১. ক্রোনোত্স্ক রাষ্ট্রীয় জৈব পরিবেশ সংরক্ষিত অরণ্য, যা রয়েছে কামচাত্কা এলাকায় – এই প্রত্যন্ত এলাকার ইতিহাস অবাক করে দেয়, সেখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য মনোহর, জীব জগতও বিরল. আজ আপনাদের সামনে উপস্থিত করছি ফটোগ্রাফার ইগর শ্পিলেঙ্কা এই অঞ্চলকে যে চোখে দেখেছেন, তার মধ্যে দিয়ে পরিচয় করার জন্য ছবির মালা.

২. ক্রোনোত্স্ক সংরক্ষিত অরণ্য কামচাত্কা উপদ্বীপের পূর্ব দিকে, তার এলাকা – ১১ ৪২ ১৩৪ বর্গ হেক্টরের উপরে, তার মধ্যে ১ ৬৬ ৭২০টি প্রশান্ত মহাসাগরীয় সামুদ্রিক জলাধারও রয়েছে.

৩. ১৯৩৪ সালে এখানে লোম বহুল ভোঁদড় পালনের জায়গা, যা ১৮৮২ সাল থেকে ছিল, তার জায়গায় সংরক্ষিত অরণ্য বলেই ঘোষণা করা হয়.

৪. প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকার বিরল আগ্নেয় গিরি সমষ্টির প্রাকৃতিক শোভা বহু পাখী, সামুদ্রিক জীব ও জন্তুর সংরক্ষণের জন্য এই অরণ্য রয়েছে.

৫. এখানে ২৬টির মধ্যে ৯টি সক্রিয় আগ্নেয় গিরি রয়েছে, তার মধ্যে ক্রোনোত্স্ক সোপকা আগ্নেয় গিরির (ফোটোতে) উচ্চতা ৩ ৫২৮ মিটার.

৬. এই আগ্নেয় গিরির উপরে বরফের স্তুপ ও হিমবাহ রয়েছে, যা কখনও গলে যায় না, সবচেয়ে দীর্ঘ হিমবাহের দৈর্ঘ্য – ৮ কিলোমিটার.

৭. ১৯৪১ সালের ১৪ই এপ্রিল এই সংরক্ষিত অরণ্যের জীবনে এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা হয়েছিল, যখন ভূ বৈজ্ঞানিক তাতিয়ানা উস্তিনোভা এখানে এশিয়ার অন্যতম ও বিশ্বের চতুর্থ উষ্ণ প্রস্রবনের ঢাল আবিষ্কার করেন. এই ঢালের গভীরত্ব – ৪০০ – ৫০০ মিটার ও দৈর্ঘ্য প্রায় ১০ কিলোমিটার. সেখানে প্রায় ১০০ প্রস্রবনের ও বেশ কিছু ঝর্নার উত্স রয়েছে. এই উত্স থেকে প্রায় ৯৫ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড উষ্ণতার ঝল মাঝেমাঝেই লাফিয়ে বেরোয়, অথবা বাষ্প বের হতে থাকে. ২০০৭ সালের ৩রা জুন এই ঢালের ক্ষতি হয়েছিল এক ধ্বস নামাতে. প্রায় অর্ধেক প্রধান প্রস্রবনের ক্ষতি হয়েছে, সেই গুলির অনেকটাই ধ্বসের তলায় চাপা পড়ে গিয়েছে.

৮. এই উষ্ণ প্রস্রবনের ঢাল, রাশিয়ার সপ্তম আশ্চর্য্যের তালিকায় যুক্ত. তবুও এটি এই ক্রোনোত্স্ক এলাকার একমাত্র দেখার জায়গা নয়. তার থেকে সাত কিলোমিটার দূরে রয়েছে মৃত্যুর উপত্যকা (ফোটোতে). এখানে মাটির নীচ থেকে বের হওয়া গ্যাস এতটাই মারাত্মক, যে এই উপত্যকায় প্রত্যেক দিনই বহু জীব ও পাখী মারা পড়ে থাকে.

৯. এই উপসাগরীয় অঞ্চলে সংরক্ষিত অরণ্য অঞ্চলের পরিবেশ ভালো হওয়ায় এখানে এত মাছ আছে যে, এখানে রাশিয়ার সবচেয়ে বেশী হিংস্র খয়েরী ভল্লুক থাকে – প্রায় ৭০০ টি.

১০. এখানে শেয়ালের সংখ্যাও কম নয়. এখানের শেয়ালও বেশ বড় আর তাদের গায়ের রং ও উজ্জ্বল.

১১. এই সংরক্ষিত অরণ্যে ছোট তৃণভোজী প্রাণী রয়েছে অনেক, ছবিতে বুনো কাঠ বিড়ালী.

১২. রসোমাহা বা উলভেরাইন এখানের এক আকর্ষণীয় জন্তু.

১৩. এখন কামচাত্কা এলাকায় একমাত্র এই ক্রোনোত্স্ক সংরক্ষিত অরণ্যেই রয়েছে উত্তরের বল্গা হরিণ.

১৪. এখানের প্রকৃতিতে প্রায় ১১৫০ রকমেরও বেশী বৃক্ষ ও লতা পাতা দেখতে পাওয়া যায়. তাদের মধ্যে ৩৭টিকে রাখা হয়েছে সংরক্ষিত ও বিরল প্রকৃতির নিদর্শন হিসাবে.

১৫. ক্রোনোত্স্ক সংরক্ষিত অরণ্য বহু লোকের পর্যটনের জন্য খোলা. এখানে আসা লোকেদের এক দিনের হাঁটা বেড়ানো বা অনেক দিনের বন ভ্রমণ করতে আহ্বান করা হয়ে থাকে. এই সমস্ত পর্যটনের সময়ে বিশেষ করে মনোযোগ দেওয়া হয় প্রকৃতির এই রূপকে অপরিবর্তনীয় রাখার দিকে.