এ সম্বন্ধে মার্কিনী কূটনীতিজ্ঞ বলেছেন সোমবার তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেত দউতওগলুর সাথে সাক্ষাতে. বরং উল্টে, ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে তেহেরানের সাথে সমঝোতা অর্জনে আন্তর্জাতিক জনসমাজের প্রচেষ্টা ঝুঁকি কমাচ্ছে এবং অঞ্চলে সর্বাত্মক মীমাংসা অর্জনে সহায়তা করে, কেরি-র উক্তি উদ্ধৃত করে জানিয়েছে “ইতার-তাস” সংবাদ এজেন্সি. কেরি ইস্রাইলী-প্যালেস্টাইনী সঙ্ঘর্ষ এবং ইরানের পারমাণবিক সমস্যার মীমাংসা নিয়ে নেতানিয়াহু-র সাথে আলাপ-আলোচনার জন্য আগামী দু সপ্তাহের মধ্যে ইস্রাইল সফর করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন. নিজের তরফ থেকে দউতওগলু কেরির সাথে সাক্ষাতে এ কথা পুনরায় সমর্থন করেছেন যে, ইরানের সাথে ছয় দেশের আলাপ-আলোচনায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রচেষ্টা তুরস্ক সমর্থন করবে. দউতওগলু উল্লেখ করেন, সমঝোতা অর্জন “অতি সুন্দর খবর হতে পারে, কারণ তা অঞ্চলে উত্তেজনা হ্রাস করবে, এবং তা অন্যান্য প্রশ্নেও অনুকূল প্রভাব ফেলবে”.