×
South Asian Languages:
ইউরোপীয় সংঘ

সিরিয়া সঙ্কট সমাধানের জন্য “জেনেভা – ২” আন্তর্জাতিক সম্মেলনের শুরু হতে আর এক মাসের কম সময় রয়েছে. কিন্তু এখনও কারা অংশগ্রহণ করবে তা ঠিক হয় নি. বিরোধী পক্ষ ঠিক করে উঠতে পারছে না সুইজারল্যান্ডে কি নিজেদের প্রতিনিধি দল পাঠানো হবে, আর তা যদি হয়, তবে ঠিক কাকে. আর ইরানের যোগদান নিয়ে রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এখনও সমঝোতায় পৌঁছতে পারছে না.

২০১০ সালের ২৪শে ডিসেম্বর টিউনিশিয়ার সিদি-বুজিদে প্রথম বেন আলির প্রশাসনের বিরুদ্ধে গণ অভ্যুত্থান ঘটেছিল, যা “আরব বসন্তের” শুরু করেছিল. হাতে গোনা কয়েক সপ্তাহের মধ্যে উত্তর আফ্রিকায় দুটি প্রশাসনকে জনতার ঝড় ধুয়ে দিয়েছিল, যে দুটিই বহুদিন ধরে পশ্চিমের খুবই ভরসার জোটসঙ্গী হয়ে ছিল.

তারপরে ঘটনাচক্র দিক পরিবর্তন করেছে, আর ছড়িয়ে পড়েছে সেই সমস্ত দেশের উপরে, যাদের বেন আলির টিউনিশিয়া বা হোসনি মুবারকের ইজিপ্টের সঙ্গে খুব কমই অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক দিক থেকে মিল ছিল. “আরব বসন্ত” তারপরে ১৮০ ডিগ্রী দিক পরিবর্তন করেছে.

ইরান এবং “ছয় দেশের” (রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য পাঁচটি দেশ এবং জার্মানি) মাঝে বিশেষজ্ঞদের পর্যায়ে আলাপ-আলোচনা রবিবার জেনেভায় শেষ হয়েছে এবং তা ক্রমবিকশিত হবে ক্যাথলিক ক্রিসমাসের (যা পালিত হয় ২৫শে ডিসেম্বর) পরে.

পশ্চিমে বর্তমানে একটা ধারণা তৈরী হয়েছে যে, বাশার আসাদের শক্তি জয়ী হওয়া – সিরিয়াতে সম্ভাব্য সমস্ত ঘটনা পরম্পরার মধ্যে সবচেয়ে ভাল. ইউরোপীয় ও আমেরিকার সরকারি নেতারা আপাততঃ সরাসরি এই বিষয়ে কথা বলছেন না, কিন্তু সিরিয়ার বিদ্রোহীদের দিকে সহায়তা ক্রমশ কমিয়ে দিচ্ছে. তারই মধ্যে দামাস্কাস পরিকল্পিত ভাবেই নিজেদের রাসায়নিক অস্ত্রের ভাণ্ডার ধ্বংস করার কাজ করে চলেছে. এই প্রক্রিয়া নিরাপদে করার কাজে সাহায্যের আশ্বাস তাদের দিয়েছে রাশিয়া.

ইরানের উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্বাস আরাকচি ঘোষণা করেছেন যে, ইরানের পারমাণবিক সমস্যা সমাধান নিয়ে আগে হওয়া সমঝোতা বাস্তবায়ন করা নিয়ে বিশেষজ্ঞ পর্যায়ে প্রযুক্তিগত আলোচনা রবিবারেও জেনেভা শহরে চলবে. “ইর্না” সংবাদ সংস্থা জানিয়েছে যে, আরাকচি এই আলোচনায় “সামান্য অগ্রগতির” কথা উল্লেখ করেছেন. আগে জানানো হয়েছিল যে, বিশেষজ্ঞ পর্যায়ে আলোচনা বৃহস্পতিবারে শুরু হয়ে শুক্রবারে শেষ হবে, তারপরে জানানো হয়েছিল যে, কম করে হলেও একদিন আরও এই আলোচনা চলবে ও হবে শনিবার পর্যন্ত. এই পর্যায়ের আলোচনা আগের বারে শুরু হয়েছিল ভিয়েনা শহরে ৮ই ডিসেম্বর ও তা মতের অমিল থাকায় ইরানের তরফ থেকে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল.

