বৈঠকে আফগানিস্তানে পারস্পরিক ক্রিয়াকলাপের পরিপ্রেক্ষিত আলোচিত হবে, ২০১৪ সালে এ দেশ থেকে আন্তর্জাতিক সামরিক বাহিনীর অপসারণ বিবেচনায় রেখে. বিশেষ মনোযোগ দেওয়া হবে আফগানিস্তানে ন্যাটো জোটের পরিকল্পিত উপস্থিতির জন্য যথাযথ আন্তর্জাতিক বিধানিক বনিয়াদ সুনিশ্চিত করার প্রয়োজনীয়তার উপর. রাশিয়ার পক্ষ থেকে আবার উল্লেখ করা হবে উত্তর আটলান্টিক জোট এবং যৌথ নিরাপত্তার চুক্তি সংস্থার সহযোগিতা গড়ে তোলার গুরুত্বের প্রতি. এ বৈঠকের সময় ২০১৩ সালে রাশিয়া-ন্যাটো পরিষদের কার্যকলাপের ফলাফল বিবেচনা করা হবে এবং জলদস্যুতা, সন্ত্রাসবাদ ও নার্কোটিকের চোরা-কারবারের বিরুদ্ধে সংগ্রামে ভবিষ্যত্ সহযোগিতার প্রাধান্য নির্ধারণ করা হবে. তাছাড়া আলোচিত হবে প্রাকৃতিক ও প্রযুক্তি-জাত বিপর্যয়ের কুপরিণতি দূর করা এবং সামরিক-প্রযুক্তিগত ক্ষেত্রে পারস্পরিক ক্রিয়াকলাপ. আলোচ্য-সূচিতে তাছাড়া থাকবে প্রতিবেশের দিক থেকে নির্মল অগ্রণী প্রকৌশল ব্যবহার করে গোলা-বারুদের প্রসেস করে অন্যত্র কাজে লাগানোয় সহযোগিতার.