২০ হাজার মেগাওয়াট ক্ষমতার বিদ্যুত্ কেন্দ্র নির্মাণের পরিকল্পনা আছে, তাঁ কথা উদ্ধৃত করেছে “ইরনা” সংবাদ এজেন্সি. তা শিল্প-বর্জ্য এবং আভ্যন্তরীন তেলের চাহিদা কমানোর সুযোগ দেবে. সালেহি-র বিবৃতি পর্যবেক্ষকদের মনোযোগ আকর্ষণ করেছে এ জন্য যে, গত মাসে জেনেভায় ইরানের এবং আন্তর্জাতিক মধ্যস্থ “ছয় দেশের” (রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য পাঁচটি দেশ এবং জার্মানি) প্রতিনিধিদল তেহেরানের পারমাণবিক কর্মসূচি সম্পর্কে সমঝোতা অর্জন করে. তা অনুযায়ী, ইরান আগামী ছয় মাস নিজের পারমাণবিক কর্মসূচি অচলাবস্থায় রাখবে, আর পশ্চিমের দেশগুলি তেহেরানের বিরুদ্ধে প্রবর্তিত অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা শিথিল করবে. আগে ইরান আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির পরিদর্শকদের ৮ই ডিসেম্বর আরাকে পারমাণবিক প্রকল্প সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছিল.