রাষ্ট্রপতি একই সঙ্গে প্রস্তাব করেছেন যে, সেই সব লোকদের বিষয়ে তিনি রাষ্ট্রীয় ক্ষমা ঘোষণা করতে চান, যাদের কিয়েভ শহরে গণ বিক্ষোভের সময়ে জেলে ভরা হয়েছে. শুক্রবারে কিয়েভ শহরে এই গোল টেবিল বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছিল দেশের রাজনৈতিক সঙ্কট দূর করার জন্য ও এই বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছিলেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি লিওনিদ ক্রাভচুক. তাতে অংশ নিয়েছেন প্রাক্তন তিন রাষ্ট্রপতি কুচমা, ক্রাভচুক ও ইউশেঙ্কো ছাড়া বিরোধী পক্ষের নেতারা, আর তাদের সঙ্গে রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতিনিধিরা, ট্রেড ইউনিয়নের নেতারা, ছাত্র আন্দোলনের প্রতিনিধিরা, ইউক্রেনের শিল্পী সাহিত্যিক ও বৈজ্ঞানিক মহলের প্রতিনিধিরাও.