২০০৬ সালে প্রথমবার জাপানের মন্ত্রীসভার প্রধান হিসাবে নির্বাচিত হওয়ার পরে এটা প্রথম মন্দির পরিদর্শন. এই মন্দিরে এসে আবে ঘোষণা করেছেন যে, তিনি নিজের সফর দিয়ে কোন ভাবেই দক্ষিণ কোরিয়া ও চিনের জনগনের অনুভূতিতে অপমান করতে চান নি. তিনি বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন যে, মন্দিরে তিনি শুধু জাপানের সৈন্যদের স্মৃতির প্রতিই শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন নি, যাঁরা জাপানের জন্য জীবন দিয়েছেন, বরং অন্যান্য সমস্ত সৈন্যদের স্মৃতির উদ্দেশ্যেই শ্রদ্ধা জানিয়েছেন, যাঁরা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে প্রাণ দিয়েছেন. আবে ঘোষণা করেছেন যে, তিনি নিজের অবস্থান চিন ও দক্ষিণ কোরিয়ার নেতাদের কাছে ইয়াসুকুনি মন্দিরে আসা নিয়ে নিজেই বলবেন.