সিরিয়াতে বিশেষ ভাবে রাসায়নিক অস্ত্র বহনের উপযুক্ত রুশ মালবাহী গাড়ীর প্রথম দফায় পাঠানো দল পৌঁছে গিয়েছে. এই দেশের এলাকায় থাকা বিষাক্ত পদার্থের ভাণ্ডার থেকে এবারে লাতাকিয়া বন্দরে পাঠানোর কাজ শুরু হতে চলেছে, সেখানে এই বিষাক্ত পদার্থ জাহাজে চড়ানো হবে.

প্রথমে ধরে নেওয়া হয়েছিল যে, সবচেয়ে বিপজ্জনক রাসায়নিক অস্ত্র সিরিয়া থেকে ৩১শে ডিসেম্বরের আগেই নিয়ে যাওয়া হবে. এই প্রসঙ্গে সেগুলো বন্দরে নিয়ে যাওয়ার দায়িত্ব থাকবে সিরিয়ার সামরিক বাহিনীর. কিন্তু দামাস্কাসের কাছে এই ধরনের দায়িত্বপূর্ণ কাজ করার মতো প্রয়োজনীয় গাড়ী নেই. কারণ বিষাক্ত বস্তু বিপজ্জনক ও তা সাধারণ মালবাহী গাড়ীতে চড়ানোর উপায় নেই. তার ওপরে এই ধরনের পদার্থের পরিমাণ প্রায় ১৩০০ টন. এই ধরনের কাজের অভিজ্ঞতা না থাকলে ও বিশেষ রকমের যন্ত্রপাতি না থাকলে তা করা অসম্ভব, এই রকম মনে করেই রিসি নামক প্রতিরক্ষা গবেষণা সংক্রান্ত কেন্দ্রের প্রধান গিওর্গি তিশ্যেঙ্কো বলেছেন:

পাশ্চাত্য সিরিয়ার রাষ্ট্রপতির পদ থেকে বাশার আসদের বাধ্যতামূলক অপসারণের দাবি সাময়িকভাবে তুলে নিতে পারে, গত রাতে জানিয়েছে “আল-আরাবিয়া” টেলি-চ্যানেল. 

ব্রাসেলসে মঙ্গলবার ক্যাথ্রিন অ্যাশটন ইরানের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্বাস আরাগচি-র সাথে সাক্ষাত্ করছেন, এভাবে ইরানী পক্ষের সাথে নভেম্বরে শুরু হওয়া আলাপ-আলোচনার ক্রমবিকাশ করছেন

সোমবারে তুরস্কের প্রশাসন ইউরোপীয় সঙ্ঘের সঙ্গে পুনঃপ্রবেশ চুক্তি স্বাক্ষর করেছে, এই দলিলে স্বাক্ষর করেছেন প্রজাতন্ত্রের স্বরাষ্ট্র দপ্তরের মন্ত্রী মুয়াম্মার গ্যুলের ও ইউরোপীয় সঙ্ঘের স্বরাষ্ট্র দপ্তরের কমিশনার সেসিলিয়া মালমস্ট্রম. তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী রেঝেপ এর্দোগান এই স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে বলেছেন যে, আজ থেকে ইউরোপীয় সঙ্ঘের ও তুরস্কের নতুন সম্পর্কের শুরু. তাঁর কথামতো, “একটা ধারণা রয়েছে যে, ভিসা বন্ধ হলে তুরস্ক থেকে লোকের ঢেউ আছড়ে পড়বে ইউরোপে, কিন্তু এখন তুরস্ক হয়েছে একটি ফিরে আসার ও নতুন করে আসার দেশ”. এর্দোগান উল্লেখ করেছেন যে, ১১ বছরে দেশ ৭৫ লক্ষ মানুষের কর্মসংস্থান করেছে, আর তুরস্কে এখন বেড়ানোর সংস্কৃতি তৈরী হয়েছে. তুরস্কের বিমান বর্তমানে বিশ্বের ২৩৬টি জায়গায় যায়. তুরস্কের সঙ্গে ইউরোপীয় সঙ্ঘের ভিসা ব্যবস্থা তুলে নিতে এখনও তিন থেকে সাড়ে তিন বছর সময় লাগবে. তুরস্কের পার্লামেন্টকে এই চুক্তি গ্রহণের জন্য দেওয়া হবে.

