আলাপ-আলোচনার একটি মুখ্য বিষয় – ভিয়েতনাম ও ইউরেশীয় অর্থনৈতিক কমিশনের কাঠামোতে রাশিয়া, কাজাখস্তান এবং বেলোরুশিয়া-কে যুক্ত করা শুল্ক সঙ্ঘের মাঝে স্বাধীন বাণিজ্য এলাকার গঠন. ২০১২ সালে রাশিয়া ও ভিয়েতনামের মাঝে পণ্য-আবর্তন ছিল ৩৬৬ কোটি ডলারের, রাশিয়ার বহির্বাণিজ্যে ভিয়েতনামের অংশ – ০.৪ শতাংশ, আর ভিয়েতনামের পণ্য-আবর্তনে রাশিয়ার অংশ – ১ শতাংশ. ভিয়েতনাম রাশিয়ায় সরবরাহ করে খাদ্যদ্রব্য (মাছ ও সামুদ্রিক খাদ্য, ফল ও সবজি, চা, কফি) এবং লঘু শিল্পের পণ্য, বছরের প্রথমার্ধে রপ্তানির ৫০ শতাংশের উপর পড়েছিল ইলেকট্রনিকসের ভাগে. রাশিয়া আশা করে যে, স্বাধীন বাণিজ্য এলাকার কল্যাণে পণ্য-আবর্তন দু গুণ বাড়বে ২০১৫ সালে ৭০০ কোটি ডলার পর্যন্ত এবং ২০২০ সালে এক হাজার কোটি ডলার পর্যন্ত. বর্তমানে রাশিয়া থেকে ভিয়েতনামে রপ্তানি করা হয় যন্ত্রনির্মাণ ক্ষেত্রের জিনিসপত্র. ভিয়েতনামের অর্থনীতি বিগত ১০ বছরে গতিশীলভাবে বিকশিত হচ্ছে. ভিয়েতনাম বহু চীনা পণ্যের বিকল্প দিতে পারে, আর তাছাড়া বহু চীনা প্রতিষ্ঠান সেখানে নিজেদের উত্পাদনী কারখানা ইত্যাদি নিয়ে যাচ্ছে. রাশিয়া ও ভিয়েতনামের পণ্য-আবর্তন আপাতত সামান্য, তবে শূণ্য নয়, আর বাধা দূর করার পরে উভয় পক্ষেরই লাভ হবে.