এই ঘটনায় ৩৫জন আহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গিয়েছে ও তাদের আঘাত বন্দুকের গুলি লাঠি ও তরোয়ালের ঘা থেকেই লেগেছে. বহু বাড়ী ও দোকানে লুঠপাঠ করা হয়েছে ও আগুন লাগানো হয়েছে. সুন্নী মুসলমানরা শিয়াদের হজরত মহম্মদের পৌত্র ইমাম হুসেইনের হত্যার কারণে শোক প্রকাশের জন্য প্রত্যেক বছরেই এই জুলুষ বের করে থাকে, সারা বিশ্ব জুড়েই এখন সুন্নী মুসলমানরা এই দিনে শিয়া মুসলমানদের আক্রমণ করছে. এটা ইসলাম ধর্মের একটা অঙ্গে পরিণত হয়েছে.

পাকিস্তানের প্রশাসন শনিবার মধ্য রাত্র পর্যন্ত কার্ফ্যু জারী করতে বাধ্য হয়েছে ও শহরের সমস্ত রাস্তাঘাটে যান চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে, ফলে পাশের শহর ইসলামাবাদে যান চলাচলে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে. এই সময়ে আবার মোবাইল পরিষেবাও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে সন্ত্রাসবাদী কাজ কারবারের হাত থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য. সারা দেশে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে.