প্রাক্কালে শুরু হওয়া পরামর্শ-বৈঠকের অংশগ্রহণকারীদের কথা বিশ্বাস করা হয়, তাহলে বিভিন্ন বিন্যাসে সাক্ষাতে ব্যস্ত দিনের পরে তাঁদের আশাবাদ কমে নি. ইউরোসঙ্ঘের বৈদেশিক ব্যাপার ও নিরাপত্তার নীতি সংক্রান্ত হাই-কমিশনারের প্রেস-সেক্রেটারি মাইকেল মানের কথায়, পূর্ণাঙ্গ বৈঠকের সময় সব পক্ষ “অগ্রগতির সাধারণ স্থিরনিশ্চয়তা” প্রকাশ করেছে. দশ বছরেরও বেশি সময় ধরা চলা আলাপ-আলোচনায় “ছয় দেশ” ইরানের কাছ থেকে সেই সব পদক্ষেপ গ্রহণের চেষ্টা করছে, যা তেহেরানের পারমাণবিক কর্মসূচির সম্ভাব্য সামরিক ধারা সম্বন্ধে আন্তর্জাতিক জনসমাজের উদ্বেগ দূর করবে. ইরানের প্রয়োজন ব্যাপক পরিসরের নিষেধাজ্ঞা বাতিল, যা তার অর্থনীতির গুরুতর ক্ষতি সাধন করছে. আলাপ-আলোচনার টেবিলে পেশ করা চুক্তির খুঁটিনাটি প্রকাশ করা হচ্ছে না.