দেশের সমস্ত সরকারি, আধা-সরকারি এবং গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। জামাত-বিএনপি-র হিংসাত্মক আন্দোলনকে কার্যত ‘উপেক্ষা’ করে গোটা দেশে বিজয় দিবস উদযাপনের আবহ তৈরি করেছে হাসিনা সরকার। বিয়াল্লিশ বছর আগে ন’মাস রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের পর এই দিনই স্বাধীনতার স্বাদ পেয়েছিল বাংলাদেশ। বিজয় দিবস উদযাপনের মধ্যেও এ দিন পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে মৃত্যু হয় ৫ জনের। দেশের অন্যান্য প্রান্ত থেকেও ছোটখাটো সংঘর্ষের খবর পাওয়া গিয়েছে। তবে বড় শহরগুলির রাস্তায় সংঘর্ষ আটকাতে যায় তার জন্য বিজিবি এবং র‌্যাব নজরদারি চালাচ্ছে।