এ কমিটি গঠিত হয়েছিল ২০০১ সালে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে সংগ্রামে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সক্রিয় করার জন্য এবং তার কার্যনির্বাহী পরিচালনা দপ্তরকে ২০১৭ সালের ৩১শে ডিসেম্বর পর্যন্ত কাজ করার অধিকার দেওয়া হয়েছে. নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্তে সন্ত্রাসবাদীদের আশ্রয় দানের অগ্রহণীয়তার উপর জোর দেওয়া হয়েছে. রাষ্ট্রসঙ্ঘ সমস্ত দেশকে আহ্বান জানাচ্ছে সন্ত্রাসবাদীদের অর্থ দিয়ে সমর্থন করা, সন্ত্রাসের পরিকল্পনা করা, সন্ত্রাসবাদীদের প্রস্তুত করা এবং সন্ত্রাসবাদী ক্রিয়াকলাপ সাধন করা যেকোনো ব্যক্তিকে “সমর্পণ করো অথবা আদালতে সোপর্দ করো” মূলনীতির ভিত্তিতে বিচারের জন্য দাঁড় করানোর. রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদ তাছাড়া উদ্বেগ প্রকাশ করেছে এজন্য যে, বিশ্বায়নের পরিবেশে সন্ত্রাসবাদী এবং তাদের পক্ষসমর্থকরা নতুন সমর্থকদের নিজের দলে টানার জন্য ক্রমেই বেশি করে নতুন টেলি-কমিউনিকেশন প্রকৌশল ব্যবহার করছে.