×
South Asian Languages:
কোরিয়া, 8 এপ্রিল 2013
সিওল শহর বিদেশী সাংবাদিকে ভরে গিয়েছে. তাঁরা এখানে উড়ে এসেছেন, যাতে তাঁরা সেই বিষয়ে খবরে ভরিয়ে দিতে পারেন, যা তাঁদের সম্পাদকরা মনে করেছেন এক গুরুতর আন্তর্জাতিক সঙ্কট বলে. বিশ্বের সংবাদ মাধ্যম জানাচ্ছে যে, কোরিয়ার উপদ্বীপ এলাকা বর্তমানে পারমানবিক যুদ্ধের সামনে এসে দাঁড়িয়েছে. কিন্তু এটা বিশ্বাস করার কি দরকার রয়েছে? বিদেশী সাংবাদিকরা সিওলের রাস্তায় খুবই তন্নতন্ন করে আতঙ্কের চিহ্ন খুঁজছেন.
উত্তর কোরিয়া চতুর্থ পারমাণবিক পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতির লক্ষণ প্রদর্শন করছে, সোমবার বলেছেন দক্ষিণ কোরিয়ার ঐক্য সংক্রান্ত মন্ত্রী রিউ কিল-জায়ে. পার্লামেন্টে প্রদত্ত বক্তৃতায় তিনি আরও মন্তব্য করতে অস্বীকার করেন, এ কথা বলে যে, তা গোয়েন্দা বিভাগের কাজের সাথে যুক্ত. দক্ষিণ কোরিয়ার “চুনআন ইলবো” পত্রিকা সোমবার আরও লিখেছে যে, উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক চাঁদমারিতে পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি চলছে.
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর দপ্তর প্রধানদের সংযুক্ত কমিটির সভাপতি মার্টিন ডেম্পসি ২০১৩ সালের এপ্রিল মাসে চিনে সফরে যাবেন, বলে জানিয়েছেন পেন্টাগনের সরকারি প্রতিনিধি জর্জ লিটল. পর্যবেক্ষকরা উল্লেখ করেছেন যে, মার্টিন ডেম্পসির সফরের প্রধান কারণ হয়েছে কোরিয়া উপদ্বীপ এলাকায় বর্তমানে গুরুতর তীক্ষ্ণ পরিস্থিতি. কোরিয়ার দিকে আমেরিকার কূটনৈতিক শক্তি প্রয়োগের সঙ্গে সামরিক শক্তিকেও যোগ করা – এই পরিস্থিতি গুরুতর হওয়ার প্রমাণ.
প্রাগ শহরে রাশিয়ার তত্কালীন রাষ্ট্রপতি দিমিত্রি মেদভেদেভ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামার স্বাক্ষরিত তৃতীয় পারমানবিক স্ট্র্যাটেজিক আক্রমণাত্মক অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ চুক্তির তিন বছর মেয়াদ উত্তীর্ণ হতে চলেছে ৮ই এপ্রিলে. বলা যেতে পারে যে, এটা ছিল, মস্কো ও বারাক ওবামার রাষ্ট্রপতি হিসাবে নেতৃত্বে ওয়াশিংটনের মধ্যে সম্পর্ক রিসেট করার পরে প্রথম গুরুত্বপূর্ণ পরিণতি.
দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রপতি পাক কীন হের প্রশাসনের মুখপাত্র রবিবার এই খবর জানিয়েছেন. ১০ই এপ্রিল তারিখটি সিওলের পক্ষ থেকে সরকারি ভাবে এই কারণে জানানো হয়েছে যে, উত্তর কোরিয়া থেকে এই দিনের আগে সমস্ত বিদেশী দূতাবাসের কর্মীদের দেশ ছেড়ে যেতে বলা হয়েছে নিরাপত্তা জনিত কারণে.
দেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এই খবর দেওয়া হয়েছে. মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী সবচেয়ে বেশী বাজেট থেকে ব্যয় করা হয়েছে গত বছরে আর তা দেশের সমগ্র গড় বার্ষিক উত্পাদনের শতকরা ২, ৫৯ ভাগ. গত বছরে উত্তর কোরিয়ার তরফ থেকে রকেট ও পারমানবিক বিপদ বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে সিওল ব্যয় করেছিল প্রায় ২ হাজার ৯৭০ কোটি ডলারের সমান অর্থ.
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30
এপ্রিল 2013
ঘটনার সূচী
এপ্রিল 2013
21
22
25
26
27
28