×
South Asian Languages:
রাজনীতি 2 সেপ্টেম্বর 2011
ন্যাটো ভারতকে আরও সক্রিয়ভাবে সবচেয়ে বিস্তৃত সহযোগিতায় আহ্বানের লক্ষ্যে এগিয়েছে – সন্ত্রাসবাদ ও জলদস্যূ দমন থেকে শুরু করে সাইবার নিরাপত্তা ও রকেট প্রতিরোধ ব্যবস্থা পর্যন্ত. এই সম্বন্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাটো জোটে স্থায়ী প্রতিনিধি ইভো ডাডলারের কথা উল্লেখ করে বৃহস্পতিবার ও শুক্রবারে বেশ কয়েকটি প্রধাণ ভারতীয় সংবাদপত্রে লেখা বেরিয়েছে.
জাপানের নতুন প্রধানমন্ত্রী ইওসিহিকো নোডা শুক্রবার বলেছেন যে, প্রতিবেশী দেশগুলির সাথে, সেই সঙ্গে রাশিয়ার সাথেও যথাসম্ভব সুসম্পর্ক গড়ে তোলার চেষ্টা করবেন. টোকিওতে তিনি বলেন, “আমাদের প্রতিবেশীদের সাথে, সেই সঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়া ও রাশিয়ার সাথে সুসম্পর্ক বিকাশের জন্য আমি সাধ্যমতো সমস্ত কিছুই করব”. তিনি জোর দিয়ে আরও বলেন যে, চীনের সাথে সহযোগিতা বিকাশের প্রতি বিপুল মনোযোগ দেবেন.
সিরিয়ার বিরোধীপক্ষ, লিবিয়ার বিদ্রোহীদের সাফল্যে অনুপ্রাণিত হয়ে, মুসলমানদের রামাদান শেষ হওয়ার পরে প্রতিদিন প্রতিবাদ মিছিল চালানোতে উত্তীর্ণ হচ্ছে. সিরিয়ার “আস-সাউরা আস-সুরিয়া” তথ্য ব্যুলেটিনের খবর অনুযায়ী, দেশের শহরগুলিতে শুক্রবার “অবমাননার চেয়ে মৃত্যু ভালো” স্লোগানে সরকারবিরোধী আন্দোলন হবে.
লিবিয়ায় শাসন ক্ষমতা দখল করা বিদ্রোহীরা প্রতিশ্রুতি দিয়েছে যে, আগে মুয়ম্মর গদ্দাফিকে সমর্থন করা দেশবাসীদের সাথে আপোষের চেষ্টা করবে. প্রাক্কালে অন্তর্বর্তী জাতীয় পরিষদের প্রধান মুস্তাফা আব্দেল জলিল বলেন, “আমরা যার প্রতিশ্রুতি দিয়েছি, লিবিয়ার জনগণের তা পুরণ করা উচিত্: আমাদের প্রয়োজন স্থিতিশীলতা, শান্তি এবং আপোষের”. তিনি বলেন যে, লিবিয়ার নতুন কর্তৃপক্ষের বিদেশীদের সাথে সমঝোতার নিজের অংশ পালন করা উচিত্.
তেহেরান বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ফ্রান্সের রাষ্ট্রপতি নিকোল্যা সার্কোজিকে মিথ্যা তথ্যের ভিত্তিতে বিবৃতি দেওয়া থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছে. এর প্রাক্কালে সার্কোজি ইরানকে তার পারমাণবিক প্রকল্পগুলির উপর প্রতিষেধক আঘাত হানার সম্ভাবনা সম্বন্ধে সাবধান করে দেন, যদি তেহেরান এ ক্ষেত্রে নিজের আকাঙ্ক্ষা প্রকট করে যায়. তবে তিনি কোনো দেশের নাম করেন নি, যে এমন ক্রিয়াকলাপ চালাতে পারে.
আসন্ন কিছু কালের মধ্যেই লিবিয়ার অস্থায়ী জাতীয় পরিষদের জন্য মুহম্মর গাদ্দাফির বিদেশী মুদ্রার আটক করা তহবিল থেকে পনেরো শো কোটি ডলার দোওয়া হতে পারে. এটাই প্যারিসের "লিবিয়ার বন্ধু" নামের আন্তর্জাতিক সম্মেলনের কাজের প্রধান ফল হয়েছে. আশা করা হয়েছে যে, এই অর্থ ছয় মাস ধরে চলা রক্তক্ষয়ী গৃহযুদ্ধের পরে লিবিয়ার দেশ উন্নয়নের কাজে লাগানো হবে.
রাষ্ট্রসঙ্ঘ ইস্রাইলের দ্বারা গাজা অঞ্চলের অবরোধকে আইনসঙ্গত বলে মনে করে, তবে ২০১০ সালের মে মাসে নৌবহর থামানোর জন্য বল প্রয়োগকে মাত্রাধিক্য এবং অনুপকারী বলে মনে করে. রাষ্ট্রসঙ্ঘের সামুদ্রিক আইন সংক্রান্ত কমিশনের রিপোর্টের কপির উদ্ধৃতি দিয়ে এ সম্বন্ধে লিখেছে “নিউ ইয়র্ক টাইমস” পত্রিকা.  সরকারীভাবে এ রিপোর্ট প্রকাশিত হওয়ার কথা শুক্রবার.
লিবিয়ার সরকারের প্রধানমন্ত্রী আল-বাগদাদী আলি আল-মাহমুদী অন্তর্বর্তী জাতীয় পরিষদের পক্ষে চলে এসেছেন. লিবিয়ার প্রধানমন্ত্রী “আল-আরাবিয়া” টেলি-কোম্পানিকে বলেছেন যে, তিনি লিবিয়াতেই রয়েছেন, এবং প্রচার মাধ্যমের এ খবর খন্ডন করেছেন যে, তিনি টিউনিসিয়ায় পালিয়েছেন. আল-মাহমুদী আগে একাধিকবার বিদ্রোহী এবং জামাহিরি সরকারের মাঝে অগ্নি সংবরণ এবং সংলাপ চালানোর আহ্বান জানান, “দেশের বিপর্যয়কর অবস্থার” কথা উল্লেখ করে.
রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদক বান কি মুন প্যারিসে লিবিয়া সংক্রান্ত সম্মেলনে অবিলম্বে ঐ দেশে রাষ্ট্রসঙ্ঘের মিশন পাঠানোর আহ্বান জানিয়েছেন. সাধারণ সম্পাদক শিগগিরই এ ব্যাপারে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের ম্যান্ডেট পেতে চান, যাতে উক্ত সিদ্ধান্তের অনুমোদন থাকবে. একই সঙ্গে, বান কি মুন জোর দিয়ে বলেন যে, লিবিয়ার ভাগ্য সম্পূর্ণভাবে থাকা উচিত্ লিবিয়ার জনগণের হাতে.
প্যারিসে লিবিয়া সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক সম্মেলনের অংশগ্রহণকারীরা লিবিয়া সম্পর্কে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের নতুন সিদ্ধান্ত গ্রহণের পক্ষে মত প্রকাশ করেছে. সম্মেলনে সভাপতির চূড়ান্ত দলিলে বলা হয়েছে য়ে, লিবিয়ার পুনর্গঠন এবং গণতন্ত্রে উত্তরণের জন্য সমর্থনে রাষ্ট্রসঙ্ঘের মুখ্য ভূমিকা সূত্রবদ্ধ থাকা উচিত্ সিদ্ধান্তে.
সেপ্টেম্বর 2011
ঘটনার সূচী
সেপ্টেম্বর 2011