ঠিক দুই বছর আগে বাগদাদে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক পতাকা নামিয়ে নেওয়া হয়েছিল. এটা ছিল একটা প্রতীকী ব্যাপার, যা করা হয়েছিল, স্রেফ দেখানোর জন্যই যে, ইরাক থেকে মার্কিন সেনাবাহিনী চলে যাচ্ছে. আগামী বছরে, সব দেখে শুনে মনে হয়েছে যে, আমেরিকার সেনাবাহিনীর মূল অংশ আফগানিস্তান থেকেও নিয়ে যাওয়া হতে চলেছে.

কিছু লোক মনে করেছেন যে, ওয়াশিংটন রাজনৈতিক দিক থেকেও মধ্য ও নিকট প্রাচ্য থেকে নিজেদের প্রভাব কম করছে – আর এটা বিগত সময়েই বেশী করে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে.

ইউরোসঙ্ঘের পরিষদ সোমবার “সিরিয়া সম্পর্কে নিজের নিষেধ ব্যবস্থায় একসারি সুনির্দিষ্টতা আনবে”. 

ইউক্রেন ইউরো-অঙ্গীভূতী ধারা অনুসরণ করে যাবে. এ সম্বন্ধে বলেছেন দেশের রাষ্ট্রপতি ভিক্টর ইয়ানুকোভিচ বলেছেন মার্কিনী সিনেটার জন ম্যাককেইন ও ক্রিস মার্ফি-র সাথে সাক্ষাতে.

ইরানের পারমাণবিক সমস্যা, সিরিয়া সম্পর্কে সম্মেলন আয়োজনের পরিপ্রেক্ষিত, এবং তাছাড়া ইউক্রেনের পরিস্থিতি. এ বিষয়গুলি ছিল “রস্সিয়া-২৪” টেলি-চ্যানেলকে প্রদত্ত রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরোভের ইন্টারভিউর মুখ্য বিষয়.

হিংসার পথ পরিত্যাগ করে ইউক্রেনের লোকদের উচিত্ আলোচনার পথ নেওয়া. এই কথা বলেছেন রাষ্ট্রসঙ্ঘের প্রতিনিধি মার্টিন নেসিরকি, তিনি সাংবাদিকদের অনুরোধে মার্কিন পররাষ্ট্র সচিবের সহকারী ভিক্টোরিয়া ন্যুল্যান্ডের কিয়েভ সফরের বিষয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে এই কথা বলেছেন. তিনি বলেছেন যে, দেশের রাজনৈতিক সঙ্কটের নিরসনে প্রয়োজন রাজনৈতিক দল ও সমাজের মধ্যে আলোচনা, বহু দেশই এখন উদ্বেগের সঙ্গে ইউক্রেনের পরিস্থিতির দিকে তাকিয়ে রয়েছে, যেখানে রাস্তায় ও নানা জায়গায় প্রশাসন বিরোধী আন্দোলন করা হচ্ছে.

ইউক্রেনের রাষ্ট্রপতি ভিক্টর ইয়ানুকোভিচ বলেছেন যে, তিনি সেই সমস্ত সরকারি কর্মচারীদের বরখাস্ত করবেন, যারা ইউরোপীয় সঙ্ঘের সঙ্গে যোগদানের বিষয়ে ইউক্রেনের হয়ে দলিল তৈরী করেছে. এই দলিল তৈরী করা হয়েছে জাতীয় স্বার্থের ক্ষতি করে, তিনি এই ঘোষণা করেছেন এক গোল টেবিল বৈঠকে, যা সারা দেশের প্রতিনিধিত্বের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হয়েছে. এই প্রসঙ্গে ইয়ানুকোভিচ আশ্বাস দিয়েছেন যে, ইউক্রেন ইউরোপীয় সমাকলনের বিষয় না করছে না ও তা করতেও চায় না.

রাশিয়ার পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রধান ইরান সফরে গিয়েছিলেন, যেখানে তিনি তাঁর সহকর্মী জাভাদ জারিফের সঙ্গে আলোচনা করেছেন আর তাঁর সঙ্গে ঐস্লামিক প্রজাতন্ত্র ইরানের রাষ্ট্রপতি হাসান রোহানি দেখা করেছেন.

