তাঁর কথামতো ব্রাসেলসের ঘোষণা অনুযায়ী ইউরোপীয় সঙ্ঘের সমস্ত সদস্য দেশ এই সমঝোতাকে সমর্থন করতে বাধ্য. তা করার সম্ভাবনা সবচেয়ে তাড়াতাড়ি রয়েছে ১৬ই ডিসেম্বর, যখন টের পাওয়া গিয়েছে যে, সমস্ত সদস্য দেশ এই সমঝোতা মানতে চাইতে নাও পারে, তখন সব কিছুই জানুয়ারী মাস অবধি টেনে নিয়ে যাওয়া হতে পারে. তিনি উল্লেখ করেছেন যে, রাশিয়া চেষ্টা করবে ইউরোপীয় সঙ্ঘের সহকর্মীদের কাছ থেকে জানার যে, তাদের জন্য এই সমঝোতায় কি আছে, যা তারা মানতে চান না, অথচ আগে এটাকেই বলেছিলেন ঐতিহাসিক একটা পরিবর্তন. তিনি যোগ করেছেন যে, ইরান সফরের সময়ে ছয় মধ্যস্থতাকারী পক্ষ ও ইরানের পারমাণবিক সমস্যা বিষয়ে সমঝোতা নিয়ে আলোচনা করেছেন. তিনি তাঁর সহকর্মী জাভাদ জারিফকে এই বিষয়ে রাশিয়ার অবস্থানের কথা বলেছেন.