চিনাওয়াত রাষ্ট্রীয় টেলি-চ্যানেলে প্রত্যক্ষ সম্প্রচারে জনগণকে সম্বোধন করেছেন মন্ত্রী-পরিষদের বৈঠক শেষ হওয়ার পরে, যে বৈঠকে ১২ কোটিরও বেশি ডলারের নির্বাচনী অভিযানের বাজেট অনুমোদিত হয়েছে. ২০১৩ সালের ডিসেম্বরে ইইঙ্গলাক চিনাওয়াত সময়ের আগে পার্লামেন্ট ভেঙ্গে দিয়ে পদত্যাগ করেন বিরোধীপক্ষের ব্যাপক প্রতিবাদ মিছিলের চাপে, যে সময়ে ব্যাঙ্ককে এবং প্রদেশগুলিতে সরকারের ভবন দখল করা হয়েছিল এবং ব্যাপক বিশৃঙ্খলা শুরু হয়েছিল. পার্লামেন্ট ভেঙ্গে দেওয়ার সময় থেকে চিনাওয়াত সাময়িক প্রধানমন্ত্রী পদে রয়েছেন. বিরোধীপক্ষ তাঁর কাছে দাবি করছে সাময়িক প্রধানমন্ত্রীর পদ ত্যাগ করতে এবং জরুরী পরিস্থিতির ব্যবস্থা ব্যবহার করে রাজার দ্বারা সাময়িক মন্ত্রী-পরিষদ নিযুক্ত করাতে. শাসন ব্যবস্থায় সঙ্কটের ক্ষেত্রে থাইল্যান্ডের সংবিধানে এমন ব্যবস্থা অনুমিত আছে, এবং বিরোধীপক্ষ মনে করে যে, এমন সঙ্কট এখন দেখা দিয়েছে.