যদিও এই সফরকে আনুষ্ঠানিক ভাবে কার্যকরী বলা হয়েছে, তবুও তার সংজ্ঞা সাধারণ দ্বিপাক্ষিক অনুষ্ঠানের বাইরেই হয়েছে. এই প্রসঙ্গে আমাদের সমীক্ষক ভ্লাদিমির সাঝিন মন্তব্য করেছেন.

ইউক্রেনে ইউরোপীয় সঙ্ঘের সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তিতে স্বাক্ষর না করার ফলে প্রবল বিরোধ বিক্ষোভের মধ্যেই সেই দেশের রাষ্ট্রপতি ভিক্টর ইয়ানুকোভিচ চিনের শেনসি প্রদেশের সিয়ান শহরে এক সরকারি সফর করতে চলে গিয়েছেন বলে খবর দিয়েছে ইউক্রেনের রাষ্ট্রপতির প্রশাসনের দপ্তর থেকে.

সিঝান মহাকাশ উড়ান ক্ষেত্র থেকে “ইউইটু” চন্দ্রযান নিয়ে “চাঙ্গ-এ- ৩” মহাকাশ যানের সফল উড়ান হয়েছে. ডিসেম্বরের মাঝামাঝি পৃথিবীর একমাত্র প্রাকৃতিক উপগ্রহের পিঠে চন্দ্রযান ইউইটু অথবা “লাল খরগোশ বাগি” নেমে পড়বে, যাতে চাঁদের মাটির নমুনা নেওয়া সম্ভব হয় ও সেখানে প্রয়োজনীয় খনিজের সন্ধান করা যেতে পারে. এর পরের অধ্যায় হবে চিনের মহাকাশচারীদের চাঁদে যাওয়া, যা ২০২০ সালের পরে হতে পারে.

ইরানের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের সম্ভাবনা বিশেষজ্ঞদের খনিজ তেলের বাজারে একেবারেই নানা রকমের ভবিষ্যত সম্ভাবনা ব্যক্ত করতে আগ্রহী করেছে. বিশ্বের বাজারে বৃহত্ পরিমানে ইরানের খনিজ জেল উপস্থিত হলে তা এই কালো সোনার দামের ক্ষেত্রে অনেকটাই প্রভাব ফেলতে পারে.

২০১২ সাল পর্যন্ত তেহরান ওপেক সংস্থার সদস্য দেশগুলোর মধ্যে উত্পাদনের বিষয়ে দ্বিতীয় স্থানে ছিল. প্রতিদিনে তারা ৩৫ লক্ষ ব্যারেল খনিজ তেল উত্পাদন করত, যা ২৩টি দেশে সরবরাহ করত. পশ্চিমের দেশগুলো থেকে নিষেধাজ্ঞা বহালের পরে বিশ্বের বাজারে তেহরানের জায়গা ভাগ করে নিয়েছিল ওপেক সংস্থার অন্যান্য অংশীদার দেশরা, প্রাথমিক ভাবে ইরাক. বিগত সময়ে ইরান দিনে মাত্র সাত লক্ষ ব্যারেল তেল উত্পাদন করত, যা চিনে যেত, আর তারই সঙ্গে তাইওয়ান, ভারত, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান ও তুরস্কে যেত.

শিল্পকলা নিয়ে অকশনে বিশ্ব বিখ্যাত সোঠবি সংস্থা চিনের মূল ভূখণ্ডে প্রথম অকশন করে তিন কোটি সত্তর লক্ষ ডলার সংগ্রহ করতে পেরেছে. খবর দিয়েছে ব্লুমবর্গ সংস্থা.

অকশনে চিনা-ফরাসী শিল্পী জাও ভু-কি অঙ্কিত বিমূর্ত নামের ছবি এক কোটি সাতচল্লিশ লক্ষ ডলারে বিক্রী হয়েছে, যা এই শিল্পীর আঁকা ছবির সর্ব্বোচ্চ দাম.

আগের
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
অক্টোবর 2017
ঘটনার সূচী
অক্টোবর 2017
1
2
3
4
5
6
7
8
9
10
11
12
13
14
15
16
17
18
19
20
21
22
23
24
25
26
27
28
29
30
31