×
South Asian Languages:
কোরিয়া, 12 এপ্রিল 2013
রাশিয়ার আকাশ ও মহাকাশ প্রতিরক্ষা বাহিনী উত্তর কোরিয়ার সম্ভাব্য রকেট ক্ষেপণকে কেন্দ্র করে পরিস্থিতির প্রতি লক্ষ্য রাখছে, শুক্রবার বলেছেন উপ-প্রধানমন্ত্রী দমিত্রি রগোজিন.
প্রাথমিক মতভেদ থাকা সত্বেও জি-৮এর দেশগুলির পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা মুখ্য আন্তর্জাতিক সমস্যাবলীর বিষয়ে সহমতে পৌঁছাতে সমর্থ হয়েছেন. লন্ডনে সাক্ষাত্কারের ফলাফল বিশ্লেষণ করে এই উক্তি করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরোভ. আমরা সমর্থ হয়েছি ইরানের পারমানবিক প্রকল্প, কোরিয় উপদ্বীপে পারমানবিক সমস্যা, সিরিয়ায় সংকট, আফ্রিকায় চলতি সব সংঘাতের প্রশ্নে একইধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে.
“জি-৮” গ্রুপের সদস্য দেশগুলির পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা গুরুতর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে, যদি উত্তর কোরিয়া পরবর্তী রকেট ক্ষেপণ করে অথবা পারমাণবিক পরীক্ষা চালায়. এ সম্বন্ধে বৃহস্পতিবার বলেছেন বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী উইলিয়াম হেগ লন্ডনে “জি-৮” সাক্ষাত্ শেষ হওয়ার পরে.
শুক্রবার মার্কিনী বিদেশ দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে, যে আমেরিকার মতে, চীন কোরিয় উপদ্বীপে চলতি সমস্যাবলীর সমাধানের ক্ষেত্রে আরো অনেক বেশি সক্রিয় ভূমিকা নিতে পারে. “চীনের স্থিতিশীলতা অর্জন করার জন্য যথেষ্ট ক্ষমতা রয়েছে, আর পারমানবিক রকেটের পেছনে চলতে থাকা উত্তর কোরিয়ার দৌড় – স্থিতিশীলতার পরম শত্রু” – বলেছেন মার্কিনী বিদেশ দপ্তরের নামোল্লেখ না করা প্রতিনিধি.
  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা ঘোষণা করেছেন, যে উত্তর কোরিয়ার সময় হয়েছে আঘাত হানার ও যুদ্ধ শুরু করার রাজনীতি বন্ধ করার. বৃহস্পতিবার জাতিসংঘের সাধারণ সম্পাদক বান কি মুনের সাথে হোয়াইট হাউসে সাক্ষাতের পর ওবামা বলেছেন, যে তারা উভয়েই এই বিষয়ে একমত, যে উত্তর কোরিয়ার যৌধেয় অভিযান বন্ধ করার সময় হয়েছে, যে নীতি তারা অবলম্বন করে চলেছে.
আঞ্চলিক বিরোধ গুলি রাজনৈতিক- কূটনৈতিক পথেই মীমাংসা করা প্রয়োজন. অর্থনৈতিক ভাবে বৃহত্ অষ্ট দেশের পররাষ্ট্র প্রধানদের পক্ষে সম্ভব হয়েছে আন্তর্জাতিক সমস্যা গুলির সমাধান নিয়ে সম্মিলিত অবস্থান গ্রহণ করার. লন্ডনে এই জি৮ পররাষ্ট্র মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক শেষ হয়েছে. ইরানের পারমানবিক পরিকল্পনা, কোরিয়া উপদ্বীপ এলাকায় পরিস্থিতি ও সিরিয়া – বৈঠকের আলোচ্য তালিকায় সবচেয়ে তীক্ষ্ণ বিষয় ছিল.
যদি দক্ষিণ কোরিয়া সংঘাতের রাজনীতি বর্জন না করে, তাহলে উত্তর কোরিয়া ক্যাসোন শিল্প তালুক একেবারেই বন্ধ করে দেওয়ার হুমকি দিয়েছে. এই ঘোষণা করেছেন বিশেষ তালুক পরিচালন বিভাগের প্রতিনিধি. তিনি যোগ করেছেন, যে নিজের শ্রমিকদের ক্যাসোন থেকে দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার বিষয়ে পিয়ংইয়ংয়ের সিদ্ধান্ত হচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্ররোচনাপন্থী কার্যকলাপের প্রত্যুত্তর.
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30
এপ্রিল 2013
ঘটনার সূচী
এপ্রিল 2013
21
22
25
26
27
28