বিষাক্ত বস্তু ব্যবহারের ঘটনা তদন্তের জন্য সিরিয়ায় পাঠানো বিশ্ব সংস্থার বিশেষজ্ঞরা তদন্ত করা সাতটি ক্ষেত্রের মধ্যে পাঁচটিতে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের প্রমাণ পেয়েছেন – খান-এল-আসালে ১৯শে মার্চ, সারাকেবে ২৯শে এপ্রিল, গুটায় ২১শে আগস্ট, জবারে ২৪শে আগস্ট এবং আশ্রাফিয়ে-সাহনায়ে ২৫শে আগস্ট. তাঁরা শেখ-মাক্সুদে ১৩ই এপ্রিল এবং বাহারিয়ে-তে ২২শে আগস্ট রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহার সমর্থন করতে পারেন নি. এ দলিলে আরও উল্লেখ করা হয়েছে যে, রাসায়নিক অস্ত্রে ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে ছিল সরকারী বাহিনীর সৈনিকরা এবং বেসামরিক অধিবাসীরা. তবে বিশেষজ্ঞদের কর্তব্যের মধ্যে ছিল না সিরিয়ার আভ্যন্তরীন সঙ্ঘর্ষে কোন্ পক্ষ রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেছে তা নির্ধারণ করা. কর্তৃপক্ষ এবং বিরোধীপক্ষ আগে এর জন্য পরস্পরের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছিল.