এ সাক্ষাতে তাছাড়া উপস্থিত ছিলেন পাকিস্তানের অর্থ, অর্থনীতি, পরিসংখ্যান ও ব্যক্তিগতকরণ সংক্রান্ত মন্ত্রী ইশাক দার এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রী হাওয়াজ আসিফ. পাকিস্তানের বেতার সম্প্রচার কর্পোরেশন জানিয়েছে যে, শরিফ আরও বলেছেন যে, “পাকিস্তান আফগানিস্তানে শান্তি ও স্থিতিশীলতা অর্জনের প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করে যাবে”. মার্কিনী প্রতিরক্ষামন্ত্রীর পাকিস্তান সফর বিগত প্রায় চার বছরে এই প্রথম. হেগেল ইসলামাবাদে আসেন আফগানিস্তান থেকে, কাবুলে তিনি সাক্ষাত্ করেন আফগান রাষ্ট্রপতি হামিদ কার্জাইয়ের সাথে. সহযোগিতা এবং আফগানিস্তানের পরিস্থিতি – পেন্টাগনের কর্তার পাকিস্তানে আলাপ-আলোচনার আলোচ্য-সূচির একটি বিষয় ছিল. অন্যান্য বিষয়ের মধ্যে ছিল – মার্কিনী ড্রোন বিমানের আক্রমণ, যা পাকিস্তান মনে করে তার সার্বভৌমত্বের লঙ্ঘন.