×
South Asian Languages:
কোরিয়া, মার্চ 2013
উত্তর কোরিয়ার গণমাধ্যম সে দেশের সরকার প্রধান কিম চেন ইন ও বিভিন্ন সংগঠনের দেওয়া বিবৃতিকে সমর্থন করেছে। রোববার বিভিন্ন
উত্তর কোরিয়ার যুদ্ধের ঘোষণা দেওয়া নিয়ে পশ্চিমা গণমাধ্যমের ভুল অনুবাদের স্বীকার হয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া । পিয়ংইয়ং থেকে দেওয়া বিবৃতিতে
সারা উত্তর কোরিয়া জুড়ে ব্যাপক জনসভা চলছে, যেখানে অংশগ্রহণকারীরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়াকে শাস্তি দেওয়ার দাবী জানাচ্ছে. তারা স্লোগান দিচ্ছে – “মার্কিনী সাম্রাজ্যবাদীরা নিপাত যাক!” ও “কথাবার্তা অনেক হয়েছে, এবার কাজে নামা দরকার!”. জনসভাকারীরা একইসঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে যুদ্ধরত অবস্থায় আছে বলে পিয়ং-ইয়ং থেকে সরকারী ঘোষনাকে স্বাগত জানাচ্ছে.
শনিবার উত্তর কোরিয়ার কেন্দ্রীয় টেলিগ্রাফ এজেন্সী ‘স্টাক’ প্রচার করেছে, যে উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে সম্পর্ক যুদ্ধরত অবস্থায়. দুই কোরিয়ার মধ্যে সবরকম কথাবার্তা এখন থেকে এই অবস্থানের সাপেক্ষে হবে. ‘কোরিয় উপদ্বীপে পরিস্থিতি শান্তিও নয়, যুদ্ধও নয়, এই অবস্থা থেকে বেরিয়ে এসেছে’ – ঘোষনা করেছে ঐ রাষ্ট্রীয় টেলিগ্রাফ এজেন্সী.
কোরিয়া উপদ্বীপ এলাকা এবারে যুদ্ধের কিনারায় এসে দাঁড়িয়েছে. শুক্রবার ভোর রাতে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম চেন ঈন আদেশ করেছেন উত্তর কোরিয়ার রকেট বাহিনীকে প্রস্তুত থাকতে. সম্ভাব্য লক্ষ্য – মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখণ্ড, প্রশান্ত মহাসাগর ও দক্ষিণ কোরিয়াতে আমেরিকার সামরিক ঘাঁটি.
রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরোভ শুক্রবার উত্তর কোরিয়াকে কেন্দ্র করে সামরিক সক্রিয়তা বৃদ্ধির প্রচেষ্টায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন. রাশিয়া উদ্বিগ্ন যে, উত্তর কোরিয়াকে কেন্দ্র করে একতরফা সামরিক সক্রিয়তা বাড়ানো হচ্ছে, যা পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রণের বাইরে নিয়ে যেতে পারে.
বৃহস্পতিবার ইরান, সিরিয়া ও উত্তর কোরিয়া পৃথিবীতে অস্ত্রের বেআইনি আদানপ্রদাণ আটকানোর জন্য জাতিসংঘে প্রণীত খয়ড়া বিল পাশ হতে দেয়নি. ‘রিয়া নোভোস্তি’ এই সংবাদ জানিয়েছে.
উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম চেন ঈন আদেশ দিয়েছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং দক্ষিণ কোরিয়ার দিকে তাক করা স্ট্র্যাটেজিক রকেটগুলোকে নিক্ষেপের জন্য প্রস্তুত করার. ‘ইন্টারফ্যাক্স’ সংবাদসংস্থা এই মর্মে খবর প্রচার করেছে. শুক্রবার স্থানীয় সময় রাত সাড়ে বারোটায় কিম চেন ঈন দেশের স্ট্র্যাটেজিক রকেটশক্তির জরুরী বৈঠক তলব করেন.
যদি এই জোট তৈরী সম্ভব হয়, তবে তা উত্তর আমেরিকার মুক্ত বাণিজ্য এলাকা ও ইউরোপীয় সঙ্ঘের পরে তৃতীয় বৃহত্তম জোটে পরিণত হবে. জোট তৈরীর জন্য আলোচনা শুরু করেছে চিন, জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া. সিওলে প্রথম রাউন্ডের আলোচনায় অংশগ্রহণকারীরা বেশীর ভাগ অংশে প্রশাসনিক প্রশ্ন নিয়ে পরামর্শ করবেন. বাণিজ্য জোট গঠনের জন্য এশিয়ার বৃহত্তম অর্থনীতিগুলি ইতিমধ্যেই কয়েক বছর ধরে আলোচনা করে যাচ্ছে.
