কূটনীতিজ্ঞ উল্লেখ করেন যে, নভেম্বরে অর্জিত সমঝোতা পালন নিয়ে পরামর্শ বুধবারে ক্রমানুবর্তিত হবে. ভিয়েনা সাক্ষাতে আলোচনা করা হচ্ছে এ প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণকারীদের মাঝে পারস্পরিক ক্রিয়াকলাপের প্রণালী এবং আলাপ-আলোচনার দুই লাইনের সঙ্গতি সাধন নিয়ে – একদিকে ইরান এবং আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির মাঝে, এবং অন্যদিকে ইরান এবং আন্তর্জাতিক মধ্যস্থ “ছয় দেশের” (রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য পাঁচটি দেশ ও জার্মানি) মাঝে. ১১ই নভেম্বর আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির ডিরেক্টর জেনারেল ইউকিয়া আমানো-র তেহেরান সফরের সময় ইরান এবং আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির মাঝে পারস্পরিক ক্রিয়াকলাপ প্রসার সম্পর্কে সমঝোতা অর্জিত হয়েছিল. ২৪শে নভেম্বর “ছয় দেশ” ও ইরান সমঝোতায় আসে ইরানে ইউরেনিয়ামের পরিশোধন তীব্রভাবে সীমিত করা সম্পর্কে, যা এজেন্সি পরীক্ষা করবে, আর তার বদলে ইরানের বিরুদ্ধে আগে প্রবর্তিত আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা ধীরে ধীরে লাঘব করা হবে.