এ সম্বন্ধে জানিয়েছে ফিলিপাইনের জাতীয় সংবাদ এজেন্সি. এ অঞ্চলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি গ্লোরিয়া ফাব্রেগাসের কথায়, ১৫৬৩টি শবদেহ খুঁজে পাওয়া গেছে, বেশির ভাগই – লেইতে ও পূর্ব সামার প্রদেশে, আর তাছাড়া সামার প্রদেশের তাক্লোবান ও বাসেই শহরে. অন্যান্য প্রদেশে প্রায় ৬০০ কিলোমিটার দীর্ঘ এলাকা থেকে কোনা খবর এখনও পাওয়া যায় নি, যোগাযোগ ছিন্ন হওয়ার জন্য. এদিকে বিপর্যয়ে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত তাক্লোবান শহরের মেয়র আলফ্রেড রোমুয়াল্ডেস তাঁর শহরে নিহতদের সংখ্যা সম্বন্ধে একমত নন, তাঁর মতে তা ভীষণভাবে কমিয়ে বলা হয়েছে. লুঠপাটের বহু ঘটনার জন্য তাক্লোবান শহরে সোমবার জরুরী পরিস্থিতি এবং কার্ফিউ জারি করা হয়েছে. আগে রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদক বান কি মুন “হাইয়ান” টাইফুনের কুপরিণতিতে ভীষণ উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন. তাঁর কথায় এই টাইফুনের ফলে ৯৫ লক্ষ লোক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে.