×
South Asian Languages:
ইরান, 27 আগষ্ট 2012
ভারত, ইরান ও আফগানিস্তান ইরানের চাবাহার বন্দরের প্রযুক্তিগত উন্নয়ন ঘটানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে. তেহরানে জোটনিরপেক্ষ আন্দোলন সংস্থার সম্মেলন শুরু হওয়ার ঠিক আগে ঐ ৩ দেশ তিনপাক্ষিক কার্যকরী কমিটি গঠণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে. ঐ কমিটি আগামী ৩ মাসের মধ্যে কর্তব্য ও কাজের অভিমুখ নির্ধারণ করবে. ইরান ঐ বন্দরের উন্নতিকল্পে ৩৪ কোটি ডলার ব্যয় করবে. ভারত ঐ প্রকল্পে ৫,৫-৭ কোটি ডলার লগ্নি করবে.
ইরান, ভারত ও পাকিস্তানের কর্তৃপক্ষ এক ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে. যার লক্ষ্য হবে অর্থনীতির ক্ষেত্রে সহযোগিতা বিকাশ করা, সোমবার জানিয়েছে ইরানের সরকারী প্রচার মাধ্যম. তার তথ্য অনুযায়ী, এ তিন দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উচ্চপদস্থ কর্মীরা এ সমঝোতায় এসেছে ইরানের দক্ষিণ-পুবে চাখবেহারে শহরে ত্রিপাক্ষিক সাক্ষাতের পরে.
জোটনিরপেক্ষ আন্দোলনের ১৬-তম শীর্ষ সম্মেলন তেহেরানে শুরু হওয়ার আগে কেচ্ছা হওয়ার আশঙ্কা ছিল. উত্তেজনা বেড়েছিল আমন্ত্রিতদের তালিকা নিয়ে, বিশেষতঃ যখন জাতিসংঘের সাধারন সম্পাদক ঘোষণা করেছিলেন, যে তিনিও আসবেন. ইরানে শীর্ষ সম্মেলন শুরু হয়েছে সরকারীভাবে ২৬শে আগস্ট, কিন্তু যোগদানকারীরা সোমবার থেকে কাজ শুরু করেছেন. পান কি মুন শেষপর্যন্ত জোটনিরপেক্ষ সম্মেলনে যাবেন. ইস্রায়েল ও ইউরোপীয় সংস্থাগুলির আপত্তি সত্ত্বেও তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন.
ইরানের কর্তৃপক্ষ মিশরের রাষ্ট্রপতি এবং অন্য কিছু দেশের নেতাদের নিজের পারমাণবিক প্রকল্পগুলি দেখানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে. এ সম্বন্ধে জানিয়েছে ইরানের পার্লামেন্টের জাতীয় নিরাপত্তা ও পররাষ্ট্রনীতি সংক্রান্ত কমিটি. বিশেষ করে, মুর্সি-কে দেখানো হবে নাতানজে এবং ইস্ফাহানে পারমাণবিক প্রকল্পগুলি, যেখানে ইউরেনিয়াম পরিশোধন করা হয়, এবং তাছাড়া বুশের পারমাণবিক বিদ্যুত্ কেন্দ্র.
মিশর সিরিয়া সম্পর্কে আঞ্চলিক কনট্যাক্ট গ্রুপ গঠনের পক্ষে মত প্রকাশ করেছে, যাতে মিশর ছাড়া অন্তর্ভুক্ত হতে পারে সৌদি আরব, ইরান এবং তুরস্ক. মিশরের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি আম্র্ রুশডি জানিয়েছেন যে, সিরিয়া-কে সঙ্কট থেকে বার করে আনার উদ্দেশ্যে কায়রোর এ উদ্যোগে অনুমিত যে, আলাপ-আলোচনার এক টেবিলে বসবে যেমন সরকারী দামাস্কাসের পক্ষসমর্থক তেমনই তার বিরোধীপক্ষের প্রতিনিধিরা.
রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদক বান কি মুন তেহেরানে জোট-নিরপেক্ষ আন্দোলনের শীর্ষ সাক্ষাতে অংশগ্রহণ করবেন, এবং সে সময়ে তিনি উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ গণ-সভার সভাপতিমন্ডলীর সভাপতি কিম ইয়েন নামের সাথে সাক্ষাতের পরিকল্পনা করছেন.ওয়াশিংটনে এক সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তৃতা দিয়ে তিনি জানান যে, কোরিয়া উপদ্বীপে শান্তির প্রশ্ন আলোচনা করতে চান, তবে উত্তর কোরিয়ার সাথে সরকারী আলাপ-আলোচনার সম্ভাবনা অস্বীকার করেন.
1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 29 30 31
আগষ্ট 2012
ঘটনার সূচী
আগষ্ট 2012
2
4
5
11
20
26