×
South Asian Languages:
পাকিস্থান-চিন, নভেম্বর 2011
আগামী সপ্তাহে বন শহরে শুরু হতে যাওয়া আফগানিস্তান সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক সম্মেলনে পাকিস্তান ঠিক করেছে যাবে না. গত শনিবারে ভোর রাতে আফগান সীমান্তের কাছে পাকিস্তানের সীমান্ত চৌকিতে ন্যাটো জোটের তরফ থেকে গুলি বর্ষণের প্রতিবাদে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে. আকাশ পথে হামলায় নিহত হয়েছেন কম করে হলেও ২৪ (২৫) জন পাক জওয়ান. বিশদ করে লিখেছেন আমাদের সমীক্ষক গিওর্গি ভানেত্সভ.
রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রী সের্গেই লাভরভ ন্যাটো জোটের কাজকর্ম তদন্ত করার আহ্বান জানিয়েছেন. শনিবারে জোটের শক্তি পাকিস্তানের সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর ঘাঁটিতে আকাশ থেকে আঘাত হেনেছে. ন্যাটো জোটের সাধারন সম্পাদক আন্দ্রেস ফন রাসমুসেন ইতিমধ্যেই ঘোষণা করেছেন যে, ঘটনা মনোযোগ দিয়ে তদন্ত করে দেখা হবে. প্রসঙ্গতঃ পাকিস্তানের সরকার তদন্তের ফলের অপেক্ষা করতে রাজী না হয়ে সঙ্গে সঙ্গেই জোটকে উত্তর দিয়েছে.
শনিবার ভোর রাতে আফগানিস্তান সীমান্তের পাক সেনা ঘাঁটিতে ন্যাটো বাহিনীর হেলিকপ্টার হানার ঘটনা ঘটেছে. নিহত হয়েছেন ২৮ জন পাক সেনা. এই ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় পাকিস্তান সরকার আফগানিস্তানে অবস্থান রত ন্যাটো সেনাদের রসদ সরবরাহের সীমান্তবর্তী সমস্ত পথ বন্ধ করে দিয়েছে.
এই বছর দশম বছর যখন থেকে গোল্ডম্যান স্যাক্স ব্যাঙ্কের অর্থনীতিবিদ জিম ও নিল প্রথম চারটি সবচেয়ে দ্রুত উন্নতিশীল অর্থনীতির দেশের নাম সংক্ষেপ করে ব্রিক (ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত ও চিন) নামে উল্লেখ করে ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন যে, একবিংশ শতকের মাঝামাঝি এই দেশ গুলি সম্মিলিত জাতীয় বার্ষিক উত্পাদনের হারে বড় সাত দেশকে ছাপিয়ে যাবে.
গত সপ্তাহের শেষ দিনগুলিতে ভুটানের রাজধানী থিম্পু শহরে জমা হয়েছিলেন হিমালয় পর্বতের পাদদেশের চারটি দেশের প্রতিনিধিরা – বাংলাদেশ, ভুটান, ভারতবর্ষ ও নেপাল. আলোচনার কেন্দ্রে ছিল বিশ্বে উষ্ণতা বৃদ্ধির সমস্যা ও ফল হিসাবে হিমালয় পর্বতের হিমবাহ গুলির ক্ষয়. পর্যবেক্ষকেরা সঙ্গে সঙ্গেই লক্ষ্য করেছেন এই সম্মেলনে অনুপস্থিত ছিলেন হিমালয় পাদদেশের অন্য তিনটি দেশের প্রতিনিধিদের অনুপস্থিতি – পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও চিন প্রজাতন্ত্র.
ঐস্লামিক বিশ্বে ও দক্ষিণ এশিয়াতে পাকিস্তান রাশিয়ার এক গুরুত্বপূর্ণ সহযোগী দেশ বলে উল্লেখ করেছেন রশ প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিন. এই বিষয়ে তিনি ঘোষণা করেছেন সেন্ট পিটার্সবার্গে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইউসুফ রেজা গিলানির সঙ্গে সাক্ষাত্কারের সময়ে. বিষয় নিয়ে বিশদ করে লিখেছেন আমাদের সমীক্ষক গিওর্গি ভানেত্সভ. পাকিস্তান এক প্রভাবশালী মুসলিম দেশ. মুসলিম বিশ্বে তাদের প্রভাব খুবই উল্লেখ যোগ্য.
