এ সম্বন্ধে শুক্রবার বলেছেন রাষ্ট্রসঙ্ঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভিতালি চুরকিন. তিনি এ স্থিরবিশ্বাস প্রকাশ করেন যে, ইরানের পারমাণবিক সমস্যার মীমাংসা এ অঞ্চলের পরিস্থিতির উপর সু-প্রভাব বিস্তার করবে এবং বিপজ্জনক প্রবণতা অতিক্রমে সাহায্য করবে, যখন নিকট প্রাচ্যে সঙ্কটজনক ও সঙ্ঘর্ষমূলক পরিস্থিতি বলপ্রয়োগের পদ্ধতিতে মীমাংসার চেষ্টা করা হয়েছিল. তিনি মনে করিয়ে দেন যে, নভেম্বরের শেষে জেনেভায় অর্জিত সমঝোতায় “ইরান-বিরোধী নিষেধাজ্ঞার ব্যবস্থা শিথিল করা” অনুমিত. তাঁর কথায়, প্রথম পর্যায়ে লাঘব করা উচিত্ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোসঙ্ঘের দ্বারা প্রবর্তিত একতরফা ব্যবস্থা, যা দীর্ঘকাল ধরে ইরানের জনগণের সামাজিক-অর্থনৈতিক পরিস্থিতির উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে. নিজের বক্তব্যের সময় চুরকিন নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যদের ফেডারেল সভার কাছে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিনের বার্তার অংশ পড়ে শোনান, যাতে রাষ্ট্রনেতা শান্তিপূর্ণ পারমাণবিক শক্তির বিকাশে ইরানের অবিচ্ছেদ্য অধিকারের এবং ইস্রাইল সহ অঞ্চলের সমস্ত দেশের নিরাপত্তার গ্যারান্টি দেওয়া আরও বিস্তৃত মীমাংসার অনুসন্ধান চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন.