×
South Asian Languages:
মহাকাশ, আগষ্ট 2012
অ্যাস্ট্রোনট সুনিতা উইলিয়মস এবং আকিহিকো হোসিদে খোলা মহাশূন্যে কাজের পরে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে ফিরে এসেছেন. প্রায় রেকর্ড সময় – ৮ ঘন্টা ১৭ মিনিট – মহাকাশে “ভ্রমণ” সত্ত্বেও তাঁরা পুরোপুরি শেষ করতে পারেন নি প্রধান কর্তব্য – খারাপ হয়ে যাওয়া এনার্জি সিস্টেম কমিউনিকেশন ব্লক বদল করা. এই ব্লক গুলির কাজ হল এনার্জি বণ্টন করা এবং সরঞ্জামগুলিতে ভোল্টেজ বজায় রাখা.
রাশিয়ার রসকসমস সংস্থা স্থির করেছে পৃথিবীর কাছের কক্ষপথে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে আবার “মঙ্গল – ৫০০” নামের পরীক্ষা করে দেখার. এর জন্য আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে মহাকাশচারীদের পাঠানো হবে এক বছরের জন্য, যা সাধারন ভাবে চলে আসা মহাকাশে যাত্রার চেয়ে দ্বিগুণ বেশী সময়ের.
আমেরিকার মহাকাশচারী, যিনি প্রথম চাঁদে পা ফেলেছিলেন, সেই নীল আর্মস্ট্রং ৮৩ বছর বয়সে পরলোকগমন করেছেন. আগস্টের শুরুতে তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন. নীল আর্মস্ট্রংয়ের জন্ম হয়েছিল ১৯৩০ সালের ৫ই আগস্ট ওহাইও স্টেটের ওয়াপাকনেটা গঞ্জে. তিনি ১৯৫০-১৯৫৩ সালে কোরিয়া যুদ্ধে যোগ দিয়েছিলেন, যেখানে ৭৮ বার শত্রুদের বিমানযোগে আঘাত করেছিলেন, একবার তিনিও আহত হয়েছিলেন.
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের “নাসা” এজেন্সি “কিউরিওসিটি” মঙ্গলগ্রহ-যানের ছবি প্রকাশ করেছে, যাতে মঙ্গলগ্রহের পৃষ্ঠভাগে তার সফল প্রথম যাত্রা দেখা যাচ্ছে. ছবিতে এ যানের অবতরণ-স্থল থেকে যাত্রার চিহ্ণ দেখা যাচ্ছে. বিজ্ঞানীরা বলছেন যে, পরীক্ষামূলক যাত্রায় গবেষণাধীন মোডুলের মোড় ঘোরার ক্ষমতা প্রমাণিত হয়েছে. তাঁরা আশা করেন যে, এই যানটি দিনে কয়েক দশক মিটার অতিক্রম করতে পারবে.
ভারত পরিকল্পনা করেছে ২০১৩ সালের নভেম্বর মাসে মঙ্গল গ্রহের কক্ষপথে এক বৈজ্ঞানিক যন্ত্র পাঠানোর. দেশের প্রধানমন্ত্রী ডঃ মনমোহন সিংহের কথামতো, দেশের মন্ত্রীসভা এই মিশনের ধারণাকে সমর্থন করেছে, যা তুলনামূলক ভাবে খুবই কম খরচ অর্থাত্ মাত্র ৮ কোটি ২০ লক্ষ ডলার দিয়েই সম্পন্ন হয়ে যাবে.
নাসা-র বিশেষজ্ঞরা মঙ্গলগ্রহ-যান “কিউরিওসিটি-র” অবতরণের সঠিক স্থান হিসেব করে নিরুপণ করতে সক্ষম হয়েছেন. মার্কিনী মহাকাশ সংস্থা “গেইল” ক্রেটারের কয়েকটি ছবি প্রকাশ করেছে, যাতে মহাকাশ সরঞ্জামের অবস্থান-স্থল চিহ্নিত রয়েছে. মঙ্গলগ্রহ-যান পৃথিবীতে নতুন সব উচ্চ মানের ছবি পাঠিয়েছে, যাতে মঙ্গলগ্রহের প্রাচীন সব নদীর চিহ্ন দেখতে পাওয়া যাচ্ছে.