সাংহাই সহযোগিতা সংস্থা র সদস্য দেশ গুলির মধ্যে অর্থনৈতিক ভেক্টর শক্তিশালী করার প্রয়োজন রয়েছে ও এই সংস্থার এক শক্তিশালী পরিকাঠামোর জাল তৈরী করার দরকার রয়েছে. এই বিষয়ে ঘোষণা করেছেন রুশ প্রশাসনের প্রধান ভ্লাদিমির পুতিন সংস্থার দেশ গুলির প্রশাসন প্রধানদের শীর্ষ সম্মেলনে, যা আয়োজন করা হয়েছিল সেন্ট পিটার্সবার্গের উপকণ্ঠে কনস্তানতিন প্রাসাদে.
গত সপ্তাহের শেষে যে ঘটনা ঘটেছে ও যার প্রধান ভূমিকায় ছিলেন ভারতীয় সাংবাদিক ও ভারতে চিনের রাষ্ট্রদূত ঝ্যাং ইয়ান, তা এখনও নানা রকমের মানে করার জন্য ইন্ধন জুগিয়ে চলেছে, যা খুবই গুরুতর ভাবে ভারত ও চিনের এমনিতেই অস্বাভাবিক সম্পর্কের মধ্যে প্রতিফলিত হতে পারে.
    আজ সেন্ট পিটার্সবার্গে রুশ প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিনের সভাপতিত্বে সাংহাই সহযোগিতা সংস্থা র প্রশাসন প্রধানদের শীর্ষবৈঠক শুরু হতে চলেছে. এই আলোচনা কার্যকরী ভাবে ও কোন রকমের চাঞ্চল্যকর বা চমক সৃষ্টি না করেই করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে. রুশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই রকমেরই ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে.
বুধবারে ইস্তাম্বুলে(তুরস্ক) আফগানিস্তানের প্রতিবেশী দেশ ও আঞ্চলিক রাষ্ট্র গুলি যারা এই দেশের পরিস্থিতির দ্রুত নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে উত্সুক, তাদের এক সম্মেলন হয়েছে. এই সম্মেলনের অংশগ্রহণকারীরা এক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন, যেখানে বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন সমস্ত রকমের শক্তি প্রয়োগ করার, যাতে আফগানিস্তানে শান্তি শৃঙ্খলা স্থাপিত হয় ও সেই দেশের অর্থনীতি স্থিতিশীল ভাবেই উন্নতি করতে পারে.
রাশিয়া বিশ্ব সমাজের কাছে প্রস্তাব করেছে বিশ্ব তথ্য নিরাপত্তা রীতিনীতি গ্রহণ করার. মস্কো নিজের উদ্যোগ সাইবার এলাকা নিয়ে আন্তর্জাতিক সম্মেলনে প্রস্তাব করতে যাচ্ছে. এই ধরনের প্রথম আলোচনা সভা হতে চলেছে লন্ডনে. বিশ্বের ৬০টি দেশ থেকে গ্রেট ব্রিটেনের রাজধানীতে এসেছেন সাতশোরও বেশী প্রতিনিধি.     এই সম্মেলনের উদ্যোক্তা গ্রেট ব্রিটেনের পররাষ্ট্র দপ্তর.
রাশিয়া ও চিন সাংহাই সহযোগিতা সংস্থা বেশী করে মজবুত করার পক্ষে, তবে তা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সংযোগে নয়. মস্কো ও বেইজিং চেয়েছে ভারত ও পাকিস্তানকে এই সংস্থার সম্পূর্ণ সদস্য হিসাবে দেখতে, আফগানিস্তানকে – পর্যবেক্ষক দেশ হিসাবে ও তুরস্ককে আলোচনায় সহকর্মী দেশ হিসাবে দেখতে. এই বিষয়ে রাজনৈতিক পরামর্শের পরে ঘোষণা করা হয়েছে.
পাকিস্তান স্টেলথ প্রযুক্তি ব্যবহার করে বানানো "হাত্ফ- ৭ বাবুর" নামের ডানাওয়ালা রকেটের সফল পরীক্ষা করেছে. এই বিষয়ে সংবাদ দিয়েছে দেশের সরকারি উত্স উল্লেখ করে পাকিস্তানের দুন- নিউজ টেলিভিশন চ্যানেল. বিষয় নিয়ে বিশদ করে লিখেছেন আমাদের সমীক্ষক গিওর্গি ভানেত্সভ.     ডানাওয়ালা রকেট এটি এক বিশেষ শ্রেনীর রকেট.
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30
নভেম্বর 2011
ঘটনার সূচী
নভেম্বর 2011
4
5
6
9
10
11
12
13
14
15
16
17
18
19
20
22
24
25
26
27