দেশের ২২টি প্রদেশে স্কুলের পাঠ বন্ধ করা হয়েছে, ৪৫০টিরও বেশি বিমান-যাত্রা বাতিল করা হয়েছে. অন্ততপক্ষে তিনজন নিহত হয়েছে. জাহাজ চলাচলও বন্ধ করা হয়েছে. ফিলিপাইনের কেন্দ্রীয় অংশ – সামার ও লেইতে দ্বীপ টাইফুনের আওতায় পড়েছে. সেখানে বিদ্যুত্ সরবরাহ বিঘ্ন ঘটেছে. বাতাসের গতি ছিল সেকেন্ডে ৭৬ মিটার. তা সহজেই গাছ ভাঙতে পারে. ফলে কয়্কেটি মোটর-রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ রয়েছে. আশা করা হচ্ছে যে, ফিলিপাইনের পরে এ টাইফুন যাবে ভিয়েতনাম ও লাওসের দিকে.