উত্তর কোরিয়ার কর্তৃপক্ষ সেওলের সাথে যোগাযোগের শেষ লাইনটিও বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, জানিয়েছে কোরিয়ার কেন্দ্রীয় টেলিগ্রাফ এজেন্সি. এজেন্সি ব্যাখ্যা
কোরিয়া উপদ্বীপ এলাকায় খুবই উত্তেজনা পূর্ণ পরিস্থিতি তৈরী হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার সম্মিলিত কাজে - এই বার্তা উত্তর কোরিয়ার পরররাষ্ট্র দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে বুধবারে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদকে. নিজেদের বার্তায় উত্তর কোরিয়া জানিয়েছে যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া সম্মিলিত ভাবে যে সামরিক মহড়া করছে, তাতে আলাদা করে ভারী বোমারু বিমান বি- ৫২ আনা হয়েছে.
উত্তর কোরিয়া আবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উপর আঘাত হানার হুমকি দিয়েছে এবং নিজের সশস্ত্র বাহিনীর সামরিক প্রস্তুতি বাড়িয়েছে. রকেট ও আর্টিলারী বাহিনীকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে মহাদেশীয় অঞ্চলে এবং প্রশান্ত মহাসাগরে গুয়াম ও হাওয়াই দ্বীপে মার্কিনী সামরিক ঘাঁটি আক্রমণের জন্য প্রস্তুত থাকতে, আজ জানিয়েছে কোরিয়ার কেন্দ্রীয় টেলিগ্রাফ এজেন্সি.
সোড্যামুন এলাকার থানার লক-আপ কামরাগুলির দেওয়ালে দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানীতে এই প্রথম চিত্রশিল্পীরা আঁকাজোঁকা করেছে. যারা লক-আপের আড়ালে বাধ্য হচ্ছে দিন গুজরান করতে, তাদের প্রতি যত্ন হিসাবে এই কাজ করা হচ্ছে, বলে থানার কর্তৃপক্ষ ব্যাখ্যা করেছে. তাদের মতে, আটক ব্যক্তিরা অঙ্কিত ঘাস, আকাশ, গাছপালা ও পাখিদের দেখে দুশ্চিন্তা থেকে রেহাই পেতে পারে. চিত্রগুলির নাম দেওয়া হয়েছে - শুশ্রুষাকারী দেওয়ালের চিত্র.
বেজিং সফররত সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম এবং আর্থিক গোয়েন্দাবৃত্তি সংক্রান্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উপ-অর্থমন্ত্রী ডেভিড কোয়েন বলেছেন যে, বেজিংয়ের দ্বারা উত্তর কোরিয়ার উপর আর্থিক চাপ বাড়ানোর সম্ভাবনা সম্বন্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আশাবাদী মনোভাব পোষণ করছে.
চীনা গণ-প্রজাতন্ত্রের সভাপতি সি জিনপিন টেলিফোনে দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রপতি পাক কীন হে-র সাথে আলাপ-আলোচনায় সেওল এবং পিয়ংইয়ংয়ের মাঝে সঙ্কট মীমাংসায় সহায়তা করার প্রস্তুতি প্রকাশ করেছেন. এ সম্বন্ধে বুধবার জানিয়েছে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়. চীনের সভাপতি উল্লেখ করেছেন যে, কোরিয়া সমস্যার মীমাংসায় অংশগ্রহণকারী সমস্ত পক্ষ বর্তমানে উত্তর কোরিয়া ও দক্ষিণ কোরিয়ার মাঝে উত্তেজনা হ্রাসের জন্য চেষ্টা করছে.
উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বুধবার “গুরুতর প্রত্যুত্তরী সামরিক ক্রিয়াকলাপের” হুমকি দিয়েছে কোরীয় উপদ্বীপের উপর “বি-৫২” স্ট্র্যাটেজিক বোমারু বিমানের আবার উড়ানের ক্ষেত্রে. এ সম্বন্ধে বলা হয়েছে কোরিয়ার কেন্দ্রীয় টেলিগ্রাফ এজেন্সির মাধ্যমে প্রচারিত উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র বিভাগের বিবৃতিতে.
উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পরবর্তী বিবৃতি দিয়েছে, যা প্রমাণ দেয় যে, উত্তর কোরিয়ার নেতৃবৃন্দ পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করতে প্রস্তুত, তবে শুধু দেশের সার্বভৌমত্ব ও নিরাপত্তা রক্ষার জন্য.
সোমবার হোয়াইট হাউসের প্রতিনিধি জেই কার্নি ঘোষনা করেছেন, যে উত্তর কোরিয়াকে পারমানবিক শক্তিধর হিসাবে স্বীকার করার কোনো অভিপ্রায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নেই. কার্নি বলেছেন, যে কবে উত্তর কোরিয়া তার দিকে তাক করে পারমানবিক রকেট বসাবে, তার অপেক্ষায় আমেরিকা থাকবে না.
জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের নিষেধাজ্ঞা আরোপের সিদ্ধান্তের পেক্ষিতে উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ের দেওয়া গত ৯ মার্চের বিবৃতি প্রচার করা হয়েছে৷ স্থানীয়
আগের
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
মার্চ 2013
ঘটনার সূচী
মার্চ 2013
2
3
4
13
18
21
23
24
25