়াকে আটকে রাখা. অন্তত, এপ্রিলের মাঝামাঝি সময়ে উত্তর কোরিয়ার তরফ থেকে মহাকাশে উপগ্রহ পাঠানোর পরিকল্পনা ও পারমানবিক পরিকল্পনা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তরফ থেকে খুবই সক্রিয়ভাবে ব্যবহার করা হয়েছে এশিয়াতে রকেট বিরোধী ব্যবস্থা পত্তনের ভিত্তি হিসাবে.
মার্কিনী বিদেশ দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে, যে ‘শীর্ষ-৮’ দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা ২০১২ সালের ১১ই এপ্রিল ওয়াশিংটনে সাক্ষাত করবেন. পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রশ্ন নিয়ে, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক নিরাপত্তার প্রশ্নাবলী নিয়ে আলোচনা করবেন. পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন, যে মনোযোগের কেন্দ্রে থাকবে সিরিয়া ও ইরানের প্রশ্নে কূটনৈতিক নিষ্পত্তির পথ সন্ধান.
আমেরিকার জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের প্রতিনিধিরা হোয়াইট হাউসে মিশরের ‘মুসলমান ভাইয়েরা’ নামক পার্টির প্রতিনিধিদের অতিথি হিসাবে গ্রহণ করেছে. আজ এই সম্পর্কে জানিয়েছে মিশরের সংবাদপত্র ‘আল-আক্রম’. মিশরের প্রতিনিধিদল ঘোষণা করেছে, যে বিশ্বে আমেরিকার ভূমিকা তারা উপলব্ধি করে এবং তাই আমেরিকার সাথে পারস্পরিক সম্পর্ক উচ্চতর পর্যায়ে নিয়ে যেতে চায়.
আমেরিকার প্রশাসন গতকাল ঘোষণা করেছে, যে ২০০১ সালের ১১ই সেপ্টেম্বরের সন্ত্রাসের সংগঠক খালেদ শেখ মুহামেদ সহ সম্ভাব্য পাঁচজন সংগঠকের বিরূদ্ধে সরকারীভাবে অভিযোগ দায়ের করেছে. দোষারোপপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, যে উপোরক্ত বিচারাধীন ৫ জন ২০০১ সালের ১১ই সেপ্টেম্বরে নিউ-ইয়র্ক, ওয়াশিংটন ও শেঙ্কসভিলে সন্ত্রাসবাদী আক্রমণের চক্রান্ত করেছিল ও তা বাস্তবায়িত করেছিল.
আগের
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30
এপ্রিল 2012
ঘটনার সূচী
এপ্রিল 2012
1
2
4
6
7
8
11
15
16
18
21
23
25
29
30