×
South Asian Languages:
রাজনীতি 19 জুন 2012
ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে আন্তর্জাতিক মধ্যস্থ “ছয় দেশের” সাথে তেহেরানের প্রতিনিধিদলের আলাপ-আলোচনা মস্কোয় মঙ্গলবার শুরু হয়েছে. এ সম্বন্ধে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন আলাপ-আলোচনায় রাশিয়ার প্রতিনিধিদলের প্রধান, রাশিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই রিয়াবকোভ. তিনি আলাপ-আলোচনার গতিতে অতিরিক্ত কোনো মন্তব্য করতে অস্বীকার করেছেন, জানিয়েছে “ইতার-তাস” সংবাদ এজেন্সি.
ইরানের পারমাণবিক সমস্যা নিয়ে মধ্যস্থ “ছয় দেশের” সাথে আলাপ-আলোচনার নতুন রাউন্ড পরিচালনার প্রশ্ন এখনও আলোচিত হয় নি, মঙ্গলবার বলেছেন মস্কো আলাপ-আলোচনায় ইরানী প্রতিনিধিদলের একজন সদস্য. সেই সঙ্গে তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, নতুন সাক্ষাত্ আয়োজনের স্থান নির্বাচন নির্ভর করবে যেখানে আলাপ-আলোচনা সম্ভব সেই দেশের সাথে তেহেরানের সম্পর্ক কি রকম তার উপর.
সিরিয়ার পশ্চিমাঞ্চলে লাতাকিয়া প্রদেশের আল-হাফ্ফা গ্রামের বাসিন্দারা নিশ্চয়োক্তি করছে যে, সশস্ত্র অপরাধীরা তাদের সরকারবিরোধী প্রতিবাদ মিছিলে অংশ নিতে বাধ্য করেছিল. এ সম্বন্ধে মঙ্গলবার জানিয়েছে ইরানের “প্রেস-টিভি” টেলি-চ্যানেল. একজন স্থানীয় বাসিন্দা সাংবাদিকদের বলেছে যে, সশস্ত্র লোকেরা তাদের গ্রামে বিদ্যুত্ সরবরাহ কেন্দ্র প্রশাসনিক ভবন পুড়িয়ে দিয়েছে. তারা গ্রামবাসীদের উপর অত্যাচারের ভয় দেখিয়েছে, বল প্রয়োগ করে তাদের প্রতিবাদ করতে বাধ্য করেছে.
সিরিয়ার কর্তৃপক্ষ সরকারবিরোধী সশস্ত্র দলগুলির জঙ্গীদের দ্বারা অধিকৃত এলাকাগুলি থেকে বেসামরিক ব্যক্তিদের অপসারণে প্রস্তুত. এ সম্বন্ধে মঙ্গলবার জানিয়েছে স্থানীয় সংবাদ এজেন্সি “সানা” সিরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উদ্ধৃতি দিয়ে. বিবৃতিতে বলা হয়েছে যে, সিরিয়ার নেতৃবৃন্দ জোর দিয়ে বলেছেন যে, কোনো প্রাথমিক শর্ত ছাড়া এবং যেকোনো উপায়ে জঙ্গীদের ঘেরাও থেকে শান্তিপূর্ণ নাগরিকদের সরিয়ে আনার জন্য প্রস্তুত.
১৯শে জুন রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদ সিরিয়ার পর্যবেক্ষক মিশনের প্রধান রবার্ট মুডের রিপোর্ট শুনবে, তার পরে এই দেশে কাজ কর্মের জন্য পরবর্তী পরিকল্পনা স্থির করবে. রাষ্ট্রসঙ্ঘের মিশন প্রথমবার নিজেদের কাজকর্ম নিয়ে এপ্রিল মাসের শেষে সিরিয়াতে তাদের কাজ শুরু হওয়ার পর থেকে বিবরণ দেবে.
রাশিয়ার বাল্টিক নৌবাহিনীর বড় অবতরণ জাহাজ “কালিনিনগ্রাদ” আগামী কয়েক দিনের মধ্যে ভূমধ্যসাগরে রওনা হবে. এ সফরের সময় তা সিরিয়ার তারতুস বন্দরে যাবে, যেখানে রাশিয়ার নৌবাহিনীর বৈষয়িক-প্রযুক্তিগত সুনিশ্চিতির কেন্দ্র রয়েছে. এ সম্বন্ধে “ইন্টারফাক্স” সংবাদ সংস্থাকে মঙ্গলবার জানিয়েছেন রাশিয়ার বাল্টিক নৌবাহিনীর সদর দপ্তরের এক উত্স.
রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োসিহিকো নোডা-কে রাশিয়া সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন. তিনি জাপানের নেতার সাথে সাক্ষাত্ করেন মেক্সিকোর লস-কাবোসে জি-২০ শীর্ষ সাক্ষাতের কাঠামোতে. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি উল্লেখ করেন যে, রাশিয়া-জাপান সম্পর্ক “ইতিবাচকভাবে বিকশিত হচ্ছে” এবং এখন তা উর্ধগতিতে রয়েছে. একই সঙ্গে, রাশিয়া ও জাপানের মাঝে বাণিজ্যিক-অর্থনৈতিক সম্পর্ক আপাতত দু দেশের বাস্তব সম্ভাবনার সাথে সুসঙ্গত নয়, বলেন পুতিন.
মেক্সিকোর লস-কাবোস স্বাস্থ্য-নগরীতে “জি-২০” দেশগুলির শীর্ষ সম্মেলনের কাজ শুরু হয়েছে. তা ইউরোপীয় অর্থনৈতিক সঙ্কট এবং বিশ্ব অর্থনীতি বিকাশের ব্যবস্থার প্রতি উত্সর্গীত. এ শীর্ষ সম্মেলনে অংশগ্রহণ করছেন রাশিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান, জার্মানি, ফ্রান্স, গ্রেট-বৃটেন, ব্রাজিল, ইতালি, ভারত, কানাডা, মেক্সিকো, ইউরোসঙ্ঘ, দক্ষিণ আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, ইন্দোনেশিয়া, তুরস্ক, আর্জেন্টিনা ও সৌদি আরবের নেতারা.
জি- ২০ দেশের শীর্ষবৈঠকের আগে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামার সাক্ষাত্কার হয়েছে মেক্সিকোর লস- কাবোস শহরে. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি হিসাবে শপথ নেওয়ার পরে এটি পুতিনের প্রথম ওবামার সঙ্গে সাক্ষাত্কার. এই সাক্ষাত্কার হয়েছে এসপেরাঞ্জা রিসর্ট নামের হোটেলে. এই হোটেল জি- ২০ শীর্ষবৈঠকের সময়ে মার্কিন রাষ্ট্রপতির বাসস্থান হয়েছে, অর্থাত্ সরকারি ভাবে এই আলোচনা হচ্ছে মার্কিন এলাকায়.
মেক্সিকোর লস- কাবোস শহরে জি-২০ শীর্ষ সম্মেলন শুরু হওয়ার আগেই বর্তমানে ব্রিকস গোষ্ঠীর সভাপতি ভারতের উদ্যোগে আয়োজিত ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত, চিন ও দক্ষিণ আফ্রিকার শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের উপস্থিতিতে আয়োজিত এক মিনি ব্রিকস সম্মেলনে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন অংশ নিয়েছেন.
জুন 2012
ঘটনার সূচী
জুন 2012