এরই মধ্যে ভিয়েনা শহরে ইরান ও “আন্তর্জাতিক মধ্যস্থতাকারী পক্ষ” (রাষ্ট্রসঙ্ঘের পাঁচ স্থায়ী সদস্য দেশ ও জার্মানী) সহ আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি নিয়ন্ত্রণ সংস্থার প্রতিনিধিরা এক জরুরী অধিবেশনে বসতে চলেছেন ৯- ১০ ডিসেম্বর. এই অধিবেশনে ইরানের সঙ্গে ছয় মধ্যস্থতাকারী পক্ষের নভেম্বরের শেষে করা অন্তর্বর্তী কালীণ চুক্তি কার্যকর করা নিয়ে আলোচনা হতে চলেছে.

শনিবারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী ইহুদী মহলের সঙ্গে এক সাক্ষাত্কারের সময়ে রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা উল্লেখ করেছেন যে, ইরানের সঙ্গে এই অন্তর্বর্তী সময়ের জন্য চুক্তি দীর্ঘকালীণ চুক্তির জন্য পথ নির্দেশ করবে ও তেহরানের বিষয়ে সকলের উদ্বেগ নিরসন করবে. এই প্রসঙ্গে রাষ্ট্রপতি বলেছেন এই ধরনের চুক্তির সম্ভাবনা এখনও “৫০/ ৫০” ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিজেদের জন্য সমস্ত রকমের কাজকর্মের সম্ভাবনাকেই উন্মুক্ত রাখছে, যদি ইরান কোন রকমের কাজ চুক্তি অনুযায়ী না করে, তাহলে. একই সময়ে ওবামা বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন যে, “কূটনীতিই ইরানের সমস্যা সমাধানের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত পথ”.