বিশ্বের জনগনকে প্রকৃতি আবহাওয়া দিয়ে তাদের সহ্য শক্তির পরীক্ষা করছে – প্রচণ্ড গরম আর দাবানল ইউরোপে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, অস্ট্রেলিয়াতে বহু লোক সরাসরি টের পেয়েছেন. আর এশিয়ার বহু দেশেই প্রবল বর্ষণ থেকে বন্যা ও ধ্বস নেমে লোকে কষ্ট পাচ্ছেন. সাধারন লোকের মাথায় একটাই শুধু ব্যাখ্যা আসছে: এই তো দেখতে পাওয়া যাচ্ছে বিশ্বের উষ্ণায়নের পরিনাম. আর আবহাওয়ার সঙ্গে আসলে কি ঘটছে?
মহাকাশ সরঞ্জাম “কিউরিওসিটি” গত মঙ্গলবার মঙ্গল গ্রহের প্রথম রঙীন ফোটো পাঠিয়েছে. এ ফোটোতে দেখা যাচ্ছে গ্রহের উত্তরাংশের প্রাকৃতিক দৃশ্য. পিছনের দিকে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে হেইলা ক্রেটার. ফোটোটি খুব স্পষ্ট নয় – হয়তো মঙ্গলগ্রহ-যান নামার সময় ওড়া ধুলার জন্য. তাছাড়া নাসা-র টুইটারে বসানো আছে মঙ্গল গ্রহে এ যানের নামার সময়ের ভিডিও রেকর্ড. মঙ্গল গ্রহে এ যান নেমেছিল সোমবার.
মঙ্গলগ্রহ-যান “কিউরিওসিটি” লাল গ্রহের পৃষ্ঠভাগের প্রথম কিছু ছবি পৃথিবীতে পাঠিয়েছে. নাসা-তে জানানো হয়েছে যে, তা ঘটেছে আট মাস ব্যাপী মহাকাশযাত্রার পরে মঙ্গল গ্রহে নামার ঠিক পরেই, এ যাত্রা বাস্তবিকপক্ষে আন্দাজেই চালানো হয়েছে : আমাদের গ্রহ থেকে মঙ্গল গ্রহ এত দূরে অবস্থিত যে, বেতার তরঙ্গকে এ দূরত্ব অতিক্রম করতে প্রায় ১৪ মিনিট লাগে.
প্রকাশ্য ভোটের মাধ্যমে ইন্টারনেট ইউজাররা তৃতীয় সহস্রাব্দের প্রতীক হিসাবে পান্ডা সহ ১১টি প্রাণী ও বস্তু বাছাই করেছে. এই সহস্রাব্দের অন্যান্য প্রতীকগুলিকে তিন ভাগে ভাগ করা যায়. প্রথম ভাগ – পরিবেশগত ও প্রযুক্তিগতঃ জলের ফোঁটা, বিদ্যুত উত্পাদনের জন্য উইন্ডমিল, শান্তিপূর্ণ পরমানু. দ্বিতীয় ভাগ – সামাজিক দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ সব বিজ্ঞাপনঃ ধুমপান করা বন্ধ করো, নোংরা কোরো না.
মালবাহী মহাকাশযান “প্রোগ্রেস” বৃহস্পতিবার সকালে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের সাথে সফলভাবে সংযোগ স্থাপন করেছে. মস্কো সময় অনুযায়ী সকাল ৫টা ১৮ মিনিটে স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থায় এ সংযোগ স্থাপিত হয়. এই প্রথম “প্রোগ্রেস” মহাকাশযান স্টেশনের সাথে সংযোগ স্থাপন করেছে তথাকথিত “দ্রুত স্কীম” অনুযায়ী – “সোয়ুজ” বাহক রকেট ক্ষেপণের সময় থেকে কেটেছে ছয় ঘন্টারও কম সময়.
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
আগষ্ট 2012
ঘটনার সূচী
আগষ্ট 2012
1
3
4
5
7
10
11
12
13
14
16
17
18
19
20
22
24
25
27
28
30